২৩ জুলাই ২০১৮

‘এবার তৃতীয় হয়েই বিশ্বকাপ শেষ করতে চাই আমরা’

ফুটবল
রবার্তো মার্টিনেজ - ছবি: সংগৃহীত

৩২ বছর পর বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠে বেলজিয়াম। কিন্তু ফ্রান্সের কাছে ১-০ গোলে হেরে চলতি বিশ্বকাপের সেমির গন্ডি আর পেরোতে পারেনি বেলজিয়াম। তাই তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচ খেলতে হবে বেলজিয়ামকে। সেখানে তাদের প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড। আগামী ১৪ জুলাই সেন্ট পিটার্সবার্গে তৃতীয় স্থান নির্ধারনী ম্যাচে ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হবে বেলজিয়াম। ঐ ম্যাচ জিতে এবারের আসরে তৃতীয় হতে চান বেলজিয়ামের কোচ রবার্তো মার্টিনেজ। তিনি বলেন, ‘আমাদের স্বপ্ন ছিলো বিশ্বকাপ ফাইনাল খেলা। কিন্তু সেটি এখন আর সম্ভব না। তবে এখন আমাদের ভালোভাবে বিশ্বকাপ শেষ করতে হবে। আমাদের সামনে তৃতীয় হবার দারুন সুযোগ। আমরা তৃতীয়স্থান নির্ধারনী ম্যাচে জিততে চাই।’

চলতি বিশ্বকাপে চমক জাগানিয়া এক দল বেলজিয়াম। ফিফা র‌্যাংকিং-এ তৃতীয় স্থানে থাকলেও বিশ্বকাপ শুরুর আগে ফেভারিটের তালিকায় ছিলো না বেলজিয়াম। তবে বিশ্বকাপে খেলতে নেমেই চমক দেখিয়েছে তারা। গ্রুপ পর্বে সবগুলো ম্যাচ জিতে শতভাগ সাফল্য নিয়ে শেষ ষোলোতে উঠে তারা। গ্রুপ পর্বে পানামা, তিউনিশিয়া ও ইংল্যান্ডকে হারায় বেলজিয়াম।

শেষ ষোলোতেও অদম্য ছিলো বেলজিয়াম। পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলকে হারের লজ্জা দিয়ে ৩২ বছর পর বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠে তারা। সেখানে ফ্রান্সের বিপক্ষে সমানতালে লড়েছে বেলজিয়াম। কিন্তু ম্যাচের ৫১ মিনিটে ফ্রান্সের ডিফেন্ডার স্যামুয়েল উমিতিতির করা একমাত্র গোলে ম্যাচটি হেরে যায় বেলজিয়াম। সেখানেই ফাইনাল খেলার স্বপ্ন ভঙ্গ হয় বেলজিয়ামের।

ফাইনালে উঠতে না পারলেও তৃতীয় স্থান নিয়ে বিশ্বকাপ শেষ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন বেলজিয়ামের কোচ মার্টিনেজ। তিনি বলেন, ‘সেমিফাইনালের স্মৃতি ভুলে আমাদের ঘুড়ে দাঁড়াতে হবে। যাতে করে আমরা এবারের বিশ্বকাপে তৃতীয় হতে পারি। এটি করতে পারলে বিশ্বকাপ ইতিহাসে বেলজিয়ামের সেরা সাফল্য হবে। কারন ১৯৮৬ সালে আমরা প্রথম সেমিফাইনালে উঠেছিলাম। ঐবারও ফাইনালে উঠতে ব্যর্থ হয় দল। শেষ মেষ তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচেও আমরা হেরে যাই। তবে এবার তৃতীয় হয়েই বিশ্বকাপ শেষ করতে চাই আমরা।’

