Naya Diganta

সুন্দরগঞ্জে নির্বাচনী সহিংসতায় ৪ মামলা, ৪ গ্রাম পুরুষশূন্য

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৪টি ভোটকেন্দ্রে ব্যালট পেপার ও ব্যালট বাক্স ছিনতাই, ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের সরকারী কাজে বাধা প্রদান, ভয়ভীতি প্রদর্শন এবং অবরুদ্ধ করে রাখার ঘটনায় থানায় পৃথক ৪টি মামলা হয়েছে। এতে মোট ১০ জনকে নামউল্লেখ আসামি ও ৫৮০ হতে ৭৪০ জন অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে। এ মামালায় ধরপাকড়ের ভয়ে ওই ৪ গ্রাম হয়ে পড়েছে পুরুষশূন্য।

ছিনতাই হওয়া ৬টি ব্যালট বাক্সের মধ্যে পুলিশ ইতোমধ্যে ৫টি ব্যালট বাক্স উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে। এছাড়া স্থগিত হওয়া ভোটকেন্দ্রের ব্যালট বাক্সগুলো এখন থানায় রয়েছে। গত সোমবার দিবাগত রাতে সংশ্লিষ্ট ভোটকেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার থানায় মামলাটি করেন।

জানা গেছে, গত রোববার ভোট চলাকালীন সময়ে উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের বৌলজান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের ব্যালট পেপার ছিনতাই করে নিয়ে যায় দুবৃর্ত্তরা। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ১২ রাউন্ড গুলি করে পুলিশ। এতে ২ জন পুলিশ সদস্যসহ ৫ জন আহত হয়। এ নিয়ে কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার বানিজ মিয়া থানায় মামলা করেন। মামলায় ২ জন নামীয় এবং ২৫০ হতে ২২০০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

উপজেলার কঞ্চিবাড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে ভোট গণনার পূর্ব মুহূর্তে ব্যালট পেপারসহ ৬টি ব্যালট বাক্স ছিনতাই হয়। এ নিয়ে কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার আশরাফুজ্জামান ৬ জনকে নামীয় ও ৮০ হতে ৯০ জনকে অজ্ঞানামা আসামি করে মামলা করেন।

উপজেলার তারাপুর ইউনিয়নের লাটশালা পশ্চিমপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে ভোট গণনা শেষে নির্বাচন কর্মকর্তাদের অবরুদ্ধ করে রাখে ও কেন্দ্রের ক্ষতিসাধন করে স্থানীয়রা। এ নিয়ে কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার আব্দুর রউফ মিয়া ১ জন নামীয় ও ২০০ হতে ২৫০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে মামলা করেন।

এছাড়া উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের মধ্য হাতিবান্ধা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে ভোট গণনার সময় হামলা ও ভাংচুর করে স্থানীয়রা। সে কারণে কেন্দ্রের প্রিজাইটিং অফিসার জাহাঙ্গীর আলম থানায় মামলা করেছেন। এতে ১ জন নামীয় ও ১০০ হতে ১৫০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়।
শ্রীপুর ইউনিয়নের উত্তর সমস গ্রামের ফরমান আলী জানান, তিনি ভোট দিয়ে বাড়ি যাওয়ার পর ঘটনাটি ঘটেছে। অথচ এখন তাকে পালিয়ে থাকতে হচ্ছে। তিনি প্রকৃত অপরাধীদের গ্রেফতারের দাবি জানান।

বজরা কঞ্চিবাড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রিজাইডিং অফিসার জানান, সকাল ৮টা হতে বিকাল ৪টা পর্যন্ত সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণের পর গণনার আগে পরিকল্পিতভাবে ব্যালট বাক্স ছিনতাই করে দুর্বৃত্তরা।

ওসি আব্দুল্লাহিল জামান জানান, ইতিমধ্যে ছিনতাই হওয়া ব্যালট ও ৫টি ব্যালট বাক্স উদ্ধার করা হয়েছে। ১টি ব্যালট বাক্স এখনও উদ্ধার হয়নি। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

উপজেলা নির্বাচন অফিসার সেকেন্দার আলী জানান, নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা পেলে পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। উপজেলা নিবার্হী অফিসার মোহাম্ম আল মারুফ জানান, সরকারী বিধি মোতাবেক সংশ্লিষ্ট ভোটকেন্দ্রের প্রিজাইটিং অফিসারগণ মামলা করেছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।