২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

অ্যান্টিবায়োটিক রেসিস্ট্যান্স কী?


যদি কারো শরীরে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণজনিত রোগ হয় এবং সেই রোগ নিরাময়ে কেউ যদি চিকিৎসকের পরামর্শ মতো সঠিক পরিমাণে এবং পর্যাপ্ত সময় ধরে অ্যান্টিবায়োটিক গ্রহণ না করেন তাহলে ব্যাকটেরিয়াগুলো পুরোপুরি ধ্বংস না হয়ে উল্টো আরো শক্তিশালী হয়ে উঠতে পারে।

তখন এই ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে ওই অ্যান্টিবায়োটিক পরে আর কাজ করে না।

অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োগের পরেও ব্যাকটেরিয়ার এই টিকে থাকার ক্ষমতা অর্জনকে অ্যান্টিবায়োটিক রেসিস্ট্যান্সের বলা হয়।

দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে সাধারণ রোগ নিয়ে চিকিৎসা নেয়া অনেক মানুষের মধ্যে এই অ্যান্টিবায়োটিক রেসিস্ট্যান্সের দেখা দিয়েছে। এর ফলে রোগীর আগে যে অ্যান্টিবায়োটিকে রোগ সারতো, এখন আর সেটি কাজ করছে না। না হলে অত্যন্ত উচ্চ মাত্রার অ্যান্টিবায়োটিক দিতে হচ্ছে।

এভাবে মানুষের শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা ক্রমে হ্রাস পাচ্ছে বলে জানান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক তৌফিক আহমেদ।

অ্যান্টিবায়োটিক রেসিস্ট্যান্সের কারণ কী?

বিশ্বে নতুন অ্যান্টিবায়োটিক তৈরি হতে যে সময় লাগে ওই সময়ের মধ্যেই কয়েকগুণ বেশি হারে বাড়ছে অ্যান্টিবায়োটিক রেসিস্ট্যান্স। যার ফলে অদূর ভবিষ্যতে সামান্য হাঁচি-কাশি-জ্বরেও মানুষের মৃত্যু-ঝুঁকি হতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে ডা. তৌফিক বলেন, অ্যান্টিবায়োটিক রেসিস্ট্যান্সের সবচেয়ে বড় কারণ হলো সাম্প্রতিক সময়ে অত্যাধিক মাত্রায় অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার। অনেকেই জ্বর, মাথাব্যথা হলেই চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়াই অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করেন। আবার অনেকে চিকিৎসকের পরামর্শে অ্যান্টিবায়োটিক নিলেও সেটার পূর্ণ কোর্স সম্পন্ন করেন না।

কয়েকটি খাওয়ার পর ভালো বোধ করলেই ছেড়ে দেন। ফলে ওই ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে অ্যান্টিবায়োটিকের আর কোনো প্রভাব থাকে না।

প্রকৃতি পরিবেশ থেকে হতে পারে অ্যান্টিবায়োটিক রেসিস্ট্যান্স

ডা. তৌফিক আরো বলেন, আবার অ্যান্টিবায়োটিক নিয়ম করে খাওয়া সত্ত্বেও শিশুরাও অ্যান্টিবায়োটিক রেসিস্ট্যান্সের শিকার হতে পারেন। এর কারণ প্রকৃতি-পরিবেশে অ্যান্টিবায়োটিকের বিস্তার। ইদানীং মাছ, হাঁস, মুরগি বা গরুকে অ্যান্টিবায়োটিক-যুক্ত খাবার দেয়া হয়। আবার শাকসবজির উৎপাদনেও ব্যবহার হয় অ্যান্টিবায়োটিক। ফলে এসব প্রাণীর কাঁচা মাংসের সংস্পর্শে এলে, আধা-সেদ্ধ অবস্থায় খেলে অ্যান্টিবায়োটিক রেসিস্ট্যান্স তৈরি হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

অ্যান্টিবায়োটিক রেসিস্ট্যান্সের পরীক্ষা

কিন্তু কোনো ব্যক্তি অ্যান্টিবায়োটিক রেসিস্ট্যান্ট কিনা সেটা বুঝতে কালচার অ্যান্ড সেন্সিটিভিটি পরীক্ষা করানো হয়।

এ ব্যাপারে অধ্যাপক তৌফিক বলেন, রোগীর রোগের ধরণ বুঝে এক বা একাধিক নমুনা সংগ্রহ করা হয়। সাধারণত, রোগীর রক্ত, প্রস্রাব, কফ, লালা না হলে পুঁজ থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়ে থাকে। সাধারণত জ্বর বা টাইফয়েডের লক্ষণ দেখা দিয়ে রক্ত পরীক্ষা করা হয়, ইউরিন ইনফেকশন, কিডনি জটিলতা হলে প্রস্রাবের নমুনা, ফুসফুস জনিত রোগ হলে লালা বা কফ আবার শরীরের কোথাও ফোঁড়া হলে- সেখান থেকে পুঁজের নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করা হয়।

