১৮ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১, ১১ মহররম ১৪৪৬
`

টেক্সাসে মঙ্গলের অনুরূপ এক মিশন শেষ করলেন ৪ বিজ্ঞানী

- ছবি : সংগৃহীত

নাসার মহাকাশচারী বিশেষ ধরনের একটি দরজায় জোরে জোরে তিনবার টোকা দিলেন এবং উৎফুল্লভাবে ডাকলেন, ‘আপনি বেরিয়ে আসতে প্রস্তুত।’

উত্তরটি অস্পস্ট, তবে দরজা খোলার সাথে সাথে তার পোশাকের হেলমেট অ্যাসেম্বলির ভেতরে তিনি হাসছেন বলে মনে হচ্ছে। চারজন বিজ্ঞানী বেরিয়ে আসেন, যারা এক বছর অন্য সমস্ত মানব সংস্পর্শ থেকে দূরে কাটিয়েছেন, মঙ্গল গ্রহে একটি মিশন অনুকরণ করেছেন।

বিজ্ঞানীদের বেরিয়ে আসার সময় সবাই উল্লাস ও করতালিতে তাদের স্বাগত জানায়।

আঙ্কা সেলারিউ, রস ব্রকওয়েল, নাথান জোনস এবং দলের নেতা কেলি হ্যাস্টন গত ৩৭৮ দিন কাটিয়েছেন টেক্সাসের হিউস্টনে সিল করে রাখা ‘মঙ্গলযান’ আবাসস্থলের ভেতরে, লাল গ্রহে মানুষকে টিকে থাকতে হলে কী ধরনের পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হবে সে বিষয়ে নাসার গবেষণার অংশ হিসেবে মঙ্গলের অনুরূপ পরিবেশে তাদের রাখা হয়।

তাদের বিচ্ছিন্নতার সময় তারা শাকসবজি চাষ করেছেন, সিমুলেটেড ‘মার্সওয়াক’ পরিচালনা করেছেন এবং নাসার ‘অতিরিক্ত চাপ’ হিসেবে অভিহিত বিভিন্ন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছে পৃথিবীর সাথে যোগাযোগের বিলম্ব, তাদের পরিবারের সাথে সীমিত যোগাযোগ এবং বিচ্ছিন্নতা ও বন্দীত্বের মানসিক চাপ।

এটি এমন একটি অভিজ্ঞতা যা মহামারী লকডাউনের মধ্য দিয়ে বসবাসকারী যে কাউকে কাঁপিয়ে তুলবে, তবে শনিবারে ফিরে আসার সাথে সাথে চারজনই উল্লাসিত হয়ে ওঠেন। তাদের চুলগুলো কিছুটা বেশি এলোমেলো এবং তাদের আবেগ স্পষ্ট।

হিউস্টনে একজন জীববিজ্ঞানী হাসতে হাসতে বললেন, ‘হ্যালো। আপনাকে হ্যালো বলতে পারাটা আসলেই খুব চমৎকার।’

একজন জরুরি কক্ষের ডাক্তার নাথান জোনস, মাইক্রোফোনের দিকে নিয়ে যাওয়ার সময় বলেন, ‘আমি সত্যিই আশা করি যে আমি এখানে আপনাদের সবার সামনে দাঁড়িয়ে কাঁদব না।’ প্রায় কয়েক মুহূর্ত পরে তিনি ভিড়ের মধ্যে তার স্ত্রীকে দেখতে পান।

বিজ্ঞানীদের এই মঙ্গল বাসস্থান মার্স ডুন আলফা, একটি ৩ডি প্রিন্টেড এক হাজার ৭০০ বর্গ-ফুট (১৬০ বর্গ-মিটার) সুবিধা, যেখানে শয়নকক্ষ, একটি জিম, সাধারণ এলাকা এবং খাদ্য উৎপাদনের জন্য একটি উল্লম্ব খামার রয়েছে। একটি বহিরঙ্গন এলাকা, একটি এয়ারলকের পৃথক করা, লাল বালিতে ভরা এবং যেখানে দলটি তাদের ‘মার্সওয়াক’ পরিচালনা করে, যদিও এটি এখনো খোলা বাতাসের পরিবর্তে আচ্ছাদিত।

জনসন স্পেস সেন্টারে নাসার ডেপুটি ডিরেক্টর স্টিভ কোয়ারনার বলেন, ‘তারা এই আবাসস্থলে এক বছরেরও বেশি সময় অতিবাহিত করেছেন গুরুত্বপূর্ণ বিজ্ঞান গবেষণা পরিচালনার জন্য, এর বেশিভাগই পুষ্টিভিত্তিক এবং কিভাবে এটি তাদের কর্মক্ষমতাকে প্রভাবিত করে এবং আমরা লোকেদের লাল গ্রহে পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

এই মিশনটি নাসার পরিকল্পিত তিনটি সিরিজের মধ্যে প্রথম, যা- ক্রু হেলথ অ্যান্ড পারফরমেন্স এক্সপ্লোরেশন এনালগ (সিএইচএপিইএ) শিরোনামের অধীনে গ্রুপ করা হয়েছে।

২০১৫-২০১৬ সালে মঙ্গলে জীবনের অনুকরণে একটি বছরব্যাপী মিশন হাওয়াইয়ের একটি আবাসস্থলে সঙ্ঘটিত হয়েছিল এবং যদিও নাসা এতে অংশ নিয়েছিল, কিন্তু এর নেতৃত্বে ছিল না।

নাসার আর্টেমিস প্রোগ্রামের অধীনে যুক্তরাষ্ট্র ২০৩০ এর দশকের শেষের দিকে মঙ্গল গ্রহে ভ্রমণের প্রস্তুতিতে সহায়তা করার জন্য কিভাবে সেখানে দীর্ঘমেয়াদী বাস করতে হয় তা শিখতে মানুষকে চাঁদে ফেরত পাঠানোর পরিকল্পনা করেছে।
সূত্র : বাসস


আরো সংবাদ



premium cement