Naya Diganta

জমজ ২ বোনের একসাথে মৃত্যুবাসনা পূর্ণ হলো করোনায়

কেটি ডেভিস আর ইমা ডেভিস

জমজ দু’বোন। ৩৭ বছর বয়সী কেটি ডেভিস আর ইমা ডেভিসের পেশাও ছিল একই। দু’জনই নার্স। একজন ছিলেন চিলড্রেন বিভাগে আর অন্যজন কলোরেক্টাল বিভাগে। চাকরি করতেন একই হাসপাতালে। হাসিখুশি জীবন ছিল তাদের। জীবনে চলার পথে দু’বোন প্রায়ই বলতো - আমরা পৃথিবীতে এসেছি একসাথে। মনে হয় আমরা পৃথিবী ছেড়ে চলে যাবো একসাথে। আর তাদের ধারণা সঠিক করে করোনায় আক্রান্ত করে দু’দিনের ব্যবধানে দুজনকেই পৃথিবী থেকে নিয়ে গেছেন সৃষ্টিকর্তা।

দুই বোনের এমন মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে ব্রিটেনের সাউদাম্পটন জেনারেল হাসপাতালে। চিল্ড্রেন নার্স কেটি মৃত্যুবরণ করেন গত মঙ্গলবার সাউদাম্পটন জেনারেল হাসপাতালে। আর ইমা মৃত্যুবরণ করেন শুক্রবার সকালে।

তাদের অপর বোন জো ডেভিস বিবিসিকে বলেন, ‘তারা সবসময় বলতো, তারা এক সাথে এসেছে, এক সাথেই চলে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘কি আশ্চার্যজনক জুটি তারা, একসাথে তারা অসুস্থ হয়ে এবং একই হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করলো।’

জো আরো বলেন, ‘পরিবারের কাছে তারা কতটা আদরের ছিলো তা বর্ণনা করার মতো কোনো শব্দ নেই আমার কাছে। তারা দু’জনই মানুষের উপকার করতে পছন্দ করতো। এমন নয় যে, কেটি মানুষের উপকার করতে পছন্দ করছে আর ইমা তা পছন্দ করছে না। তা হতো না। দু’জনই ছিলো খুবই মিশুক। সহজেই মানুষকে আপন করে নিতে পারতো।’

কেটি আর ইমার শৈশবের স্মৃতি মনে করে জো বলেন, ‘তারা যখন ছোট ছিলো তখনো তারা পুতুলের যতœ নেয়ার জন্য ডাক্তার-নার্স সেজে কাজ করতো। আশ্চর্যজনকভাবে দু’জনই তাদের পেশা পছন্দ করলো নার্স। কিন্তু মরণঘাতী করোনা তাদের আমাদের পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন করে দিলো। বিধাতা ওদের ভালো রাখুক।’

ব্রিটেনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ন্যাশনাল হেল্থ সার্ভিসের (এনএইচএস) ৯০-এর অধিক কর্মকর্তা ও কর্মচারী মারা গেছে। এদের মধ্যে প্রায় ৫০ জন নার্স হিসেবে কাজ করতে গিয়ে মারা যায়।