০২ অক্টোবর ২০২০

নুরুল ইসলাম বাবুলের দাফন সম্পন্ন

-

বনানী কবরস্থানে যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুলের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা আড়াইটার দিকে তার দাফন সম্পন্ন হয়েছে। এর আগে বাদ জোহর রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্ক প্রাঙ্গণে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে আঞ্জুমান মফিদুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে তার গোসল সম্পন্ন করা হয়।

জানাজার আগে বাবার রুহের মাগফিরাত ও বেহেশত কামনায় দোয়া চান মরহুমের ছেলে ও যমুনা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীম ইসলাম। জানাজায় অংশ নেয়ার জন্য সব মুসল্লির প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতা জানান।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে (সাবেক অ্যাপোলো) নুরুল ইসলাম বাবুল সোমবার বিকেলে ৪টার দিকে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও তিন মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার স্ত্রী বর্তমান জাতীয় সংসদের এমপি সালমা ইসলাম। ছেলে শামীম ইসলাম যমুনা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, তার তিন মেয়ে- রোজালিন ইসলাম, মনিকা ইসলাম এবং সোনিয়া ইসলাম যমুনা গ্রুপের পরিচালক।

তার মৃত্যুতে দেশের শিল্প খাতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

গত ১৪ জুন নুরুল ইসলাম বাবুলের করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। ওই দিনই তাকে এভার কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর থেকে তিনি সেখানে চিকিৎসাধীন ছিলেন। করোনায় তার কিডনি ক্ষতিগ্রস্ত হয় বলে জানা গেছে।

তার চিকিৎসায় এভারকেয়ারের চিকিৎসক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মাহবুদের নেতৃত্ব ১০ সদস্য বিশিষ্ট মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। এছাড়া চীনের ৪ জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এবং সিঙ্গাপুরের মাউন্ড এলিজাবেথ হাসপাতালের ২ জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে পরামর্শ দিয়েছেন।

যমুনা গ্রুপ বাংলাদেশের বৃহৎ শিল্পগ্রুপ। ১৯৭৪ সালে নুরুল ইসলাম বাবুল যমুনা গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেন। মেধা, দক্ষতা, পরিশ্রম ও সাহসিকতার মাধ্যমে একে একে শিল্প এবং সেবা খাতে তিনি গড়ে তোলেন ৩৮টি প্রতিষ্ঠান।

বস্ত্র, রাসায়নিক, চামড়া, মোটর সাইকেল, ইলেকট্রনিক্স, বেভারেজ, টয়লেট্রিজ উৎপাদন করছে এই শিল্পগ্রুপ।

যমুনা ফিউচার পার্ক, নির্মাণাধীন মেরিয়টস হোটেলসহ দৈনিক যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশনের প্রতিষ্ঠাতাও নুরুল ইসলাম বাবুল।

সূত্র : বাসস


আরো সংবাদ