Naya Diganta
ভিজিএফ’র চাল আত্মসাত

বরিশালে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা

ভিজিএফ’র চাল আত্মসাত

ভিজিএফ’র চাল আত্মসাত করার অভিযোগে বরিশালের উজিরপুর উপজেলার জল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। জেলা ও দায়রা জজ সৈয়দ এনায়েত হোসেনের আদালতে দায়ের করা মামলার অভিযোগ তদন্তে দুদক কর্মকর্তার কাছে প্রেরণ করা হয়।

অপরদিকে মঙ্গলবার বেলা এগারোটায় জল্লা ইউনিয়নের বাহেরঘাট এলাকার সৌদি মার্কেট ও কারফা বাজারে জল্লা ইউনিয়নবাসীর ব্যানারে একইসময় পৃথকভাবে ভিজিএফ’র চাল আত্মসাতকারী চেয়ারম্যানসহ তার সহযোগীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার এবং চেয়ারম্যানের অপসারনের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঘন্টাব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচীতে কয়েক হাজার নারী-পুরুষ অংশগ্রহণ করেন।

এদিকে মঙ্গলবার দুপুরে আদালতের আদেশ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করেছেন দুদকের বরিশাল অফিসের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা। সূত্র মতে, ওই ইউনিয়নের বাহেরঘাট এলাকার বাসিন্দা এরশাদ হাওলাদার বাদি হয়ে সোমবার শেষ কার্যদিবসে আদালতে মামলাটি দায়ের করেছেন। মামলার অভিযুক্তরা হচ্ছেন, ইউপি চেয়ারম্যান বিশ্বজিত হালদার নান্টু, ওএমএস ডিলার প্রিতম বিশ্বাস, সুশান্ত হালদার, রমেশ বিশ্বাস ও দুলাল বিশ্বাস।

মামলার বাদি তার আরজিতে উল্লেখ করেন, অভিযুক্তরা দুর্নীতিবাজ ও পরসম্পদ লোভী। তারা পরস্পর যোগসাজশে সরকারীভাবে বরাদ্দকৃত ইউনিয়নের ভিজিএফ’র উপকারভোগীদের প্রাপ্ত চাল না দিয়ে নিজেরা আত্মসাত করেন। ওই চাল বিক্রি করার জন্য পাচারের সময় গত ২৮ আগস্ট স্থানীয়রা অভিযুক্তদের হাতেনাতে আটক করে। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ও থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্তদের কবল থেকে দুই হাজার ২৫০ কেজি ভিজিএফ’র চাল জব্দ করলেও রহস্যজনক কারণে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি।

ইউনিয়নবাসীর ব্যানারে পৃথকভাবে একইসময় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তারা বলেন, সরকারীভাবে দারিদ্র পরিবারের জন্য ঈদ উপলক্ষে বরাদ্দকৃত ভিজিএফ’র চাল আত্মসাতকারী চেয়ারম্যান ও তার সহযোগীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার এবং চেয়ারম্যানের অপসারন না হওয়া পর্যন্ত তারা আন্দোলন কর্মসূচী চালিয়ে যাবেন। বিক্ষোভ কর্মসূচীতে এলাকার জনপ্রতিনিধি, আওয়ামী লীগ ও তার সকল সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী, মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষক, সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দসহ ভূক্তভোগী ইউনিয়নবাসী অংশগ্রহণ করেন।