১৮ অক্টোবর ২০১৯

পাকা না হওয়ায় রাস্তায় ধানের ‘চারা’ রোপণ করে এলাকাবাসীর প্রতিবাদ

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে একটি গুরুত্বপূর্ণ গ্রামীণরাস্তা দীর্ঘ দিনেও পাকা  না হওয়ায় চলতি বর্ষা মৌসুমে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন এলাকার মানুষ। চলাচল অনুপযোগি ওই রাস্তায় ধানের চারা রোপন করে রোববার দুপুরে এর প্রতিবাদ করেন স্থানীয় এলাকাবাসী। রাস্তাটি দ্রুত পাকা করনের জন্যে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন জনপ্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের।

জানা যায়, উপজেলার রাজীবপুর ইউনিয়নের কাশিগঞ্জ-মমরেজপুর রাস্তাটি পাকা করনের জন্যে দীর্ঘদিন ধরে জনপ্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তাদের কাছে ধর্না দিয়ে যাচ্ছেন এলাকাবাসী। জনপ্রতিনিধিরা বার বার আশ্বাস দিলেও দীর্ঘদিনেও সড়কটি পাকা হয়নি। প্রতিবছর ওই রাস্তাটি বর্ষা মৌসুমে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে।

কাশিগঞ্জ থেকে মমরেজপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত প্রায় দেড় কি.মি.রাস্তা  চলতি বৃষ্টি বাদলে প্রতিবছরের  মতো এবারো চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে। দেবস্থান, রাজীবপুর, ভট্টপুর, হাট ভোলসোমা, বৃ-ঘাগড়া গ্রাম সহ ৫টি গ্রামের প্রায় ১০ থেকে ১৫ হাজার মানুষের নিত্যদিনের চলাচলের গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা এটি। এ রাস্তা দিয়ে মমরেজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ইউনুছিয়া মাদ্রাসা ও হাসমতিয়া মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রীরা প্রতিষ্ঠানে যাওয়া আসা করে থাকে। বর্ষাকালে রাস্তায় পানি জমে থাকার ফলে অল্পতেই কাঁদার সৃষ্টি হয়। যার ফলে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়।

তাছাড়া ওই ৫টি গ্রামের কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ধান-পাট, শাক-সবজি বাজারজাত করতে এই রাস্তাটিই ব্যবহার করে থাকেন। রাস্তাটির বেহাল অবস্থার কারণে বর্ষাকালীন সময়ে কৃষক ও সর্বসাধারণের দূর্ভোগের আর সীমা থাকে না। রাস্তাটি নিয়ে জনপ্রতিনিধিরা বার বার আশ্বাস দিলেও রাস্তাটি পাকা করণের উদ্যোগ নেয়নি কেউ। বিষয়টি নিয়ে এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, রাস্তাটি দ্রুত পাকা করণের উদ্যেগ না নিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা, মানববন্ধন সহ কঠোর কর্ম সূচি ঘোষণা করবে।

স্থানীয় আক্তার হোসেন ও উমর ফারুক জানান, রাস্তাটির দূরাবস্থার ব্যাপারে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিকে বার বার জানানোর পরও রাস্তাটি সংস্কারের কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। ভূক্তভোগী এলাকাবাসী  ক্ষোভ প্রকাশ করে  রোববার চলাচল অনুপযুগী  রাস্তায় ধানের চারা রোপন করে এর প্রতিবাদ জানিয়েছে। পাশাপাশি রাস্তাটি দ্রুত পাকা করনের জন্যে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কাছে অনুরোধ জানিয়েছে। এতেও কাজ না হলে পরবর্তীতে আরো কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে এলাকার মানুষ।

বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান মোদাব্বিরুল ইসলাম কে বার বার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও  তিনি  ফোনটি রিসিভ করেন নি।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মে রুমানা তুয়া জানান, ইতোপূর্বে রাস্তাটি  নিয়ে কেউ কথা বলেনি। এলাকাবাসীর প্রতিবাদের বিষয়টি  ফেসবুকে দেখেছি। দ্রুতই রাস্তাটি নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরো সংবাদ




astropay bozdurmak istiyorum
portugal golden visa