ফ্রান্সের কাছে হেরে পুরো দল হতাশ বলে জানালেন মার্টিনেজ। তবে দলের খেলোয়াড়দের চাঙ্গা রাখার পণ করলেন তিনি, ‘আমরা এখন হতাশার মধ্যেই আছি। এমনটা স্বাভাবিক। কিন্তু আমাদের সামনে আরও একটি ম্যাচ আছে। বিশ্বকাপ বলে এই ম্যাচের গুরুত্ব অনেক বেশি। আমরা এ ম্যাচটি জিততে চাই। ছেলেদের এটিই বুঝিয়েছি। তৃতীয়স্থান নির্ধারনী ম্যাচে জিততে পারলে ভালোভাবে বিশ্বকাপ শেষ করতে পারবো আমরা। তখন হতাশা কিছুটা হলেও কেটে যাবে।’

আরো পড়ুন :
গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই দ্বিতীয় রাউন্ডে বেলজিয়াম
নয়া দিগন্ত অনলাইন, ২৯ জুন ২০১৮
টপ ফেবারিট দল হিসেবে তাদের ভাবা হচ্ছে টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই। প্রথম রাউন্ডের শেষে অন্তত সেই সুনাম অক্ষুণ্ন রাখল বেলজিয়াম। বৃহস্পতিবার গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে সাবেক চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ডকে ১-০ গোলে হারিয়ে দলটি গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবেই উঠলো দ্বিতীয় রাউন্ডে।

কালিনিনগ্রাদে বেলজিয়াম ও ইংল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাচটি যেন নিজেদের বেঞ্চের শক্তি পরীক্ষার ভালো একটা সুযোগ হিসেবে নিয়েছে দু’দলই। ইংল্যান্ড তাদের নিয়মিত একাদেশের নয় জন খেলোয়াড়কে বিশ্রামে রেখেছে। বেলজিয়ামও দলের সেরা সেরা তারকাদের বসিয়ে রেখে একাদশ নির্বাচন করে। এ কারণে নিয়মরক্ষার এই ম্যাচে দু’দলের খেলা ছিল অনেকটাই শরীর বাঁচানোর।

যে কারণে ম্যাচের প্রথমার্ধে কেউ কারও জালে বল জড়াতে পারেনি। যেন জেতার আগ্রহও কম ছিলো দলগুলোর। তবে দ্বিতীয়ার্ধে একটি গোল করে ইংল্যান্ডকে ১-০ ব্যবধানে হারিয়েছে খর্বশক্তির দল বেলজিয়াম।

৫১ মিনিটে বেলজিয়ামের হয়ে জয়সূচক গোলটি করেন আদনান জানুজাই। তিন ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে বক্সের ডান প্রান্ত থেকে তার নেয়া বুলেট গতির এই শট জড়িয়ে যায় বাম কোন দিয়ে।

প্রথমার্ধে উভয় দলই বেশ কয়েকটি আক্রমণ করেছিলো, যদিও ফলাফল ছিলো শূন্য। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ইংল্যান্ডের আক্রমণ। ৪৮তম মিনিটেই মার্কাস রাশফোর্ডের ডান পায়ের শট মিস হয়ে যায়। এর তিন মিনিট পরই গোল করে বেলজিয়াম।

গোল করার পর বেলজিয়াম যেন আর শক্তিশালী হয়ে ওঠে। বাতসুয়াই, ফেল্লাইনি এবং জানুজাইয়ের সম্মিলিত আক্রমণ ঠেকাতেই ব্যাস্ত ইংল্যান্ডের রক্ষণ। তবে ৬৬ মিনিটে ইংল্যান্ডের মার্কাস রাশফোর্ড দারুণ একটি সুযোগ পেয়েছিলেন। তার ডান পায়ের শট ঝাঁপিয়ে পড়ে রক্ষা করেন বেলজিয়াম গোলরক্ষক কুর্তোস। এক মিনিট পরই ফ্যাবিয়ান ডেলফের বাম পায়ের শট মিস হয়ে যায়। ৮১ মিনিটে আবারও সুযোগ পেয়ছিলেন মার্কাস রাশফোর্ড। কিন্তু এবারও তার শট কাজে লাগেনি।


আরো সংবাদ