১৮ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১, ১১ মহররম ১৪৪৬
`

কোকাকোলার বিজ্ঞাপন : নির্মাতা অমিকে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম

কাজল আরেফিন অমি - ছবি : সংগৃহীত

ব্যাচেলর পয়েন্ট খ্যাত নির্মাতা কাজল আরেফিন অমিকে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে ‘সাইবার কমিউনিটি’ নামে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের একটি পেজ। কোমল পানীয় কোকাকোলার বিজ্ঞাপন নিয়ে দেশজুড়ে বিতর্কের মাঝেই এ আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (১১ জুন) তারা এ আল্টিমেটাম দেয়।

সাইবার কমিউনিটির ফেসবুক পোস্টে অমির উদ্দেশে লেখা হয়, বিজ্ঞাপন নিয়ে আপনি বলছেন যে এ বিষয়ে জানেন না। ওকে, সাময়িকভাবে মেনে নিলাম। জীবন (অভিনেতা শরাফ আহমেদ জীবন) বলল, পেশাগত দিক থেকে করেছে, ব্যক্তিগতভাবে সে কোকাকোলা বিষয়ে অবগত না। বিষয়টা এমন হলো- আমি গরুর গোশত খাই না, ঝোল খাই।

সেখানে আরো বলা হয়েছে, ঈদে অমির নির্মিত যে নাটক ‘ফিমেল ৪’ আসছে, তাতে যদি অভিনেতা জীবন, শিমুল (অভিনেতা শিশুল শর্মা) প্রমুখকে দেখা যায় তবে কোনো প্ল্যাটফর্মে এই নাটক চলতে দেয়া হবে না।

‘ফিমেল ৪’ সব জায়গা থেকে মুছে ফেলার ওপেন চ্যালেঞ্জ দেয়া হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে। এ বিষয়ে সবাইকে নিয়ে ফেসবুক লাইভ করে সমাধান দেয়ার ৪৮ ঘণ্টার সময় বেঁধে দেয়া হয় অমিকে।

এ বিষয়ে ‘সাইবার কমিউনিটি’ সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেছে সাইবার ৭১ -We Hack to Protect Bangladesh নামে অপর একটি ফেসবুক পেজ। এক পোস্টের মাধ্যমে তারা এ কথা জানায়।

শরাফ আহমেদ জীবন ও শিমুল শর্মাকে নিয়মিত কাজল আরেফিন অমির নাটকে দেখা যাওয়ায় অনেককেই মনে করছেন বিজ্ঞাপনটি তিনি নির্মাণ করেছেন। তবে অমি দাবি করেন, বিজ্ঞাপণটি তার বানানো নয়।

ফেসবুকে তিনি লেখেন, ‘আমি কখনো বিজ্ঞাপন বানাই নাই। আমি নাটক, ওয়েব ফিল্ম, ওয়েব সিরিজ নিয়েই কাজ করেছি। ভবিষ্যতে সিনেমা বানাব। ধন্যবাদ।’

অপর এক পোস্টে সাইবার কমিউনিটি লেখে, ‘ব্যাচেলর পয়েন্টের ডাইরেক্টর যেহেতু অফিশিয়ালভাবে ঘোষণা দিয়েছে কোকা-কোলা রিসেন্টলি একটা বিজ্ঞাপন ভিডিও বানিয়েছে সে বিষয়ে অবগত নয়। জীবন ও শিমুল তাদের ব্যক্তিগতভাবে করছে, তাইলে আমাদের কথা হচ্ছে ব্যাচেলর পয়েন্ট সিরিজ থেকে জীবন ও শিমুলকে বয়কট করতে হবে, নয়তো আমরা বাঙালি মুসলিম ওদের বয়কট করব।’

এর আগে, অভিনেতা শরাফ আহমেদ জীবন এক পোস্টে লেখেন, ‘আমি একজন নির্মাতা এবং অভিনেতা হিসেবে সবার কাছে পরিচিত। বিগত দুই দশক ধরে আমি নির্মাণ ও অভিনয়ের সাথে জড়িত। সম্প্রতি কোকা-কোলা বাংলাদেশ আমার সাথে তাদের একটি বিজ্ঞাপন নির্মাণ এবং অভিনয় করার জন্য নিয়োগ করেছিল। আমি শুধুমাত্র তাদের দেয়া তথ্য ও উপাত্তই কাজটিতে তুলে ধরেছি। বিজ্ঞাপনটি প্রচার হওয়ার পর থেকে আমি আপনাদের (দর্শক) অনেক মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করছি এবং আপনাদের প্রতি সম্মান জানিয়ে আমি আবারো বলতে চাই কাজটি শুধুই আমার পেশাগত জীবনের একটি অংশমাত্র।’

