২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ডেকে নিয়ে ২ ব্যবসায়ীকে গলাকেটে হত্যার চেষ্টা, টাকা লুট

প্রতীকী ছবি - সংগৃহীত

দিনের বেলা দুই ব্যবসায়ীকে ঘরের মধ্যে আটকে রেখে হাত-পা, মুখ বেঁধে মারপিট করে ধারালো অস্ত্রের মুখে প্রায় পৌনে দুই লাখ টাকা লুট করে নেয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় সংঘবদ্ধ চক্র তাদেরকে গলাকেটে হত্যার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশটায় নওগাঁর রাণীনগর উপজেলা সদরের মাছ বাজার এলাকায়।

এই ঘটনার পর পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে রশি, চাকু ও একটি মদের বোতল উদ্ধার করেছে। এদিকে এ ঘটনায় অভিযুক্ত মূলহোতা এবাদুলের স্ত্রী জলি বিবিকে (৩৫) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানা হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ।

বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার সুখান গাড়ী গ্রামের রইচ উদ্দীনের ছেলে ব্যবসায়ী মামুন হোসেন (৩২) জানান, দীর্ঘদিন ধরে তিনি পুরাতন মোটরসাইকেল কেনা-বেচার ব্যবসা করে থাকেন। এরই সূত্র ধরে নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার ঝাল ঘড়িয়া গ্রামের জুয়েল হোসেনের (৩৩) সাথে পরিচয় হয়। সেই সূত্র মোতাবেক বুধবার সন্ধ্যায় জুয়েল তাকে মোবাইল ফোনে জানান- একটি মোটরসাইকেল বিক্রি হবে।

এমন খবরের প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার সকালে মামুন এবং বগুড়ার কাহালু উপজেলার স্থলপাড়া রামুজি গ্রামের সোলাইমান আলীর ছেলে আব্দুল আলিমকে (৪০) সাথে নিয়ে রাণীনগরে আসেন। এ সময় উপজেলা সদরের মাছ বাজার এলাকার এবাদুলের মোটরসাইকেল বিক্রি হবে জানালে এবাদুলের নেতৃত্বে ৪-৫ জনের সংঘবদ্ধ চক্র প্রথমে জুয়েলকে ডেকে নিয়ে এবাদুলের ভাড়া বাসায় আটকে রাখে।

এরপর মামুনকে ডেকে নিয়ে তার হাত-পা, মুখ বেঁধে ধারালো অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে মারপিট করে প্রায় এক লক্ষ ৭৫ হাজার টাকা লুট করে নেয়। এরপর মামুনের সাথে থাকা আলিমকে ডেকে নিয়ে তাকেও হাত-পা, বেঁধে মারপিট করে।
এসময় ধারালো চাকু দিয়ে গলাকেটে হত্যা চেষ্টা করা হয় বলে মামুন দাবি করেছেন। একপর্যায়ে ভূক্তভোগী দুই ব্যবসায়ীর চিৎকারে স্থানীয় লোকজন ছুটে আসলে সংঘবদ্ধ চক্রের সবাই পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে রাণীনগর হাসপাতালে ভর্তি করে। ব্যবসায়ী আলিমের মুখে, গলায় ও হাতে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে রশি, ধারালো চাকু ও হাফ লিটার একটি বাংলা মদের বোতল উদ্ধার করেছে। এ সময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য অভিযুক্ত এবাদুলের স্ত্রী জলি বিবিকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

স্থানীয়রা জানান, ঘটনার মূলহোতা এবাদুল আত্রাই উপজেলার ভোপাড়া গ্রামের জয়েন আলীর ছেলে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে রাণীনগরে বাসা ভাড়া নিয়ে মোটরসাইকেল কেনা-বেচার ব্যবসা করেন।

এ ব্যাপারে রাণীনগর থানার ওসি এএসএম সিদ্দিকুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ ঘটনায় এবাদুলসহ সংঘবদ্ধ চক্র পালিয়ে গেলেও এবাদুলের স্ত্রী জলিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে রশি, ধারালো চাকু ও হাফ লিটার বাংলা মদের একটি বোতল উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।


আরো সংবাদ




gebze evden eve nakliyat Paykasa buy Instagram likes Paykwik Hesaplı Krediler Hızlı Krediler paykwik bozdurma tubidy