০১ অক্টোবর ২০২০
আইআইইউসির অনলাইন সভা \

শিক্ষাকার্যক্রম গতিশীল রাখতে শিক্ষকরাই আসল প্রাণশক্তি : ভিসি মহিউদ্দিন

-

আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামের (আইআইইউসি) ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর কে এম গোলাম মহিউদ্দিন বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাকার্যক্রম নির্বিঘœ ও গতিশীল রাখার জন্য শিক্ষকরাই হচ্ছে আসল প্রাণশক্তি। শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন যাতে বিঘিœত না হয় সে দিকে সবার সুনজর এবং সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। তাদের শিক্ষাজীবন সচল রাখার ক্ষেত্রে কোনো অন্যায়ের সাথে আপস করা হবে না। তিনি আরো বলেন, যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়ম ও প্রথাবিরোধী গুটিকয়েক অবুঝ শিক্ষার্থী থাকে। তাদেরকে বোঝানোর দায়িত্ব শিক্ষকদের নিতে হবে।
গতকাল রোববার সকালে আইআইইউসি আয়োজিত এক অনলাইন সভায় মহামারী করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের শিক্ষাকার্যক্রম নির্বিঘœ রাখতে শিক্ষকদের করণীয় সম্পর্কে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। আইআইইউসির প্রো ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলী আজাদীর সভাপতিতে এবং সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে আইআইইউসির ট্রেজারার, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভাগীয় চেয়ারম্যান, সেন্টার পরিচালক, রেজিস্ট্রার, প্রক্টর, প্রোগ্রাম সমন্বয়ক, শিক্ষক, কর্মকর্তাসহ ১৭০ জন অংশগ্রহণ করেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর কে এম গোলাম মহিউদ্দিন আরো বলেন, করোনাকালের এই অস্থিতিশীল অবস্থায়ও আইআইইউসি শিক্ষাকার্যক্রম চালিয়ে যেতে পারছে এটিই আনন্দের বিষয়। শিক্ষাকার্যক্রমের ধারাবাহিকতা অব্যাহত ও সচল রাখার জন্য আমাদের সবার প্রাণান্তকর চেষ্টা রয়েছে। তিনি আরো বলেন, মহামারী করোনাকালের কথা বিবেচনা করে টিউশন ফির ওপর ২০ শতাংশ ওয়েভার দেয়া হয়েছে। চট্টগ্রামে আইআইইউসি সর্বোচ্চ ওয়েভার দিয়েছে। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের ফলাফলের ওপর, সিবলিংস, সেমিস্টারের ফলাফলের ওপর, মুক্তিযোদ্ধা কোটা, অতি দরিদ্র কোটা, এই বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স সম্পন্ন করে মাস্টার্সে ভর্তি হওয়ার সময় এবং ব্যাংকের চাকরিজীবীরা ভর্তির সময় আইআইইউসি ২৫ শতাংশ থেকে শতভাগ আর্থিক সহযোগিতা দিয়ে থাকে। এ প্রসঙ্গে প্রফেসর কে এম গোলাম মহিউদ্দিন এই করোনাকালেও আইআইইউসির অ্যাকাডেমিক অর্জন আছে উল্লেখ করে বলেন, গবেষণামূলক প্রকাশনায় এই বিশ্ববিদ্যালয় একটি ওয়ার্ল্ড র্যাংকিংয়ে তৃতীয় এবং অনলাইন ক্লাসের জন্যও এ বিডিরেন র্যাংকিংয়ে তৃতীয় হয়েছে।
সভাপতির বক্তব্যে আইআইইউসির প্রো ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলী আজাদী বলেন নেতিবাচকতা পরিহার করে সবাইকে নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। তিনি করোনার ক্রান্তিকালে শারীরিক উপস্থিতির পাশাপাশি শিক্ষকদের মতো সুনির্দিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্তসহ সব কর্মকর্তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজের সমন্বয়ের স্বার্থে সবসময় অনলাইনে থাকার আহ্বান জানান।

 


আরো সংবাদ