২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩০, ১৪ জিলহজ ১৪৪৫
`

আগডুম-বাগডুম : কবিতা

-

ফাগুনের রঙ
জাহানারা নাসরিন

সাজ সাজ সবুজাভ তরুবীথি বন
কোকিলের কুহু ডাকে ঘরছাড়া মন।
সরিষার খেতে চলে মধু উৎসব
মৌমাছি, ভ্রমরের সে কী কলরব!

বিমোহিত সৌরভে ফোটে কত ফুল
গহনার মতো সাজে আমের মুকুল।
দখিনের সমীরণে শিহরিত মন
বাঁশবনে শনশনে চলে আলাপন।

মহাসুখে প্রজাপতি রেণু মাখে পায়
সুমধুর কত সুরে পাখি গেয়ে যায়
মাঠের সবুজ লাগে কী যে মায়াময়!
পলাশের লালে মন আলোড়িত হয়।

রাখাল বাজায় বাঁশি বটের ছায়ায়
ঝিরঝির ফিরফির বায়ু বয়ে যায়।
প্রকৃতি কোল জুড়ে সাজ সাজ বর
মেঘহীন আকাশটা নীলের চাদর।

শাখে শাখে জেগে ওঠে কচি কিশলয়
ঝিরিঝিরি সুর তুলে কত কথা কয়!
বর্ণিল ফুলে ফুলে সুবাসিত দেশ
ফাগুনের রঙ মেখে সুশোভিত বেশ।

 

 

সাদা রঙের ঘাস
মাহমুদুল হাসান মুন্না

গাছের পাতা সবুজ সবুজ
ঘাসের রঙও তায়,
দুষ্টু খোকন রঙ মেখে ঘাস
সাদা করতে চায়।

কোথায় পাবে রঙ তুলি আর
কোথায় পাবে রঙ,
নিরাশ হয়ে খোকন মনে
বাজিয়ে দুখের সঙ।

হঠাৎ মাথায় বুদ্ধি এলো
বুদ্ধি সুপারহিট,
খোকন হেসে ঘাসের ওপর
রাখল দুটি ইট।

দিন কয়েকের পরে খোকন
দেখলো ইটের তল,
ঘাসগুলো আজ সাদা সাদা
দারুণ ফলাফল !

কেমন করে এমন হলো
ভাবছো বুঝি হায়?
আলো বিহীন ঘাসগুলো সব
এমন হয়ে যায়।

 


ফাগুন এলো
শাহানাজ শিউলী

ওই যে দেখো ফাগুন এলো
লাল হয়েছে পলাশ বন,
এলোকেশী উড়ছে হাওয়ায়
পাগল করে উদাস মন।
কচি কচি সবুজ পাতায়
চুয়ে চুয়ে পড়ে তেল,
আম কাঁঠালের ফলের বাহার
আরো সুবাস পাকা বেল।
অগ্নিঝরা কৃষ্ণচূড়া
ঘোমটা টানে বেনারসি,
ফাগুন মাসে ঝরা পাতা
আম্রমুকুল রাশি রাশি।

শিমুল ফোটে পলাশ ফোটে
মন ভুুলে যায় কোকিল গানে,
পুবাল হাওয়া থমকে দাঁড়ায়
শিউলি ঝরে অভিমানে।
ফুল-ফসলের রূপ- বাহারি
নতুন পাতা গাছের ডালে,
ঝরা পাতা ঝড়ো হাওয়ায়
নৃত্য করে তালে তালে।
রাষ্ট্রভাষা বাংলা নিয়ে
ফাগুন এলো আমার দ্বারে
রক্তঝরা ফাগুনকে তাই
সালাম জানাই বারে বারে।

 


স্মৃতি
মো. রুহুল আমিন

কিশোর বেলার মধুর স্মৃতি
পড়ছে মনে কার,
দল বেঁধে সব বাঁশের সাঁকো
হতাম কত পার।

কেউ বা দিতো সাঁকো থেকে
আচম্বিতে ঝাঁপ,
কারোর গায়ে রঙিন পোশাক
ধরতো কত ভাব।

বলতো জোরে নবাব পোলা
বকা দিতো তার,
হইহুল্লোড় উচ্ছ্বাস নিয়ে
কাদা ছুড়ে মার।

মাঝ খালেতে ডুব-সাঁতারে
যায় গড়িয়ে বেলা।
কলার ভেলা ভাসাই সবাই
কতই মজা খেলা।

খাল দাপিয়ে বিজয় খুশি
দুষ্ট ছেলের দল,
চোখের মণি লাল করতো
ঘোলা করে জল।

ফিরলে বাড়ি মায়ে বলতো
একি করলে হাল,
ধমক দিয়ে বলতো খোকা
আর যাবি না কাল।

 


স্বাধীনতা
জাকির শায়েরী

স্বাধীন দেশে জন্ম আমার
স্বাধীন দেশে বাস
বাংলা মায়ের বীর বাঙালি
গড়লো ইতিহাস।

স্বর্ণাক্ষরে লিখালো যারা
হৃদয় বাংলাদেশ
স্বাধীনতা স্বাধীনতায়
আমার বাংলাদেশ।

স্বাধীনতা তুমি কতো ত্যাগে
অর্জিত এই জয়
আমরা বীরের জাতি বলেই
তাই করি না ভয়।


আরো সংবাদ



premium cement
কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে পদ্মায় ডুবে যাওয়া কিশোরের লাশ ৭ ঘণ্টা পর উদ্ধার মাগুরায় ২ দলে সংঘর্ষ, নিহত-১, আহত-২০ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২১-২২ জুনের রাষ্ট্রীয় সফরসূচির আনুষ্ঠানিক ঘোষণা ভারতের মায়ের স্বপ্ন পূরণে হেলিকপ্টারে বউ নিয়ে বাড়ি ফিরলেন হোসেনপুরের রাজিব রুশ নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকা থেকে পরিবারের সাথে ১০ শিশু ফিরেছে ইউক্রেনে কুড়িগ্রামে বিপৎসীমার উপরে বইছে ১৬ নদীর পানি ‘মিয়ানমার থেকে গুলি এলে পাল্টা গুলি চালাবে বাংলাদেশ’ এ বার্তার অর্থ কী রেমিট্যান্স বাড়ায় দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ১৯.৫৩ বিলিয়ন ডলার চট্টগ্রামে ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড় ছাড়তে বিদ্যুৎ-পানি-গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্নের সিদ্ধান্ত রায়গঞ্জে দাদপুর সাহেবগঞ্জ দ্বি-মুখী উচ্চবিদ্যালয়ে ঈদ পূর্ণমিলনী ইসরাইলি কারাগারে নিহত ফিলিস্তিনি বন্দীর সংখ্যা বেড়ে ৫৪ : কমিশন

সকল