০২ অক্টোবর ২০২০

মিথিলা এখন ‘মিসেস রশিদ মুখার্জি’

মিথিলা এখন ‘মিসেস রশিদ মুখার্জি’ - ছবি : সংগৃহীত

পাল্টে গেছেন মিথিলা। গান, অভিনয় আর মডেলিংর মাধ্যমে পরিচিতি পাওয়া এই মানুষটি এখন পশ্চিমবঙ্গের বউ। এই বউ হতে গিয়ে পাল্টে ফেলেছেন পূর্বের রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা নামটিও। ৬ ডিসেম্বর কলকাতার চিত্র পরিচালক সৃজিত মুখার্জিকে বিয়ে করার পর সামাজিক মাধ্যমে নিজের নতুন নাম প্রকাশ করেন তিনি।

ইনস্টাগ্রামে হাস্যেজ্জ্বল একটি ছবি পোষ্ট করে লিখেছেন, ‘মিসেস রশিদ মুখার্জি’। ক্যাপশনে লেখেন ‘মিস্টার অ্যান্ড মিসেস রশিদ মুখার্জি।’

বিয়ের পর নাম পাল্টিয়ে ভক্তদের সমালোচনার শিকার হয়েছেন এই অভিনেত্রী। অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেছেন। বিয়েটা তার ব্যাক্তিগত ব্যাপার, কিন্তু নাম পাল্টানোটা কি খুব বেশি জরুরী ছিলো?

এ বিষয়ে মিথিলা কোনো প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেননি। তিনি চলে গেছেন সুইজারল্যান্ডের জেনেভায়। সেখানে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি রেজিস্ট্রেশন করবেন তিনি। পাশাপাশি একটু বেড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে। সব মিলিয়ে সেখানে তারা থাকবেন এক সপ্তাহ। নাম পাল্টানোর ব্যাপারে কে কি ভাবলো সেদিকে আপাতত কোনো মনোযোগ নেই তার।

ছোট বেলা থেকেই মেধাবী মিথিলা রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। তিনি ব্রাক ইউনিভার্সিটি থেকে দ্বিতীয় স্নাতকোত্তর করেন আর্লি চাইল্ডহুড ডেভলপমেন্ট-এ।

পড়াশোনার পাশাপাশি তিনি কত্থক, মণিপুরী এবং ভরতনাট্যমের প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। নজরুলগীতির সুগায়িকা মিথিলার অন্য শখ হল ছবি আঁকা এবং অভিনয়। শিশুশিল্পী হিসেবে অভিনয়ও করেছেন পিপলস থিয়েটার গ্রুপে। ২০০২ সালে শুরু মডেলিং কেরিয়ার। এরপর বাংলাদেশের বেশ কিছু প্রথম সারির সংস্থার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডার হয়েছেন তিনি।

মডেলিং করতে করতেই আসে অভিনয়ের সুযোগ। মিথিলার অভিনয়ে হাতেখড়ি মিউজিক অ্যালবাম দিয়ে। এরপর টেলিফিল্ম। মিথিলার অভিনীত টেলিফিল্মগুলি বেশ জনপ্রিয় হয়।

অভিনেত্রী-মডেল-গায়িকা মিথিলা একজন সমাজকর্মীও। তিনি ব্রাক ইন্টারন্যাশনাল-এর আর্লি চাইল্ডহুড ডেভলপমেন্ট প্রোগাম-এর প্রধান। গত এগারো বছর ধরে মিথিলা এই বিষয় নিয়ে কাজ করছেন। এশিয়া ও আফ্রিকার বহু দেশে তিনি শিশুদের উন্নয়ন ও বিকাশ নিয়ে কাজ করেছেন। বাংলাদেশেও তিনি নারী ও শিশু অধিকার আন্দোলনের অন্যতম মুখ।

 


আরো সংবাদ