১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১, ৭ মহররম ১৪৪৬
`

এবারের গ্রীষ্ম সর্বোচ্চ তাপের বৈশ্বিক রেকর্ড ভেঙেছে : আবহাওয়াবিদ

- ছবি : নয়া দিগন্ত

বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার (ডব্লিউএমও) মতে, পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধের সবচেয়ে উষ্ণতম গ্রীষ্মকাল চলছে। চলতি মৌসুমে এই গোলার্ধে আগস্ট মাসে রেকর্ড পরিমাণ মারাত্মক ও প্রাণঘাতী তাপমাত্রা বয়ে গেছে।

ডব্লিউএমও ও ইউরোপীয় জলবায়ু পরিষেবা কোপার্নিকাস বুধবার ঘোষণা করেছে, বিজ্ঞানীরা ২০২৩ সালে আগস্ট মাসকে শুধু সবচেয়ে উষ্ণতম মাস হিসেবে রেকর্ড করেছে।

সংস্থাটির মতে, প্রাক-শিল্প গড়ের তুলনায় আগস্টে তাপমাত্রা ছিল প্রায় ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস (২ দশমিক ৭ ডিগ্রি ফারেনহাইট)। এটি এমন একটি মানদণ্ড যা বিশ্ব অতিক্রম না করার চেষ্টা করছে, যদিও বিজ্ঞানীরা কয়েক দশক ধরে তাপমাত্রা বৃদ্ধি নিয়ে বেশি উদ্বিগ্ন, কেবল এক মাসের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়।

ডব্লিউএমও ও কোপারনিকাস জানিয়েছে, পৃথিবীর মহাসাগরগুলো পৃথিবীর পৃষ্ঠের ৭০ শতাংশেরও বেশি রেকর্ড করা সবচেয়ে উষ্ণতম ছিল, যা প্রায় ২১ ডিগ্রি সেলসিয়াস (৬৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি ফারেনহাইট) এবং টানা তিন মাস ধরে উচ্চ তাপমাত্রার চিহ্ন রেখেছে।

জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস এক বিবৃতিতে বলেন, ‘গ্রীষ্মের দিনগুলো শুধু ভোগাচ্ছে না, আঘাত করছে। ‘জলবায়ু বিপর্যয় শুরু হয়েছে।’

কোপার্নিকাসের মতে, ২০১৬ সালের পর ২০২৩ সাল এখন পর্যন্ত রেকর্ডে দ্বিতীয় উষ্ণতম বছর।

বিজ্ঞানীরা কয়লা, তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস পোড়ানোর ফলে মানবসৃষ্ট জলবায়ু পরিবর্তনকে প্রাকৃতিক এল নিনো থেকে অতিরিক্ত চাপের সঙ্গে দায়ী করেছেন, যা প্রশান্ত মহাসাগরের কিছু অংশের অস্থায়ী উষ্ণতা যা বিশ্বব্যাপী আবহাওয়া পরিবর্তন করে। এল নিনো এই বছরের শুরুতে শুরু হয়েছিল। এটি সাধারণত বৈশ্বিক তাপমাত্রায় অতিরিক্ত তাপ যোগ করে তবে তার দ্বিতীয় বছরে ছিল আরো বেশি।

জলবায়ু বিশেষজ্ঞ অ্যান্ড্রু ওয়েভার বলেছেন, ডব্লিউএমও ও কোপার্নিকাস ঘোষিত সংখ্যাগুলো বিস্ময়কর নয়। দুঃখজনক যে কিভাবে সরকারগুলো বিশ্ব উষ্ণায়নের বিষয়টিকে যথেষ্ট গুরুত্ব সহকারে নেয়নি। তিনি উদ্বেগ প্রকাশ করেন তাপমাত্রা আবার কমলে জনগণ বিষয়টি ভুলে যাবে।

