২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৯ ফাল্গুন ১৪৩০, ১১ শাবান ১৪৪৫
`
দেশে শিশুহত্যা বাড়ছে

বিষয়টি নিয়ে সবার ভাবা উচিত

-

দেশে শিশু অধিকারের বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনা না হওয়ায় পদে পদে লাঞ্ছিত হচ্ছে তারা। এর মাত্রা দিন দিনই বাড়ছে। শিশুরা দুর্বল। প্রতিরোধক্ষমতা না থাকায় তাদের ওপর নানামাত্রিক নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। ইদানীং শিশুহত্যার মত নৃশংস ঘটনা উদ্বেগজনক হারে বেড়েছে।
নিকট অতীতেও আমাদের দেশে জন্মের সময় বিপুল সংখ্যক নবজাতক মারা যেত। সন্তান জন্মদানের সময় প্রসূতির মৃত্যুর হারও ছিল উচ্চমাত্রায়। আগের সেই অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। কিন্তু সামাজিক নিষ্ঠুরতায় শিশুমৃত্যু বাড়ছে। এটি উদ্বেগের। এর প্রমাণ পাওয়া যায় বেসরকারি সংস্থার ‘মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন’ (এমজেএফ) গত মঙ্গলবার প্রকাশিত শিশু পরিস্থিতি প্রতিবেদন-২০২২-এর তথ্যে।
প্রতিবেদন অনুসারে, এক বছরে ১২টি ক্ষেত্রে ক্ষতিগ্রস্ত শিশুর সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ২৮ শতাংশ। সেগুলো হলো- যৌন নির্যাতন, ধর্ষণ, ধর্ষণচেষ্টা, সড়ক দুর্ঘটনা, অন্যান্য দুর্ঘটনা, অপহরণ, হত্যা, নির্যাতন, আত্মহত্যা, অপরাধে সংশ্লিষ্ট শিশু, নিখোঁজ ও পানিতে ডুবে মৃত্যু। এসব ক্ষেত্রে ২০২১ সালে ক্ষতিগ্রস্ত শিশুর সংখ্যা ছিল দুই হাজার ৪২৬টি। ২০২২ সালে তা বেড়ে দাঁড়ায় তিন হাজার ৯৪, অর্থাৎ এক বছরে ক্ষতিগ্রস্ত শিশুর হার বেড়েছে প্রায় ২৮ শতাংশ।
সারা দেশে শিশু অধিকার পরিস্থিতির যে অবনতি হয়েছে; তা বোঝা যায় দেশের সংবাদপত্রগুলোয় ২০২১ সালের তুলনায় ২০২২ সালে শিশুহত্যার খবর প্রায় তিনগুণ বেশি প্রকাশিত হওয়ায়। ২০২১ সালে ১৮৩টি শিশু হত্যার খবর প্রকাশিত হয়েছিল। ২০২২ সালে এ সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৪৯৭টিতে। বিদায়ী বছরে পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যুর খবর প্রকাশিত হয়েছে সবচেয়ে বেশি- এক হাজার ৪১৯টি। যা ২০২১ সালের তুলনায় তিনগুণের বেশি। এ ছাড়া গেল এক বছরে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হওয়া শিশু নিয়ে সংবাদ প্রকাশও বেড়েছে প্রায় তিনগুণ- ১৯৬টি। দেশের আটটি জাতীয় সংবাদপত্রে প্রকাশিত শিশুবিষয়ক খবর সঙ্কলিত করে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়।
আমাদের এ কথা মানতেই হবে, সংস্থাটি পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে দেশে শিশু অধিকার পরিস্থিতির সাম্প্রতিক প্রবণতা তুলে ধরেছে। এটি যে সারা দেশের শিশু অধিকার পরিস্থিতির পরিপূর্ণ চিত্র নয়; তা কোনোভাবেই অস্বীকার করার উপায় নেই। এ কথা বলার কারণ, চারপাশে শিশুদের ওপর সংঘটিত বহু ঘটনার খবর পত্র-পত্রিকায় ছাপা হয় না।
বিদায়ী বছরে ৫৬০ শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে, যা আগের বছর ২০২১ সালের তুলনায় প্রায় ৩২ শতাংশ কম। ২০২২ সালে ধর্ষণচেষ্টার শিকার হয়েছে ৯৮ শিশু, যা আগের তুলনায় কিছুটা বেশি। আমাদের মনে রাখা দরকার, যৌন নির্যাতনের মাধ্যমে একটি শিশুর ডানা ভেঙে দেয়া হয়। ওই শিশু আর বিকশিত হতে পারে না। ২০২২ সালে ৯৬টি শিশু যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে।
২০২২ সালে সড়ক দুর্ঘটনার বাইরে ৩১১টি শিশু অন্যান্য দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে। গত বছর ৩০ শিশু অপহরণ, ৬৮ শিশু নির্যাতন, ৩৩ শিশু নিখোঁজ ও ৯টি শিশুর বিভিন্ন অপরাধে সংশ্লিষ্ট হওয়ার খবর প্রকাশিত হয়েছে। এ সময়ে ৪৪টি শিশুর আত্মহত্যা করার খবর এসেছে সংবাদপত্রগুলোতে।
দেশে এখনো শিশুধর্ষণের ঘটনা উদ্বেগজনক পর্যায়ে রয়েছে। শিশুরা তাদের ওপর অনাকাক্সিক্ষত নির্যাতন প্রতিহত করতে অক্ষম, উপরন্তু ভয়ে ঘটনা গোপন করে। ফলে তারা প্রতিবেশী ও স্বজনদের মাধ্যমে বেশি নির্যাতনের শিকার হচ্ছে।
আমরা মনে করি, দেশে সার্বিক শিশু অধিকারের উন্নতি চাইলে তাদের ব্যাপারে সবার অধিকতর মনোযোগী হওয়া দরকার। বিশেষ করে অভিভাবক ও শিক্ষকদের আরো সচেতন হতে হবে। তবে সন্তানের বিষয়ে মা-বাবার ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। শিশুদের অভিভাবকরা যাতে অধিকতর সচেতন হতে পারে, সে ব্যাপারে গণমাধ্যমকে ভূমিকা পালন করতে হবে।


আরো সংবাদ



premium cement
প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের বয়স নিয়ে উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্রের ভোটাররা ইসরাইলকে 'এই মুহূর্তে এবং বিনা শর্তে’ বলার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র শোক-শ্রদ্ধায় স্মরণ ভাষাশহীদদের দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশই একমাত্র ভাষার রাষ্ট্র : প্রধানমন্ত্রী বন্দিবিনিময় নিয়ে ফের আলোচনায় বসছে ফিলিস্তিন-ইসরাইল রাখাইনসহ ৩ প্রদেশ ও ২টি অঞ্চলে আরো ঘাঁটি হারিয়েছে মিয়ানমার জান্তা পাকিস্তানে সরকার গঠনে পিপিপি ও পিএমএল-এন আনুষ্ঠানিক সমঝোতা খাৎনা করাতে গিয়ে এবার আইডিয়াল শিক্ষার্থীর মৃত্যু ওজন কমাতে বাজারে আসছে নতুন পিল ফিলিস্তিনি নারীদের ধর্ষণ করছে ইসরাইলি সেনারা : জাতিসঙ্ঘ গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে : রিজভী

সকল