১৮ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১, ১১ মহররম ১৪৪৬
`

অস্ত্রচালানের বিষয়ে ইসরাইলের সমালোচনায় হতাশ যুক্তরাষ্ট্র

অস্ত্রচালানের বিষয়ে ইসরাইলের সমালোচনায় হতাশ যুক্তরাষ্ট্র - ছবি : সংগৃহীত

ইসরাইলের প্রধান মন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু তার দেশকে যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র সরবরাহ করার বিষয়ে সম্প্রতি যে সমালোচনা করেছেন তাতে হোয়াইট হাউজ অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে। একই সাথে নেতানিয়াহুর বিবৃতিকে বিরক্তিকর বলে অভিহিত করেছে হোয়াইট হাউজ।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা পর্ষদের মুখপাত্র জন কারবি বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ওই মন্তব্যগুলো ছিল অত্যন্ত হতাশাব্যঞ্জক এবং আমরা যে পরিমাণ সমর্থন তাদের দিয়েছি এবং দেবো তার প্রেক্ষাপটে এটা ছিল অত্যন্ত বিরক্তিকর বিবৃতি।’

মঙ্গলবার প্রকাশিত একটি ভিডিও বিবৃতিতে নেতানিয়াহু বলেন, হামাসের বিরুদ্ধে চলমান যুদ্ধে ইসরাইলের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থনে তিনি যদিও কৃতজ্ঞ। তবে এটা ধারণার বাইরে যে গত কয়েক মাস (যুক্তরাষ্ট্রের) প্রশাসন ইসরাইলেকে অস্ত্রশস্ত্র এবং সাজসরঞ্জাম দিচ্ছে না।

যুক্তরাষ্ট্র অবশ্য বলেছে, ৯০০ কিলোগ্রাম ও ২০০ কিলোগ্রাম ওজনের বোমা সম্বলিত একটি মাত্র চালান এমন উদ্বেগের কারণে বিরতি দেয়া হয়েছে যে এগুলো গাজার জনঅধ্যূষিত এলাকায় কিভাবে ব্যবহার করা হবে। যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে ইসরাইল আরো কয়েক বিলিয়ন ডলারের অস্ত্র পাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে।

ইতোমধ্যেই বৃহস্পতিবার জাতিসঙ্ঘের ৩০ জন বিশেষজ্ঞ সম্বলিত একটি দল সতর্ক করে দিয়েছে যে অস্ত্র-শস্ত্রের যে সব নির্মাতা ইসরাইলকে অস্ত্র দেয়া অব্যাহত রাখবে তারা মানবাধিকার ও আন্তর্জাতিক আইনলঙ্ঘনে যুক্ত বলে মনে করা হতে পারে।

কারবি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র তার অসন্তুষ্টির কথা সরাসরি ইসরাইলকে জানিয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় ওই ভিডিওতে দেয়া বিবৃতি এবং বিবৃতির শুদ্ধতা সম্পর্কে আমরা আমাদের হতাশার কথা নানান মাধ্যমে ইসরাইলকে যথেষ্ট পরিস্কার করে জানিয়েছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘এই ধারণা যে আত্মরক্ষা ব্যাপারে ইসরাইলকে সাহায্য করা আমরা কোনোভাবে বন্ধ করে দিয়েছি, তা কোনো মতেই ঠিক নয়।’

হোয়াইট হাউজের এই মন্তব্যগুলো এমন এক সময়ে এলো যখন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জেইক সালিভান ও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন গাজায় চলমান যুদ্ধ নিয়ে নেতানিয়াহুর দু’জন শীর্ষ সহযোগীর সাথে বৈঠক করার পরিকল্পনা করেছেন।

৭ এপ্রিল হামাস ইসরাইলের দক্ষিণাঞ্চলে হামলা চালাল। ইসরাইলের হিসাব অনুযায়ী, হামাসের ওই হামলায় এক হাজার ২০০ লোক নিহত হয় এবং আরো ২৫০ জনকে পণবন্দী করা হয়।

ইসরাইলের পাল্টা আক্রমণে গাজার বেশিভাগ এলাকা ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়। হামাস পরিচালিত গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাবে, এই আক্রমণে ৩৭ হাজার ৪০০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত এবং আরো ৮৫ হাজার ৬০০ জন আহত হয়।
সূত্র : ভয়েস অব আমেরিকা


আরো সংবাদ



premium cement
ঘুম ভাঙল তামিমের, সংঘাত নয় সমাধান চান তিনি আমেরিকান দূতাবাস ও সকল ভারতীয় ভিসা সেন্টার আজ বন্ধ করোনায় আক্রান্ত বাইডেন রাজধানীতে ১৬ প্লাটুন আনসার ব্যাটালিয়ন সদস্য মোতায়েন সাংবাদিকদের ওপর হামলায় গভীর উদ্বেগ বিএফইউজে ও ডিইউজের বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের প্রতি জামায়াতে ইসলামীর সমর্থন ঘোষণা আজ সারাদেশে 'কমপ্লিট শাটডাউন' ‘যুদ্ধ শুরু হলে নিশ্চিতভাবে লেবানন হবে ইসরাইলের জন্য দোযখ’ ট্রাম্পকে হত্যাচেষ্টার ছবি যেভাবে নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে পারে? ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান ইরানের কোটাবিরোধী আন্দোলনে রক্তাক্ত সহিংসতায় চট্টগ্রামে ৪ মামলা

সকল