২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩০, ১৪ জিলহজ ১৪৪৫
`

চ্যাটজিপিটি দিয়ে ১০০ লেখা, বিক্রিও হচ্ছে দেদার!

চ্যাটজিপিটি দিয়ে ১০০ লেখা, বিক্রিও হচ্ছে দেদার! - ছবি : সংগৃহীত

মানুষের কাজ আরো সহজ করে তুলতে কৃত্রিম মেধার জুড়ি নেই। ওই কৃত্রিম মেধা এবার সৃজনশীলতাতেও হাত পাকিয়ে ফেলল। কৃত্রিম মেধা ব্যবহার করে একের পর এক বই লিখে ফেললেন যুবক।

আমেরিকার যুবক টিম বচার বই লেখার কাজে কৃত্রিম মেধার চ্যাটজিপিটি ব্যবহার করেছেন। গত কয়েক দিনে ১০০টি বই তিনি লিখেছেন। সব কয়েকটিই উপন্যাস। এক বছরেরও কম সময়ের মধ্যে এত বই লেখা কৃত্রিম মেধার জন্যই সম্ভব হয়েছে।

শুধু লেখাই নয়, বইগুলোর ৫০০-র বেশি কপিও ইতিমধ্যে বিক্রি হয়ে গিয়েছে। যুবক জানিয়েছেন, তার বইগুলো অন্তত ৫ হাজার শব্দের। চ্যাটজিপিটি ব্যবহার করে কল্পবিজ্ঞানের উপর একের পর এক বই লিখে গিয়েছেন তিনি। কৃত্রিম মেধা যে মানুষের সৃজনশীলতাকে ধারালো করে তোলে, এর মাধ্যমে সে কথা প্রচারও করেছেন যুবক। অন্য উঠতি লেখকদের এভাবে বই লিখতে তিনি উৎসাহ দিয়েছেন।

শুধু চ্যাটজিপিটি নয়। কৃত্রিম মেধার একাধিক টুল ওই যুবক বই লেখার কাজে ব্যবহার করেছেন। এভাবে তিনি বইয়ের বিষয়বস্তু সম্পর্কে নতুন ভাবনাচিন্তা আমদানি থেকে শুরু করে লেখার কাজ, সবই করেছেন যন্ত্রের সাহায্য নিয়ে।

যুবকের লেখা বইগুলো প্রত্যেকটিই একে অপরের সাথে কোনো না কোনোভাবে সম্পর্কযুক্ত। ফলে একে ধারাবাহিক উপন্যাসের সিরিজও বলা যায়। বইগুলো এতই জনপ্রিয়তা পেয়েছে যে হু হু করে তা বিক্রি হয়েছে। কোনো কোনো পাঠক একসাথেই সাত থেকে আটটি বই কিনেছেন। যুবকের দাবি, চ্যাটজিপিটি-ই তার সৃজনশীলতা বৃদ্ধি করেছে।
সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা


আরো সংবাদ



premium cement