১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪২৯, ১২ জিলহজ ১৪৪৫
`

রোহিঙ্গাদের মিয়ানমার ফেরাতে বাংলাদেশকে অবশ্যই পাইলট প্রকল্প স্থগিত করতে হবে : জাতিসঙ্ঘ বিশেষজ্ঞ

- ছবি : ইউএনবি

জাতিসঙ্ঘের একজন বিশেষজ্ঞ বলেছেন, বাংলাদেশকে অবিলম্বে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মিয়ানমারে ফিরে যাওয়ার জন্য একটি পাইলট প্রত্যাবাসন প্রকল্প স্থগিত করতে হবে, যেখানে তারা তাদের জীবন ও স্বাধীনতার জন্য ‘গুরুতর ঝুঁকির সম্মুখীন’।

বৃহস্পতিবার মিয়ানমারে মানবাধিকার পরিস্থিতির বিষয়ে জাতিসঙ্ঘের স্পেশাল র‌্যাপোর্টার টম অ্যান্ড্রুজ বলেছেন, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মিয়ানমারে ফেরত যেতে বাধ্য করতে বাংলাদেশী কর্তৃপক্ষ ‘প্রতারণামূলক ও জবরদস্তিমূলক ব্যবস্থা’ ব্যবহার করছে বলে প্রতিবেদন রয়েছে।

অ্যান্ড্রুজ বলেন, ‘মিয়ানমারের পরিস্থিতি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিরাপদ, মর্যাদাপূর্ণ, টেকসই এবং স্বেচ্ছায় প্রত্যাবর্তনের জন্য উপযোগী ছাড়া অন্য কিছুই নয়।’

তিনি বলেন, ‘ সিনিয়র জেনারেল মিন অং হ্লাইং, যিনি রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে গণহত্যামূলক হামলা চালানোর বাহিনীকে কমান্ড করেছিলেন। তিনি এখন একটি নৃশংস সামরিক জান্তার নেতৃত্ব দিচ্ছেন, যারা রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব এবং অন্যান্য মৌলিক অধিকার অস্বীকার করে বেসামরিক জনগণের ওপর হামলা চালাচ্ছে।’

বাংলাদেশের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন যে এক হাজার ১৪০ জন রোহিঙ্গা শরণার্থীর একটি প্রাথমিক দলকে একটি অনির্দিষ্ট তারিখে মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন করা হবে এবং বছরের শেষ নাগাদ ছয় হাজারজনকে ফেরত পাঠানো হবে। বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের পদক্ষেপগুলো ইঙ্গিত দেয় যে প্রথম প্রত্যাবর্তন আসন্ন হতে পারে।

অ্যান্ড্রুজ বলেন, ‘এছাড়াও শরণার্থীদের ফেরত যেতে রাজি হলে তাদের মোটা অঙ্কের অর্থের প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছে বলে খবর রয়েছে। এই প্রতিশ্রুতিগুলো এমনও করা হচ্ছে যখন বাংলাদেশ শিবিরে থাকা ব্যক্তিদের জন্য খাদ্য রেশন প্রতি দিন দশমিক ২৭ ডলার কমানো হচ্ছে। প্রত্যাবাসিত পরিবারগুলোর জন্য তহবিল কোথা থেকে আসবে, তা এখনো স্পষ্ট নয়।’

পাইলট প্রকল্পের অধীনে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা তাদের নিজেদের গ্রামে ফিরে যেতে দেয়া হবে না। যাদের মধ্যে অনেকের বাড়িঘর ২০১৭ সালের গণহত্যা হামলার সময় ভেঙে মাটিতে মিশিয়ে ফেলা হয়েছিল। শরণার্থীরা মংডু শহরের ‘অভ্যর্থনা’ এবং ‘ট্রানজিট’ কেন্দ্রের মধ্য দিয়ে যাবে, এর পরে তাদের ১৫টি নবনির্মিত ‘গ্রাম’-এর একটি নির্দিষ্ট এলাকায় স্থানান্তরিত করা হবে- যেখানে তাদের অবাধে যেতে দেয়া হবে না।

মার্চ মাসে, বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ মিয়ানমার জান্তা কর্তৃপক্ষের (এসএসি) দু’টি ক্যাম্পে বাংলাদেশ সফরের সুবিধা দেয়।

বাংলাদেশ এবং এসএসি কর্মকর্তারা কিছু রোহিঙ্গা শরণার্থীর জন্য রাখাইন রাজ্যে একটি ‘যাও এবং দেখুন’ সফরের সমন্বয় করেছে।

বাংলাদেশী কর্মকর্তারা বলেছেন যে উদ্বাস্তুরা তাদের প্রত্যাবর্তনের ব্যবস্থা নিয়ে ‘সাধারণ সন্তুষ্টি’ প্রকাশ করেছে, কিন্তু এই আশ্বাসগুলো এই প্রতিবেদনের দ্বারা বিরোধী ছিল যে যারা ভ্রমণে অংশ নিয়েছিল তারা দ্ব্যর্থহীনভাবে প্রত্যাবাসন পরিকল্পনা প্রত্যাখ্যান করেছিল।

স্পেশাল র‌্যাপোর্টার বলেছেন, ‘এই পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবর্তন সম্ভবত আন্তর্জাতিক আইনের অধীনে বাংলাদেশের বাধ্যবাধকতা লঙ্ঘন করবে এবং রোহিঙ্গাদের ব্যাপক মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং সম্ভাব্য ভবিষ্যতে নৃশংস অপরাধের জন্য উন্মোচিত করবে।’

অ্যান্ড্রুজ বলেছেন, ‘আমি অবিলম্বে প্রত্যাবাসন পাইলট প্রোগ্রাম স্থগিত করার জন্য বাংলাদেশকে অনুরোধ করছি।’

বিশেষজ্ঞ বলেছেন, ‘আমি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কেও কথায় ও কাজে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানাচ্ছি। এর মধ্যে অবশ্যই বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য মানবিক স্তরের সহায়তা প্রদানের ব্যর্থতাকে অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। যারা জীবিকা নির্বাহ করতে অক্ষম, ক্ষুধা ও অপুষ্টির মুখোমুখি হচ্ছেন এবং যাদের শিশুদের জন্য শিক্ষার সুযোগ খুব সীমিত রয়েছে।’ সূত্র : ইউএনবি


আরো সংবাদ



premium cement