০৬ ডিসেম্বর ২০২৩, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪৩০, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৫ হিজরি
`
রেল দুর্ঘটনা

ভারতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২৮৮

ভারতে রেল দুর্ঘটনা : নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২৮৮ - ছবি : সংগৃহীত

ভারতের ওড়িশার বালেশ্বরে আপ করমণ্ডল এক্সপ্রেস দুর্ঘটনায় নিহত এবং আহতের সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অন্তত ২৮৮ জন নিহত হয়েছেন। আরো ৯০০ জনকে এখন পর্যন্ত হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

গতকাল শুক্রবার একটি প্যাসেঞ্জার ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ার পর পাশের লাইন দিয়ে যেতে থাকা আরেকটি ট্রেন সেটিকে ধাক্কা দেয়ায় এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ইন্ডিয়ান রেলওয়ে বলছে, করোমানডেল এক্সপ্রেস আর হাওরা সুপারফাস্ট এক্সপ্রেসের মধ্যে এই সংঘর্ষ হয়েছে।

ওড়িশা রাজ্যের মুখ্যসচিব প্রদীপ জেনা জানিয়েছেন যে- এখন পর্যন্ত ২৮৮টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি বলছেন, দুর্ঘটনাস্থল বালাসোরে অন্তত ২০০টি অ্যাম্বুলেন্স পাঠানো হয়েছে। এছাড়া ১০০ জন অতিরিক্ত ডাক্তার সেখানে সেবায় নিয়োজিত করা হয়েছে।

নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে কর্তৃপক্ষ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, এখনো লাইনচ্যুত বগির ভেতরে মানুষ আটকা পড়ে আছে।

ধারণা করা হচ্ছে, শালিমার-চেন্নাই করোমানডেল এক্সপ্রেসের একাধিক বগি স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টার সময় লাইনচ্যুত হয়ে যায়। কয়েকটি বগি পাশেল লাইনের ওপর পড়ে। এ সময় ইয়াশভান্তপুর থেকে হাওরার দিকে যাওয়া হাওরা সুপারফাস্ট এক্সপ্রেস ওই লাইনে পড়ে থাকা বগিগুলোতে আঘাত করে।

ভারতের কর্মকর্তারা বলছেন, সেখানে দাঁড়িয়ে থাকা আরেকটি মালবাহী ট্রেনেরও এই দুর্ঘটনায় ভূমিকা ছিল। তবে তারা এ বিষয়ে বিস্তারিত জানায়নি।

দুর্ঘটনার কারণ সম্পর্কে যা জানা যাচ্ছে
দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস পত্রিকা দক্ষিণ পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে তাদের রিপোর্টে উল্লেখ করেছে যে- চেন্নাইগামী করোমানডেল এক্সপ্রেসের চারটি বগি ও ইঞ্জিন লাইনচ্যুত হয়ে পাশের রেললাইনে পড়ে, যেই লাইন দিয়ে ইয়েশভান্তপুর-হাওরা এক্সপ্রেস যাচ্ছিল।

দ্বিতীয় ট্রেনটির পেছন দিকের দুটি বগি তখন লাইনচ্যুত হয়।

রেলওয়ের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে বলেন যে- করোমানডেল এক্সপ্রেসের ১২টি বগি বাহানগর বাজার স্টেশন পার করার সময় লাইনচ্যুত হয় এবং পাশের লাইনের ওপর পড়ে। এ সময় ওই লাইন দিয়ে হাওরা এক্সপ্রেস ট্রেন যাওয়ার সময় সেগুলোর সাথে ধাক্কা খায় এবং ট্রেনটির তিনটি বগি লাইনচ্যুত হয়।

পত্রিকাটির খবর অনুযায়ী, বাহানগর বাজার স্টেশনে চারটি রেললাইন আছে যার একটিতে দুর্ঘটনার সময় একটি মালবাহী ট্রেন দাঁড়িয়ে ছিল।

যাত্রীবাহী ট্রেন দুটি’র মূল দুই লাইন দিয়ে মুখোমুখি পার করার কথা ছিল।

হিন্দুস্তান টাইমস পত্রিকা বলছে, শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা ৫৫ মিনিটে করোমানডেল এক্সপ্রেসের ১৫টি কোচ লাইনচ্যুত হয়ে পাশের লাইনের ওপরে পড়ে এবং পরে হাওরা এক্সপ্রেসের সাথে সংঘর্ষ হলে সেই ট্রেনের দুটি বগি লাইনের বাইরে চলে যায়।

অন্য একটি সূত্রের বরাত দিয়ে দ্য হিন্দু পত্রিকা খবর প্রকাশ করেছে যে- প্রথমে ইয়েশভান্তপুর-হাওরা এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত হয়।

করোমানপেল এক্সপ্রেস পশ্চিমবঙ্গ থেকে তামিলনাড়ু যাতায়াতের মাধ্যম। দুর্ঘটনার কিছুক্ষণ আগে ট্রেনটি শালিমার স্টেশন অতিক্রম করে।

দ্য হিন্দু পত্রিকা বলছে, মূলত তামিলনাড়ুতে কাজের জন্য ও উন্নত চিকিৎসার জন্য যারা গিয়ে থাকেন, তারা এই ট্রেনটি ব্যবহার করে থাকেন।

ভারতের সবচেয়ে ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটে ১৯৮১ সালে। ওই সময় অতিরিক্ত যাত্রী বহন করা একটি প্যাসেঞ্জার ট্রেন বিহার রাজ্যে সাইক্লোনের সময় লাইনচ্যুত হয়ে নদীতে পড়ে যায়।

ওই দুর্ঘটনায় অন্তত ৮০০ মানুষ মারা গিয়েছিল।
সূত্র : বিবিসি


আরো সংবাদ



premium cement