ল্যাবে মাইক্রোবায়োলজিস্টরা সেই নমুনা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন। সেখানকার ব্যাকটেরিয়ার উপর বিভিন্ন প্রকার অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে দেখা হয় যে, সেই অ্যান্টিবায়োটিক ব্যাকটেরিয়াগুলোকে মেরে ফেলতে কিংবা এর বংশবিস্তার আটকাতে সক্ষম কি না।

এ জন্য ল্যাবে গোলাকার চাকতি বা পেট্রি ডিশের ওপর ওই ব্যাকটেরিয়ার নমুনা কিছু দুর পর পর নেয়া হয়। সেই নমুনাগুলোর মাঝখানে ব্যাকটেরিয়ার কিছু খাওয়ার বা কালচার মিডিয়াম দেয়া হয় যেন ব্যাকটেরিয়াগুলো দ্রুত বেড়ে ওঠে।

এরপর বেড়ে ওঠা ব্যাকটেরিয়ার একেকটির ভাগের ওপর একেক ধরণের অ্যান্টিবায়োটিক দেয়া হয়। তখন যদি দেখা যায় অ্যান্টিবায়োটিকের প্রভাবে ব্যাকটেরিয়া মারা যাচ্ছে বা বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যাচ্ছে তাহলে সেই ওষুধের পাশে লেখা হয় ইংরেজি অক্ষর ‘এস’ বা সেনসিটিভ।

যদি ব্যাকটেরিয়া মারতে না পারে তখন লেখা হয় ইংরেজি অক্ষর ‘আর’ বা রেসিস্টান্ট অর্থাৎ এই অ্যান্টিবায়োটিকটি ব্যাকটেরিয়া মারতে সক্ষম নয়। এটি ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধী। আবার ব্যাকটেরিয়াগুলোর বৃদ্ধি কমে গেলে লেখা হবে ‘আই’ বা ‘ইন্টারমিডিয়েট’। অর্থাৎ এই ওষুধটি বেশি ডোজে কাজ করতে পারে।

নমুনা দেয়ার পর রিপোর্ট হাতে পেতে ৭২ ঘণ্টার মতো সময় লাগতে পারে। সেই রিপোর্টের ফলাফলের পরিপ্রেক্ষিতে চিকিৎসক সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন রোগীকে কোন অ্যান্টিবায়োটিক কেমন মাত্রায় দিতে হবে।

অধ্যাপক তৌফিক তার ক্যারিয়ারে এমন অনেক রিপোর্ট হাতে পেয়েছেন যেখানে একজন রোগী ২০/২৫টি অ্যান্টিবায়োটিক রেসিস্ট্যান্ট অর্থাৎ কোন অ্যান্টিবায়োটিক কোনটি কাজ করবে না। বা সাধারণ রোগের ক্ষেত্রেও শুধুমাত্র হাই পাওয়ারের ওষুধ কাজ করছে। তবে কোনো রোগী যদি আগেই অ্যান্টিবায়োটিক খেয়ে ফেলেন তাহলে ব্যাকটেরিয়া বিশেষ পদ্ধতিতে আইসোলেট করে পরীক্ষা করা হয় বলে জানান তিনি।

সূত্র : বিবিসি


আরো সংবাদ


premium cement
বিপিডিবি’র আর্থিক ক্ষতি দুই-তৃতীয়াংশ বেড়ে ৪৮ হাজার কোটি টাকা চীনের জিরো কোভিড নীতির বিরুদ্ধে ব্যাপক বিক্ষোভ পাবনার আলোচিত ১২ কৃষকের জামিন মঞ্জুর দেশজুড়ে নৌযান শ্রমিকদের ধর্মঘটে চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য খালাস বন্ধ দ. কোরিয়ায় হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে নিহত ৫ ১০ দফা দাবিতে ভোলায় অনির্দিষ্টকালের লঞ্চ ধর্মঘট শপথ নিয়েছেন কাজাখের প্রেসিডেন্ট তোকায়েভ ইউক্রেনীয়দের নব্য নাৎসি শাসকদের কবল থেকে মুক্ত করা হবে : লাভরভ রাজশাহীতে মালিকদের পরিবহন ধর্মঘটের ইঙ্গিত ঢাকা শহরের সব খেলার মাঠ উদ্ধার করা হবে : মেয়র আতিকুল মোটরসাইকেলে বিশ্বভ্রমণে বেরিয়ে সৌদিতে এসে ইসলাম গ্রহণ জাপানি যুবকের

সকল