২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০, ১৪ শাবান ১৪৪৫
`

অনুমতি ছাড়া ডিএনসিসি এলাকায় কেউ গাছ কাটতে পারবে না : ডিএনসিসি মেয়র

মেয়র মো: আতিকুল ইসলাম। - ছবি : ইউএনবি

অনুমতি ছাড়া ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় কেউ গাছ কাটতে পারবে না বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো: আতিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন, গাছের গুরুত্ব আমাদের অনুধাবন করতে হবে। দুঃখজনক হলো আমরা অনেকে গাছের গুরুত্ব বুঝি না। পরিবেশ রক্ষায় ও জীবনের জন্য অপরিহার্য অক্সিজেন পেতে গাছের বিকল্প নেই।

শনিবার (১৮ নভেম্বর) রাজধানীর ফার্মগেটে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) অডিটোরিয়ামে নগর সবুজায়ন প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন ডিএনসিসি মেয়র।

মেয়র বলেন, আমি বার বার বলেছি, গাছ কাটলে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। আমার কাউন্সিলর, ইঞ্জিনিয়ার ও কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছি, অনুমতি ছাড়া ডিএনসিসি এলাকায় কেউ গাছ কাটতে পারবে না। গাছ কাটার আগে এলাকাবাসীর সাথে আলাপ করতে হবে। কাউন্সিলরদের সাথে আলাপ করতে হবে। আমাদের সাথে আলাপ করতে হবে।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন সড়ক ও ফুটপাতে গাছ লাগানো হচ্ছে। বিভিন্ন বস্তিতে প্রায় পাঁচ হাজার গাছ লাগানো হয়েছে। প্রতিটি গাছকে জিপিআরএস অ্যাপের মাধ্যমে আইডি নম্বর দিয়ে রোপণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, গাছে নম্বর দেয়া ও জিপিআরএস ম্যাপিং করা হচ্ছে। প্রকৌশল বিভাগ এটি তত্ত্বাবধান করছে। বর্জ্য বিভাগকে নির্দেশ দিয়েছি খালের পাড়ে গাছ লাগাতে হবে। আমরা এখন যে গাছগুলো লাগাচ্ছি একটা সময় পরে সবুজায়ন হবে, গাছে ফুল হবে, ফল হবে, গাছ ছায়া দেবে, অক্সিজেন দেবে।

মেয়র আরো বলেন, গাছ লাগানো অনেক সহজ, কিন্তু পরিচর্যা করে বড় করে তোলা কঠিন। এখন পর্যন্ত আমরা যেসব গাছ লাগিয়েছি, আমাদের কাছে প্রতিটি গাছের ম্যাপিং আছে। গাছ কত ইঞ্চি লাগানো হয়েছে, কীভাবে বড় হচ্ছে ও পরিচর্যা করা হচ্ছে। বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ আছে।

তিনি আরো বলেন, গাছগুলোর পরিচর্যা করা হচ্ছে। আজকে গাছ লাগালে অবশ্যই এর দু'বছর পরে ফল পাওয়া যাবে। আমি নতুন কিছু গাছ লাগাচ্ছি। রসকাউ গাছ রোপন করছি। রসকাউ গাছের ফল পাখির খুবই প্রিয়। আমরা সবুজ ও পাখির কিচিরমিচির দেখতে চাই।

তিনি বলেন, ঢাকাকে দৃষ্টিনন্দন করতে সবুজায়নের পাশাপাশি স্ট্রিট আর্ট করে দিচ্ছি। মগবাজার ফ্লাইওভারের পিলারে স্ট্রিট আর্ট করা হয়েছে।

মেয়র বলেন, মিরপুর জল্লাদখানায় পাকিস্তানিরা বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নির্মমভাবে হত্যা করে কুয়ার ভেতরে ফেলে রেখেছিল। সেটি ছিল খুবই ভয়ানক একটি জায়গা। ওখানে ময়লার ভাগাড় ছিল, মাদকাসক্তরা সেখানে নেশা করত। আমরা জল্লাদখানাটি দৃষ্টিনন্দন করে সাজিয়েছি। আপনারা গেলে দেখতে পাবেন শিশুদের জন্য খেলাধুলার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

সূত্র : ইউএএন


আরো সংবাদ



premium cement
ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে আগামীকাল মুখোমুখি হবে কুমিল্লা-রংপুর নোয়াখালীতে ভোটের রাতে গৃহবধূকে দলবদ্ধ ধর্ষণ : সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার বছর না যেতেই ফের বাড়ছে বিদ্যুতের দাম ক্ষুধার যন্ত্রণা নিয়ে গাজায় দুই মাসের শিশুর মৃত্যু শবে-বরাত উপলক্ষে ইবিতে র‍্যালি ও আলোচনা সভা বাংলাদেশকে আসিয়ানের সেক্টরাল ডায়লগ পার্টনার করার অনুরোধ ঢাকার রাশিয়া ও ইউক্রেনের নাগরিকদের জন্য ভিসার মেয়াদ বাড়াবে না শ্রীলঙ্কা বুড়িগঙ্গায় নৌকাডুবি : আরো একজনের লাশ উদ্ধার সামাজিক উন্নয়নে যাকাতের ভূমিকা শীর্ষক ছওয়াব ফাউন্ডেশনের সেমিনার ‘গাজায় গণহত্যাকে কোনো শান্তিপ্রিয় মানুষ উপেক্ষা করতে পারে না’ চলন্ত ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে প্রাণ দিলেন শিশুসহ মা

সকল