তিনি আরো লেখেন, ‘ব্যক্তিগত জীবনে আমি সবসময় মানবাধিকারবিরোধী যেকোনো আগ্রাসনের বিপক্ষে দাঁড়িয়েছি এবং আপনাদের অনুভূতি ও মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকেছি। এখানে আমি কোথাও ইসরাইলের পক্ষ নেইনি এবং আমি কখনোই ইসরাইলের পক্ষে নই। আমার হৃদয় সবসময় ন্যায়ের পক্ষে এবং মানবতার পাশে আছে, থাকবে।’

এদিকে, ঈদ যেন ইসরাইলের মতো ইসলামবিদ্বেষী দেশের পণ্যমুক্ত হয়, সেই শুভকামনায় ফেসবুকে পোস্ট দিচ্ছেন আলেমদের অনেকে।

দেশের অন্যতম জনপ্রিয় ইসলামি আলোচক শায়েখ আহমাদুল্লাহ নিজের ফেসবুক পেজে বলেন, আপনার ঈদ হোক চিহ্নিত ইসলামবিদ্বেষীদের পণ্যমুক্ত। সাধারণ মানুষের বর্জন যে কত শক্তিশালী হাতিয়ার, তা আজ দিবালোকের মতো স্পষ্ট। ঈমানের দাবিতে এই শক্তিশালী হাতিয়ারকে সঠিক জায়গায় ব্যবহার করুন। আমাদের বর্জন হোক মজলুমের প্রতি ভালোবাসা নিবেদনের জন্য।

কোকাকোলার বিজ্ঞাপন নিয়ে মালয়েশিয়ায় বসবাসরত জনপ্রিয় বাংলাদেশী ইসলামি আলোচক মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী বলেছেন, ‘কোরবানির আগে আগে ওদের বিজ্ঞাপনটা অনেকটা পাগলকে সাঁকো না নাড়ানোর অনুরোধের মতোই হয়েছে। পণ্য বয়কটের মুভমেন্ট খানিকটা ঝিমিয়ে পড়েছিল। এবার নতুন করে আরো চাঙ্গা হবে।’

আজহারী বলেন, ‘যেকোনো আগ্রাসনের বিপক্ষে অবস্থান নিন। যার যতটুকু সম্ভব ইসলাম বিদ্বেষী ও জালিমদের পণ্য কেনা থেকে দূরে থাকুন। ধীরে ধীরে এটা অভ্যাসে পরিণত করুন। পণ্য বর্জন কতটা শক্তিশালী তা বলার অপেক্ষা রাখে না। মালয়েশিয়াতে তা স্বচক্ষে অবলোকন করছি। এখানে ম্যাকডোনাল্ড এবং স্টারবাকস অনেকটা আইসিউতে।’

তিনি আরো বলেন, ‘বর্জন এবং জনসচেতনতা চলবে একইসাথে। শুধু পণ্যই নয়, ইসলাম বিদ্বেষী সবকিছুকেই বর্জন করতে হবে। এবারের ঈদ হোক ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত, হোক চিহ্নিত সকল ইসলাম বিদ্বেষী পণ্যমুক্ত।’

টানা আট মাসেরও বেশি সময় ধরে ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজায় আগ্রাসন চালাচ্ছে ইসরাইল। প্রাণহানি হয়েছে ৩৭ হাজারেরও বেশি মানুষের। আর এই ইস্যুতে বিশ্বের অনেক দেশেই কোমলপানীয় ব্র্যান্ড কোকাকোলা বয়কটের ডাক দেয়া হচ্ছে। বয়কটের ডাক ছড়িয়ে পড়েছে উত্তর আফ্রিকার দেশ মরক্কোতেও। আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে দেশটিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় কোকাকোলা ও পেপসি ব্র্যান্ডের কোমলপানীয় বয়কটের ডাক দেয়া হয়েছে।

গাজায় চলমান যুদ্ধে ইসরাইলের প্রতি এই কোম্পানিগুলোর কথিত সমর্থনের কথা উল্লেখ করে এই ডাক দেয়া হচ্ছে।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গত ৭ অক্টোবর থেকে অবরুদ্ধ উপত্যকাটিতে ইসরাইলের অব্যাহত হামলায় অন্তত ৩৭ হাজার ১৬৪ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরো ৮৪ হাজার ৮৩২ জন।


আরো সংবাদ



premium cement