০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ৪ জিলহজ ১৪৪৩
`

৩ দিন ধরে ১৬ হাজারের নিচে করোনা শনাক্ত

-

গত তিন দিন ধরে দেশব্যাপী করোনা শনাক্ত ১৬ হাজারের নিচে। এর আগের দিন শনাক্ত ১৬ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছিল। ওমিক্রন শুরুর পর থেকে এক দিনে শনাক্ত ১৬ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছিল। গতকাল সারা দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১৫ জনের।
গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত এর আগের ২৪ ঘণ্টায় এক দিনে নতুন করে করোনাভাইরাসে শনাক্ত হয়েছেন ১৫ হাজার ৮০৭ জন। আগের দিন শনাক্ত হয়েছিলেন ১৫ হাজার ৫২৭ জন এবং মারা গেছেন ১৭ জন। আগের দিনের তুলনায় শনাক্ত কিছুটা বেড়েছে।
একই সময়ে দেশের ৮৬৫টি পরীক্ষাগারে মোট ৪৯ হাজার ৫৭৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয় এবং নমুনা পরীক্ষার সাপেক্ষে গতকাল শনাক্তের হার ছিল ৩১.৯৮ শতাংশ। আগের দিন বুধবার শনাক্তের হার ছিল ৩১.৬৪ শতাংশ।
স্বাস্থ্য অধিদফতর বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় যে ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে; এদের ১০ জন ছিলেন নারী ও পাঁচজন পুরুষ। মৃত ১৫ জনের মধ্যে ১০ জনের বয়সই ৫১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে। ২০২০ সালের ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনার শনাক্তের পর থেকে গতকাল পর্যন্ত ভাইরাসটিতে শনাক্ত হয়েছেন ১৭ লাখ ৪৭ হাজার ৩৩১ জন। সংক্রমিত ব্যক্তিদের মধ্যে মারা গেছেন ২৮ হাজার ২৮৮ জন। ২০২০ সালের ৮ মার্চের পর থেকে সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৬১ হাজার ৪৩ জন।
করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের শীর্ষ সংক্রমণ ছিল গত বছরের জুলাই থেকে আগস্ট পর্যন্ত। এর পর থেকে সংক্রমণ কমতির দিকে ছিল। সর্বশেষ গত বছরের গত ডিসেম্বরের শেষ দিকে দৈনিক করোনা শনাক্ত ৩ শতাংশের নিচেই ছিল। তবে ডিসেম্বরের শেষ দিকে এসে করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকে। জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে যেখানে দৈনিক করোনা শনাক্ত পাঁচ শ’র নিচে ছিল, সেখানে গত চার দিন ধরে ১৫ হাজারের ঘর অতিক্রম করেছে। সামনের দিনগুলোতে আরো বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন চিকিৎসকরা। দেশে এখন পর্যন্ত সারা দেশে এক কোটি ২৩ লাখ ১০ হাজার ৬৭৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৮৩ লাখ ৮৩ হাজার ৯৮৭টি আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৩৯ লাখ ২৬ হাজার ৬৯০টি।
গতকাল সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় যে ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে করোনায়; এদের মধ্যে সর্বোচ্চ আটজন ঢাকা বিভাগের। বাকিদের মধ্যে চট্টগ্রাম বিভাগের তিনজন, রাজশাহী বিভাগের দু’জন আর বরিশাল ও রংপুর বিভাগে মারা গেছেন একজন করে। এদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে আটজনের। বাকি সাতজনের মৃত্যু হয়েছে বেসরকারি হাসপাতালে।
রাজশাহীতে সংক্রমণ ৬০ শতাংশের উপরে
রাজশাহী ব্যুরো জানায়, রাজশাহীতে করোনা সংক্রমণ আরো বেড়েছে। সর্বশেষ নমুনা পরীক্ষার অনুপাতে রাজশাহী জেলায় করোনা সংক্রমণের হার ৬০ দশমিক ৩৯ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। এক দিন আগেই এ হার ছিল ৫৮ দশমিক ৬০ শতাংশ। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আর এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। তিনি রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী গণমাধ্যমকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় রামেক হাসপাতালে করোনা সংক্রমণে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। তিনি রাজশাহী জেলার বাসিন্দা। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়।
এ দিকে বুধবার রামেক হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে ৯০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ৪৫ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। আর রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে ৪৬৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে ২৪৬ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। অর্থাৎ ৫৫৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৯১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এতে রাজশাহী জেলার করোনা সংক্রমণের হার বেড়ে ৬০ দশমিক ৩৯ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।
চট্টগ্রামে আরো ১১২১ জনের শরীরে করোনা
চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা কেড়ে নিলো আরো দুইজনের প্রাণ। তিন হাজার ১৪২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে এক হাজার ১২১ জনের শরীরের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর আগের দিন শনাক্ত ছিল এক হাজা ৪৫৫ জন, মারা যান দুইজন। গতকাল বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।


আরো সংবাদ


premium cement