Naya Diganta

পাঞ্জশিরে সড়ক ও টেলিযোগাযোগ পুনরায় চালু

পাঞ্জশির প্রদেশের প্রবেশ পথ

প্রায় ২০ দিন বন্ধ থাকার পর আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের উত্তরের পাঞ্জশির প্রদেশের সড়ক ও টেলিযোগাযোগ আবার শুরু হয়েছে। শুক্রবার সড়ক ও টেলিযোগাযোগ পুনরায় শুরুর তথ্য নিশ্চিত করেন অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের মন্ত্রিসভার সদস্য ও প্রদেশের বাসিন্দারা।

তবে প্রদেশের বিদ্যুৎ সংযোগ এখনো চালু করা হয়নি বলে জানান স্থানীয় বাসিন্দারা।

স্থানীয় সাংবাদিক মোহাম্মদ ওয়াসি আলমাস জানান, বৃহস্পতিবার থেকেই টেলিফোন নেটওয়ার্ক পুনরায় চালু হয়। তবে বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করাই এখন চ্যালেঞ্জ।

পাঞ্জশিরের কিছু বাসিন্দা জানান, তালেবানবিরোধী বিদ্রোহীদের সাথে তালেবান যোদ্ধাদের সংঘর্ষের সময় ৯০ ভাগ বাসিন্দা সংঘর্ষ এড়াতে নিজেদের বাড়িঘর ছেড়ে পাহাড়ে পালিয়ে যান।

এক বাসিন্দা বলেন, '১০০ ভাগের মধ্যে মাত্র ১০ ভাগ লোক নিজেদের বাড়িতে অবস্থান করছে।'

পাঞ্জশিরের স্থানীয় নিরাপত্তা বিভাগের কর্মকর্তারা অবশ্য জানান, প্রদেশের পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে।

স্থানীয় নিরাপত্তা বিভাগের এক কর্মকর্তা মৌলভি সানা সানগিন ফাতিহ বলেন, 'নারী, শিশু ও জনগণকে রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব। বিদ্যুৎ ও খাবারের সংকটসহ বিভিন্ন ধরনের খবর প্রকৃতপক্ষে মিথ্যা।'

এদিকে মার্কিন দৈনিক দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, তালেবানবিরোধী বিদ্রোহীদের নেতা আহমদ মাসুদ যুক্তরাষ্ট্রে তাদের সমর্থন বাড়ানোর জন্য লবিস্ট নিয়োগ করেছেন।

একই সাথে যুক্তরাষ্ট্র যাতে তালেবানকে স্বীকৃতি দেয়া থেকে বিরত থাকে, সেই জন্য মাসুদ চেষ্টা করছেন বলে ঘনিষ্ঠ এক সূত্র নিউ ইয়র্ক টাইমসকে জানান।

মার্কিনিদের সাথে চুক্তি অনুসারে ক্ষমতাসীন থাকা মার্কিন সমর্থনপুষ্ট আফগান সরকারের সাথে তালেবানের সমঝোতা না হওয়ায় মে মাসে বহুজাতিক বাহিনীর প্রত্যাহারের মধ্যেই পুরো দেশের নিয়ন্ত্রণে অভিযান চালানো শুরু করে তালেবান।

৬ আগস্ট প্রথম প্রাদেশিক রাজধানী হিসেবে দক্ষিণাঞ্চলীয় নিমরোজ প্রদেশের রাজধানী যারানজ দখল করে তারা। যারানজ নিয়ন্ত্রণে নেয়ার ১০ দিনের মাথায় কেন্দ্রীয় রাজধানী কাবুলে পৌঁছে যায় তালেবান যোদ্ধারা। তালেবানের অগ্রসরে আশরাফ গনির কাবুল ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার জেরে আফগান প্রশাসন ভেঙে পড়ার পরিপ্রেক্ষিতে ১৫ আগস্ট কাবুলে প্রবেশ করে তালেবান যোদ্ধারা।

তবে কাবুলের উত্তরের দুর্গম পাঞ্জশির প্রদেশ শুধু তাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে রয়ে গিয়েছিলো। আফগানিস্তানে রুশ আগ্রাসন প্রতিরোধ যুদ্ধের কিংবদন্তি যোদ্ধা আহমদ শাহ মাসুদের ছেলে আহমদ মাসুদের নেতৃত্বে তালেবানবিরোধী বিদ্রোহী যোদ্ধারা এই উপত্যকায় অবস্থান নিয়েছিলো।

৬ সেপ্টেম্বর পাঞ্জশির নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে পুরো আফগানিস্তানের ওপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে তালেবান। এর পর ৭ সেপ্টেম্বর নতুন আফগান সরকার প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেয় দলটি।

সূত্র : তোলো নিউজ