১৪ নভেম্বর ২০১৯

টাইব্রেকারে হেরে রানার্সআপ বাংলাদেশ

বাংলাদেশ দলের পেনাল্টি স্পেশালিস্ট অধিনায়ক শামসুন্নাহার। ভুটানের বিপক্ষেও তিনি পেনাল্টি শটে গোল করেছিলেন। মঙ্গলবার ফাইনালে টাইব্রেকারে তিনি যে প্রথম শটটি নেন সেটা প্রতিহত হয় ক্রস বারে। এই মিসের খেসারতই দিতে হলো বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৫ মহিলা দলকে। আবারও অনূর্ধ্ব-১৫ মহিলা সাফের রানার্সআপ তারা। আজ ভুটানের থিম্পুর চাংলিমিথান স্টেডিয়ামে টাইব্রেকারে বাংলাদেশকে ৫-৩ গোলে হারিয়ে শিরোপা ধরে রাখলো ভারত। নির্ধারিত সময়ের খেলা গোলশূন্যতে শেষ হলে সরাসরি এই স্পট কিকের নির্দেশ। গত বর্ছও এই মাঠে ভারতের কাছে ফাইনালে ০-১ গোলে হেরেছিল বাংলাদেশ। কাল হারের ফলে হলো না লালসবুজদের শিরোপা পুনরুদ্ধার। যা তারা পেয়েছিল ২০১৭ সালে এই ভারতকে ঢাকায় হারিয়ে।

ইনজুরড শাসসুন্নাহারকে একাদশে রেখেই কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটন কাল ফাইনালের একাদশ সাজান। ফাইনাল খেলার সুযোগ পান লিগ ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে গোল করা স্বপ্না রানীও। বয়স্ক ভারতীয়রা শুরু থেকেই বাংলাদেশ দলের উপর চড়াও হয়ে খেলতে থাকে। কিন্তু লালসবুজ কিশোরীাদের প্রতিরোধের মুখে পাত্তাই পা্িচ্ছল না প্রতিপক্ষরা। বাংলাদেশ আগে ঘর গুছিয়ে এরপর পাল্টা আক্রমনের কৌশলে খেলা শুরু করে। রিপা, রোজিনারা অপেক্ষায় ছিলেন ডিফেন্স চেরা। প্রথমার্ধে এই সুযোগ অসেনি। বিপরীতে ভারতীয়রা দুটি গোলের চান্স পায় এই অর্ধে। দু’টি প্রচেস্টাই লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।

ম্যাচের তিন মিনিট বয়সে প্রিয়াংকা গোলের ভালো সুযোগ পেয়ে যান। তার সামনে শুধে গোলরক্ষক রুপনা চাকমা। কিন্তু এই ভারতীয় ফুটবরারের শট যায় পোস্টের বাইরে। ৪১ মিনিটে লিন্ডা কমের শটে চলে যায় পোস্টের বেশ দূর দিয়ে। প্রথম পয়তাল্লিশ মিনিটে বাংলাদেশ তেমন কোনো চান্সই পায়নি। তবে বিরতির পরর্পই দারুন সুযোগ আসে বাংলাদেশের সামনে। রোজিনার ্ক্রস ভারতীয় গোলরক্ষকের হাত ফসকে বেরিয়ে যায়। শাহেদা আক্তার রিপা ছুটে গিয়ে সেই বলে পা লাগানোর সময়ই তা প্রতিহত করেন বিপক্ষ কিপার আদ্রিজ্ াসারকেল।

 ৫৪ মিনিটে আমিশা বক্সালের শটও লক্ষ মিস করে। এর পরের মিনিটেই মাঠের ফ্লাডলাইটের আলো নিভে যায়। এবারের সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ মহিলা ফুটবলে এই নিয়ে চারবার খেলা চলাকালীন সময়ে বিদ্যুৎ চলে যায়। বাংলাদেশ -ভুটান ম্যাচ এই কারনে দুইবার বন্ধ ছিল। আগে এমনটা ঘটেনি। তাই আয়োজকদের উচিত ছিল সন্ধ্যায় এই ম্যাচ না দিয়ে দিনের আলোতে খেলাটি সম্পন্ন করা। ২০ মিনিট পর জ্বলে উঠে ফ্লাড লাইট। তবে দক্ষিণ পশ্চিম পাশ্বের  খুঁটির ফ্লাড লাইট আর জ্বলেনি। ওই অন্ধকার প্রান্তেই ছিল ভারতীয় পোষ্ট। এক পাশ্বের এই অন্ধকারের মধ্যেই খেলা পুনরায় শুরু হয়। আগেও পুনরায় বিদ্যুত আসার পর ওই খুঁটির বাতি আর জ্বলেনি। ফের খেলা শুরুর আগে দুই দলের ফুটবলাররা মোটা জ্যাকেট পরে ওয়ার্মআপ করে পরে খেলতে নামে।

৬৩ মিনিটে বাংলাদেশ ম্যাচের প্রথম সহজ সুযোগ পায়। কিন্তু গোলরক্ষককে একা পেয়েও রোজিনা তা গোলরক্ষকের গায়ে মেরে নষ্ট করেন সুযোগ। ৮৮ মিনিটে ভারতের লিন্ডা কম বলে পা লাগাতে না পারলে বেঁচে যায় বাংলাদেশ।ৎ

গোলশূন্য নব্বই মিনিট শেলে সরাসরি টাইব্রেকারে নিষ্পতি হয় এই ফাইনাল। এতে ভারতের সবাই গোল করলেও বাংলাদেশের রোজিনা, নাসরিন, এবং আফেইদা গোল করেন। ভারত তাদের পঞ্চম শটে গোল করে জয় নিশ্চিত করায় শেষ নেয়া হয়নি বাংলাদেশের। তবে বুড়ি দের বিপক্ষে বাংলাদেশের মেয়েরা যা খেলেছে তা প্রশংসনীয়।

বাংলাদেশ দল: রুপনা, উন্নতি, নাসরিন, আফেইদা, সুরমা, স্বপ্না ( বৃস্টি ৮৭ মি.), রেহেনা, সোহাগী, রোজিনা, শামসুন্নাহার, রিপা।


আরো সংবাদ