Naya Diganta

রাম মন্দিরের ভূমিপূজা মুসলিমবিদ্বেষী, টাইমস স্কোয়্যারে প্রদর্শন রুখতে নিউ ইয়র্কের মেয়রকে চিঠি

রাম মন্দিরের ভূমিপূজা মুসলিমবিদ্বেষী, টাইমস স্কোয়্যারে প্রদর্শন রুখতে নিউ ইয়র্কের মেয়রকে চিঠি

আগামী ৫ আগস্ট রাম মন্দিরের ভূমিপুজোর দিন নিউ ইয়র্কের টাইমস স্কোয়্যারের বিলবোর্ডে ভেসে উঠবে শ্রী রাম ও মন্দিরের থ্রি ডি ছবি। প্রবাসী ভারতীয় হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের এই উদ্যোগের বিরুদ্ধে এবার একজোট হয়েছে মার্কিন মুলুকের একাধিক সংগঠন। অন্তত ২০টি সংগঠন ও বহু বিশিষ্ট ব্যক্তি এর বিরুদ্ধে নিউ ইয়র্কের মেয়রকে চিঠি লিখেছেন বলে জানা গেছে। চিঠিতে অভিযোগ করা হয়েছে, এই ইসলামবিদ্বেষী বিলবোর্ড প্রদর্শন ভারতীয় মুসলিমদের মানবাধিকারে আঘাত। নিউ ইয়র্কের মতো সর্বধর্ম সমন্বয়ের শহরে কীভাবে এমন ঘৃণা ও ইসলামবিদ্বেষী প্রদর্শন ও সেলিব্রেশনকে অনুমতি দেয়া হচ্ছে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে মেয়রের কাছে।

কয়েকজন বিশিষ্ট ব্যক্তি চিঠিতে লিখেছেন, “বিজেপির উগ্র হিন্দুত্ববাদ ও জাতীয়তাবাদের বিরুদ্ধে আমরা একজোট। এই দল ভারতে মুসলিমবিদ্বেষ ছড়ায়। সর্বধর্ম সমন্বয়কে মানে না। তাদের মন রাখার জন্য নিউ ইয়র্ক শহরে কীভাবে এই কর্মকাণ্ডকে অনুমতি দেয়া হচ্ছে?”

তারা আরো লিখেছেন, “৪২৫ বছরের পুরনো বাবরি মসজিদ ভেঙে আর ৩০০০ মানুষের মৃত্যুর বিনিময়ে পাওয়া এই রাম মন্দিরের ভূমিপূজার অনুষ্ঠান সম্প্রচার ইসলামবিদ্বেষী। ওইদিন রাম ও মন্দিরের ছবি প্রদর্শন বন্ধে নির্দেশ দিতে হবে।”

উল্লেখ্য, আমেরিকান ইন্ডিয়া পাবলিক অ্যাফেয়ার কমিটির প্রধান তথা হিন্দুত্ববাদী নেতা জগদীশ সেহওয়ানি গত বুধবার জানিয়েছেন, আগামী ৫ আগস্ট এই ঐতিহাসিক মুহূর্তের সাক্ষী থাকতে চান প্রবাসী ভারতীয়রাও। ওইদিন রাম মন্দিরের ভূমিপূজার পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। ওইদিন সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত হিন্দি ও ইংরাজিতে লেখা জয় শ্রী রাম, রাম ও রাম মন্দিরের থ্রি ডি ছবি এবং প্রধানমন্ত্রীর শিলান্যাসের ছবি ভেসে উঠবে নাসদাক বিলবোর্ডে। ১৭ হাজার স্কোয়্যার ফুটের বিশাল লিড স্ক্রিনে ভেসে উঠবে সেইসব ছবি।

জগদীশ জানিয়েছেন, শতাব্দীর অন্যতম ঐতিহাসিক অনুষ্ঠান রাম মন্দিরের শিলান্যাস। মানব জীবনে এরকম দুর্লভ ঘটনা বারবার আসে না। তাই রাম মন্দিরের অনুষ্ঠানের ছবি আমরা আইকনিক টাইমস স্কোয়্যারে দেখানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে রাম মন্দির নির্মাণ বিশ্বের সমস্ত হিন্দুর জন্য এক গর্বের মূহূর্ত। ছ’বছর আগেও এমনটা সম্ভব বলে মনে হতো না। কিন্তু ভারতের প্রধানমন্ত্রীর হওয়ার পর নরেন্দ্র মোদি হিন্দুদের আশা পূরণ করেছেন।

সূত্র : সংবাদ প্রতিদিন