১৯ জুলাই ২০১৯

সেরা বিশ্বকাপ, রাশিয়া বিশ্বকাপ!

বিশ্বকাপ
ফাইনালে গোল করার পর পগবার উল্লাস - সংগৃহীত

বিশ্বকাপ ২০১৮ শেষ হওয়ার আগে থেকেই কথাটা মুখে মুখে ঘুরছিল- এটাই কি এ যাবৎকালের সেরা বিশ্বকাপ?

প্রথম দিনের খেলা স্বাগতিক রাশিয়া সৌদি আরবকে ৫-০ গোলে হারিয়ে দিলো, সেদিন থেকেই এ টুর্নামেন্টে নাটকীয়তা আর উত্তেজনার কোনো অভাব ছিল না। গ্রুপ পর্ব, নকআউট পর্ব এমনকি ফাইনালেও তেমন খেলাই দেখা গেছে - যেমন খেলা ফুটবলভক্তরা দেখতে চান।

আজকাল লোকে প্রচুর ফুটবল খেলা দেখেন টিভিতে - বেশিরভাগই ক্লাব ফুটবল। কিন্তু বিশ্বকাপ আসে প্রতি চার বছরে একবার। তাই তার ভেতরে এখনও একটা অন্যরকম আকর্ষণ এবং সাংস্কৃতিক তাৎপর্য রয়ে গেছে যা কোথাও পাওয়া যায় না।

এবারের বিশ্বকাপে কিভাবে এই নাটকীয়তা তৈরি হয়েছে

ফুটবল লিগের উত্তেজনা চলে সারা বছর ধরে ধিকিধিকি করে। বিশ্বকাপ অন্যরকম। এখানে উত্তেজনা তৈরি করে দপ করে জ্বলে ওঠার মতো। ২০১৮-তেও তাই হয়েছে।

টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় দিনেই স্পেন আর পর্তুগালের ৩-৩ গোলে ড্র হওয়া খেলাটি, আর রোনালদোর অসাধারণ ফ্রিকিক - সেই খেলাটিকে ক্লাসিকের স্বীকৃতি এনে দেয়।

কিন্তু শুধু ওই খেলাটিই নয়, সেদিনের অন্য দুটি খেলাও নাটকীয়তায় কম যায়নি।

উরুগুয়ে ৮৯ মিনিটে গোল করে জিতে যায় মিসরের বিরুদ্ধে, ইরান হারায় মরক্কোকে ৯৫ মিনিটে গোল করে।

সবমিলিয়ে এবারের বিশ্বকাপে নয়টি ম্যাচে জয়সূচক গোল হয়েছে খেলার শেষ মিনিটে বা ইনজুরি টাইমে।

এ ছাড়াও শেষ মিনিটে বা ইনজুরি টাইমের গোলে খেলা ড্র হয়ে গেছে এমন ম্যাচ ছিল চারটি। এর আগের কোনো বিশ্বকাপে এমনটা হয়নি।

বিশ্বকাপে চমক থাকতে হবে, তবে খুব বেশি নয়

ফেভারিট দলগুলো বিশ্বকাপে দর্শক টানে। তারা সবাই যদি আগেভাগেই হেরে গিয়ে বিদায় নেয়, তাহলে বোধ হয় টুর্নামেন্টের আকর্ষণ কমে যায়। এবার গ্রুপ পর্বে বিদায় নিয়েছে জার্মানি। আর নকআউট পর্বে বিদায় নিয়েছে স্পেন, ব্রাজিল আর আর্জেন্টিনা।

বিশ্বকাপকে আকর্ষণীয় করতে চাই সুপারস্টার

স্পেনের বিরুদ্ধে রোনালদোর হ্যাটট্রিক ছিল দারুণ, কিন্তু তিনি একাই পর্তুগালকে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন করবেন, তেমনটা হয়নি।

মেসিও আর্জেন্টিনাকে এগিয়ে নিতে পারেননি।

তাদের ক্লাবের পারফরমেন্স বিবেচনা করলে ভেবে অবাক হতে হয় যে তারা দু'জনের কেউই বিশ্বকাপে নকআউট পর্বের ম্যাচে কোনো গোল করতে পারেননি।

আশা করা হয়েছিল, এবারের বিশ্বকাপে সুপারস্টার হবেন নেইমার। কিন্তু তিনি এবং এডিন হ্যাজার্ড সবচেয়ে বেশি ফাউলের শিকার হয়েছেন - যথাক্রমে ২৬ এবং ২৭ বার।

নেইমারের ক্ষেত্রে বরং অনেকের চোখে দৃষ্টিকটু লেগেছে আঘাত পেয়ে পড়ে গিয়ে তার নাটক করা।

বরং এবারের বিশ্বকাপে তারকা হিসেবে বেরিয়ে এসেছেন কিলিয়ান এমবাপে। পেলের পর তিনি হলের প্রথম টিনএজার যিনি বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচে গোল করলেন।

দেখুন:

আরো সংবাদ

খালেদা জিয়াসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন ২৬ আগস্ট অসুস্থ রফিকুল ইসলাম মিয়াকে সিঙ্গাপুর নেয়া হয়েছে ইউএসএইড কর্মকর্তা জুলহাস-তনয় হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ২৯ আগস্ট রোহিঙ্গা সঙ্কট নিরসনে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালাচ্ছে জাতিসঙ্ঘ : গুতেরেস তুরস্কে বাস উল্টে বাংলাদেশীসহ ১৭ জনের প্রাণহানি বন্ড সংক্রান্ত ভুল বোঝাবুঝি দূর করতে যৌথ কমিটির দাবি বিজিএমইএর ইসলামপন্থীরা আটকে আছে নিজেদের সমস্যায় দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে : প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ ফেবারিট টাইগারদের শ্রীলঙ্কা সফর নিয়ে সৈকত মুশফিকের টার্গেট ২০২৩ বিশ^কাপ আফগানিস্তান যেতে আপত্তি

সকল




gebze evden eve nakliyat instagram takipçi hilesi