Naya Diganta
নি ত্যো প ন্যা স

আকাশের ওপারে আকাশ

নি ত্যো প ন্যা স

পঞ্চান্ন.
পরীদের দেশে একজন অবৈধ মানুষ আসার খবর কি পুলিশের কাছে পৌঁছে গেছে। তাকে ধরে নিয়ে যেতে এসেছে!
তিতলী বেরিয়ে বলে, ‘আব্বু তো অফিসে। আম্মু স্কুলে। বাড়িতে আমি আছি।’
‘আমি পোস্টাপিস থেকে আসছি। তোমার আব্বু মানে আমাদের রাজার নামে একটা চিঠি আছে। চিঠিটা জরুরি। কোহকাফ নগরের দুষ্ট পরীদের সংক্রান্ত। তারা আমাদের রাজ্যে গোপনে কিছু অপরাধ মূলক তৎপরতা চালাবার চেষ্টা করছে। এই গুরুত্বপূর্ণ চিঠিটা কি আমি তোমার কাছে দিয়ে যাব? নাকি তোমার আব্বুর অফিসে গিয়ে দিয়ে আসব।’
‘মনে হয় অফিসে যাওয়াই ভালো। আব্বুর অফিস ছুটি হতে তো এখনো অনেক দেরি।তবে আস্মুর স্কুল বোধ হয় কিছুক্ষণের মধ্যে ছুটি হয়ে যাবে। আস্মুর জন্য অপেক্ষা করতে চাইলে বসতে পারেন। আম্মুর কাছে দিলে কি হবে?’
‘না। আমাকে বলা হয়েছে গুরুত্বপূর্ণ চিঠিটা আমাদের বাদশাহর হাতে দিতে। আরো অনেকের কাছে যেতে হবে এরকম চিঠি বিলি করতে। গুরুত্বপূর্ণ মিটিং হবে আজ।’
‘আব্বু কি জানতেন না? এটা কোথা থেকে পাঠানো হয়েছে।’
‘এটা সরকারি ঘোষণা। মন্ত্রণালয় থেকে এসেছে। ঠিক আছে আমি যাই।’
রিয়াজ একটু অবাক হলো। একজন বাদশাহ অফিস করে। সবার জন্য দেয়া একই রকম বাড়িতে থাকে। রানীকে স্কুলে পড়াতে যেতে হয়। সরকার থেকে সাধারণ একজন পোস্টম্যান হেটে এসে চিঠি বিলি করে? কোনো নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেই। এ কেমন দেশ?
তিতলী পরী ভেতরের ঘর থেকে খানিকক্ষণ ঘুট ঘুট শব্দ করে তারপর রিয়াজের রুমে এসে কাচুমাচু মুখে বলে, ‘একটু সমস্যা হয়ে গেছে। দোকানে যেতে হবে। (চলবে)