০৩ অক্টোবর ২০২৩, ১৮ আশ্বিন ১৪৩০, ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৫ হিজরি
`

আগডুম-বাগডুম : কবিতা

-


বৃষ্টির ছড়া
নজরুল ইসলাম শান্তু

আয় বৃষ্টি টাপুর টুপুর
ফসল ফলা মাঠে
টিনের চালে গাছের ডালে
কাজল দীঘির ঘাটে।

আয় বৃষ্টি টাপুর টুপুর
শান্ত নদীর বাঁকে
হৃদয় কাড়া শব্দ গেঁথে
কালো মেঘের ডাকে।

আয় বৃষ্টি টাপুর টুপুর
পল্লী শহরজুড়ে
স্নিগ্ধ শীতল পরিবেশে
পাগল করা সুরে।

আয় বৃষ্টি টাপুর টুপুর
রাখাল গরুর পালে
দুষ্টু খুকির পায়ের নূপুর
মুচকি হাসা গালে।

আয় বৃষ্টি টাপুর টুপুর
জলদি করে আয়
তোর পানে যে রয় তাকিয়ে
সবুজ পল্লী মা’য়।

 


কাচের ন্যায় জীবন
মাহবুব-এ-খোদা

শখের বশে কিনে ছিলুম একটি জলের পাত্র,
এক্কেবারে কাচের ওপর নকশি করা গাত্র।
দুধ শরবত জল খেয়েছি মাঝেমধ্যে ঘোলও
দিন সপ্তাহ মাস কাটিয়ে বয়স বছর ষোলো!

তার সাথে বেশ সখ্য আমার ষোলো কলায় পূর্ণ,
হায় বিধিবাম আমার হাতে ভেঙেই হলো চূর্ণ!
ফেলতে গিয়ে টুকরোগুলো ভার হয়েছে মাথা,
সে ও আমার একই জীবন একই-সূত্রে-গাঁথা!

ভাঙা পাত্র অপাঙ্ক্তেয় কেউ রাখে না ঘরে,
তেমনি মানুষ ঘর ছাড়া হয় দম ফুরানোর পরে।
কাচের কণায় চেয়ে দেখি স্বার্থপরের দ্রুতি,
এই বুঝি হয় মহৎ জীবন শুনি যাদের শ্রুতি।

 


রকি গৌড়ির দু’টি ছড়া
ভুঁঁড়িওয়ালা ভূতটা

ভুঁড়িওয়ালা ভূতটা
হেঁটে যায়, হেঁটে যায়,
ছন্দটা তালে-তাল
পেট তার নেচে যায়।
ভয় পেয়ে প্রজাপতি
পাখি সব উড়ে যায়।

ভুঁড়িওয়ালা ভূতটা
হেসে যায়, হেসে যায়,
লোভে ভরা চোখ তার
জ্বলে যায়, জ্বলে যায়।
ছন্দটা তালে-তাল,
মুখ তার খেয়ে যায়।
উপোষ ভূতেরা সব,
কেঁদে যায়, কেঁদে যায়।


ছোট্ট খোকা

আমি এক ছোট্ট খোকা,
দাঁত খেয়েছে দুষ্টু পোকা।
তবু আমি হাসতে জানি,
বাবা-মার কথা শুনি।
জেনো আমি নয়তো বোকা,
বলে আমায় ছোট্ট খোকা।
আমি হাত ধুতে জানি,
পড়াশোনা বন্ধু মানি।

 


দোলা লাগে প্রাণে
আহসান হাবিব সিরাজী

ফুলবাগানটা ভরে গেছে
নানা রকম ফুলে,
প্রজাপতি উড়ছে দেখো
ডানা দুলে দুলে।

ফুলের বুকে বসে তারা
নাড়তে থাকে ডানা,
কত সুন্দর সৃষ্টি রবের
নেইতো দেখতে মানা।

ফুলে ফলে পাখির গানে
পৃথিবীটা ভরা,
প্রভু তোমার নিপুণ হাতে
সকল কিছুই গড়া।

সবুজ-শ্যামল তৃণভূমি
পাখির গানে গানে,
নামটা তোমার শুনলে প্রভু
দোলা লাগে প্রাণে।

 


ঝিঁঝিঁপোকা
ইরফান হোসাইন তানভীর

ঝিঁঝিঁপোকা নূপুর বাজায়
কাঁঠালগাছের শাখে,
একটা ঝিঁঝিঁ এনে দিতে
বলছে খোকা মা’কে,

মা বলেছে ঝিঁঝিঁপোকা
যাবে না তো ধরা,
মন মানে না খোকন সোনার
পড়বে না তাই পড়া।

ঝিঁঝিঁপোকা সাথে নিয়ে
করবে খোকন খেলা,
ভারি মজা হবে খোকার
কাটবে মুধুর বেলা,

ঝিঁঝিঁপোকা খুঁজে পেতে
উঠছে খোকা ডালে,
ঝিঁঝিঁপোকার শব্দে খোকা
দুলছে তালে তালে।

খোকন সোনা ঝিঁঝিঁপোকা
পেলে অবশেষে,
ভারি মজা হবে তখন
বলছে হেসে হেসে।

 


আমার স্বাধীনতা
শাহীন খান

আমার স্বাধীনতা ঝিঁঝিঁ ডাকা দুপুর
খুকুর সোনার নূপুর
ফুলপাখি সব, খুশি উৎসব
নাকের নোলক ফুপুর।

আমার স্বাধীনতা কাব্য ছড়া গীতি
শহীদ ভায়ার স্মৃতি
চাঁদ আর তারা, ঝরনাধারা
স্বপ্নমাখা তিথি।

আমার স্বাধীনতা মুজিব আশা
নিটোল ভালোবাসা
বুকের প্রদীপ, স্বর্ণালি দ্বীপ
সুখটা বুকে ঠাসা।

আমার স্বাধীনতা এত্ত মজার খেলা
শ্রাবণ মাসের ভেলা
শাপলা শালুক, হৃদয় তালুক
হাজার বইয়ের মেলা।

 


আরো সংবাদ



premium cement
বিশ্বকাপে সেরা তিন ব্যাটারের একজন হবেন কোহলি : ডি ভিলিয়ার্স মঙ্গলবার শেষ হচ্ছে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচ বাংলাদেশে বিপুল খেলাপি ঋণ আমজনতার জীবনে কী প্রভাব ফেলছে? বিশ্বকাপের উদ্বোধনী মাতাবেন যারা শাহজাহান কামাল-উকিল সাত্তারের আসন শূন্য ঘোষণা বাংলাদেশের সাথে সাংস্কৃতিক বন্ধন দৃঢ় করতে সৌদির আগ্রহ প্রকাশ প্রস্তুতি ম্যাচে ইংল্যান্ডের কাছে বাংলাদেশের হার ঈদে মিলাদুন্নবীর আলোচনার সময় মৃত্যুর কোলে ঢলে পরলেন শফিজউদ্দিন মাস্টার লাকসামে ট্রেনে কাটা পড়ে স্কুলশিক্ষক নিহত সম্রাটের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি ১৫ জানুয়ারি সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করুন : বিজিবি মহাপরিচালক

সকল