কানাডার ভিক্টোরিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব আর্থ অ্যান্ড ওশান সায়েন্সেসের অধ্যাপক উইভার বলেছেন, ‘বিশ্বের নেতাদের সত্য বলা শুরু করার সময় এসেছে।’ ‘আমরা উষ্ণায়নকে ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে সীমাবদ্ধ করব না; আমরা উষ্ণতাকে ২ দশমিক শূন্য সেন্টিগ্রেডের মধ্যে সীমাবদ্ধ করব না। ৩ দশমিক শূন্য ডিগ্রি সেলসিয়াস গ্লোবাল ওয়ার্মিং প্রতিরোধ করার জন্য এখন সবই হাতের মুঠোয় রয়েছে - উষ্ণতার একটি স্তর যা বিশ্বব্যাপী ধ্বংসযজ্ঞ চালাবে।’

কোপার্নিকাস, ইউরোপীয় ইউনিয়নের মহাকাশ কর্মসূচির একটি বিভাগ, যেটির ১৯৪০ সালে ফিরে যাওয়ার রেকর্ড রয়েছে। কিন্তু যুক্তরাজ্য ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বৈশ্বিক রেকর্ডগুলো ১৮০০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে ফিরে যায় এবং সেই আবহাওয়া ও বিজ্ঞান সংস্থাগুলো ধারণা করছে শিগগিরই গ্রীষ্মকালটি অতীতের রেকর্ড ভাঙার রিপোর্ট করবে।

কোপার্নিকাস ক্লাইমেট চেঞ্জ সার্ভিস ডিরেক্টর কার্লো বুওনটেম্পো বলেন, ‘আমরা যা পর্যবেক্ষণ করছি, তা শুধু নতুন চরম নয়, এই রেকর্ড ভাঙা অবস্থার স্থায়িত্ব এবং মানুষ এবং গ্রহ উভয়ের উপর এর প্রভাবগুলো জলবায়ু ব্যবস্থার উষ্ণায়নের একটি স্পষ্ট পরিণতি।’

বিজ্ঞানীরা গাছের খণ্ড, বরফের কোর এবং অন্যান্য প্রক্সি ব্যবহার করে অনুমান করেছেন যে তাপমাত্রা এখন প্রায় এক লাখ ২০ হাজার বছরের তুলনায় বেশি উষ্ণ। পৃথিবী আগেও উষ্ণ ছিল, কিন্তু তা মানব সভ্যতার আগে, সমুদ্র অনেক উঁচু ছিল এবং মেরুগুলো বরফের ছিল না।

মেইন ইউনিভার্সিটির ক্লাইমেট রিঅ্যানালাইজার অনুসারে, এখন পর্যন্ত বছরের এই সময়ের জন্য দৈনিক সেপ্টেম্বরের তাপমাত্রা আগের রেকর্ডের চেয়ে বেশি।

ডব্লিউএমও বলেছে, যখন বিশ্বের বায়ু এবং মহাসাগরগুলো তাপের জন্য রেকর্ড স্থাপন করছিল তখন অ্যান্টার্কটিকা কম পরিমাণে সামুদ্রিক বরফের জন্য রেকর্ড স্থাপন করে চলেছে।

ডব্লিউএমও-এর সেক্রেটারি জেনারেল পেটেরি তালাস গণমাধ্যমে প্রকাশিত একটি বিবৃতিতে বলেছেন, ‘অ্যান্টার্কটিক সমুদ্রের বরফের পরিমাণ আক্ষরিকভাবে চার্টের বাইরে ছিল এবং বিশ্বব্যাপী সমুদ্র পৃষ্ঠের তাপমাত্রা আবারও একটি নতুন রেকর্ডে রয়েছে।’‘এটি লক্ষণীয় যে এটি এল নিনোর ইভেন্টের সম্পূর্ণ উষ্ণতা প্রভাব দেখার আগে ঘটছে, যা সাধারণত এটি বিকাশের পরে দ্বিতীয় বছরে দেখা যায়।’ সূত্র : ইউএনবি


আরো সংবাদ



premium cement