০১ অক্টোবর ২০২০

ছাদ কৃষিতে সফল দম্পতি

ছাদ কৃষিতে সফল দম্পতি এম এ ওয়াদুদ ও তার স্ত্রী শিলা আক্তার - ছবি : নয়া দিগন্ত

বর্তমান কৃষিতে ছাদ কৃষি একটি পরিচিত নাম ও লাভজনক প্রকল্প। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে কৃষি কাজে প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে আমাদের দেশে ছাদ কৃষি দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এক সময়ে কেবল ছাদের সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য ছাদে কেবল ফুল গাছ লাগানো হতো। এখন ফুলের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই ছাদ কৃষি, ছাদে উৎপাদিত হচ্ছে প্রয়োজনীয় শাকসবজি ও ফলমূল। ছাদে উৎপাদিত ফসল নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে বিক্রি করতে পারছেন অনেকে। দেশের অথনীতিতেও কমবেশি ভূমিকা রাখছে এই ছাদ কৃষি। রাজধানী ঢাকায় ছাদ কৃষি শুরু হলেও এখন রাজধানীর সীমানা পেরিয়ে গ্রামের মানুষও ছাদে গাছ লাগানের প্রতি ঝুঁকছেন। ছাদ কৃষিতে অনেকেই সফলতার মুখ দেখছেন।

ঢাকার দোহার উপজেলার ইকরাশী এলাকার এম এ ওয়াদুদ ও তার স্ত্রী শিলা আক্তার এই দম্পতি ছাদ কৃষি করে ইতোমধ্যেই সফলতার মুখ দেখেছেন। বাড়ির ছাদে উৎপাদিত হচ্ছে সবজি ও নানা ধরনের ফুল-ফল। এখন তাদের দেখাদেখি অনেকেই উদ্বুদ্ধ হচ্ছে।

জানা গেছে, ২০১৮ সালে ইকরাশী এলাকার এম এ ওয়াদুদ মিয়া তার মেয়ের জন্মদিনে একটি আম গাছ উপহার দেন। গাছটি ছাদে রোপনের মাধ্যমে যাত্রা শুরু হয় ছাদ কৃষির। এম এ ওয়াদুদ পেশায় রেষ্টুরেন্ট ব্যবসায়ী হওয়ার তার স্ত্রী শিলা আক্তার গাছের পরিচর্যা শুরু করেন। একটি আম গাছ রোপনের পর ছয় মাসের মধ্যেই ছাদে স্থান আরো কয়েক প্রজাতির গাছ লাগানো হয়। গাছগুলো দিনে দিনে শোভা বর্ধনের পাশাপাশি ফুল ফলে ভরে উঠায় আগ্রহ বাড়তে থাকে ছাদ কৃষিতে। দীর্ঘ সময় বাড়ির ছাদ অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে থাকলেও এখন এই দম্পতির ছাদে চাষ হচ্ছে মরিচ, বেগুন, বরবটি, ঝিঙা, ধুন্দল, পেঁপে, শিম, লাউ, কলা, আখ, কমলা, মাল্টা, লেবু, জামরুল, কদবেল, বড়ই, আপেল, বিলম্ব, আম, পেয়ারা, তেতুল, জলপাই, আলু বুখারা, সফেদা, ড্রাগন, জামরুল, লিচু, ঘৃত কুমারী,নাশপতি, মালভেরি ইত্যাদি।

নিয়মিত পরিচর্যা করায় অল্প সময়ের মধ্যেই গাছগুলো ফল দিয়ে শুরু করে। নিজেদের প্রয়োজনীয় সবজি ছাদে রোপনকৃত গাছ থেকে সংগ্রহ হয়ে থাকেন তারা। ছাদ কৃষির গাছগুলো সাধারণত টবের মধ্যে লাগানো ও বড় হয়ে থাকে। মাটি, সার ও প্রয়োজনীয় কীটনাশক সরবরাহ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শ অনুযায়ী করে থাকেন তারা। যে কারণে এখনো পর্যন্ত কোনো ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়নি। প্রতিদিন ভোরবেলা গাছগুলোকে পরিচর্যা করে থাকেন। টবের গাছগুলো সতেজ রাখতে পানি ও রোদ দরকার বলে জানান তারা। পোকার আক্রমণ হলে কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শ অনুযায়ী জৈব পদ্ধতিতে তা দমন করেন। তবে মাটির গুণাগুণ পরীক্ষা করে নিতে পারলে ফসল বেশি পাওয়া যায় বলে জানায় এই দম্পতি।

এ বিষয়ে এম এ ওয়াদুদ জানান, নিজে পরিশ্রম করে যে কোনো ফসল উৎপন্ন করা গর্বের। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পরিবেশ রক্ষার জন্য নানা উদ্যোগ করেছেন। আমরাও আমাদের পরিবেশকে সুন্দর রাখতে বাড়ির ছাদ কৃষি কাজের মাধ্যমে সবাইকে উদ্ধুদ্ধ হয়েছি। আগামীতে ছাদ কৃষিতে আরো সফলতা কীভাবে পাওয়া যায় সেজন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করে ব্যপ্তি বাড়ানো হবে।

শিলা আক্তার জানান, সাংসারিক কাজকর্ম করার পর যে সময় পাই তা গাছের পরিচর্যা করার জন্য যথেষ্ট। অবসর সময়টুকু খুব ভালোভাবেই কাটে এবং মানসিক প্রশান্তি বাড়ে।

দোহার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মামুন ইয়াকুব জানান, ছাদে যে কেউ ইচ্ছা করলেই বিষমুক্ত সবজি উৎপাদন করতে পারেন। এ জন্য উপজেলা কৃষি অফিস সব ধরণের সহযোগিতা করবে।


আরো সংবাদ

বাংলাদেশ কখনই জঙ্গিবাদকে প্রশ্রয় দেয়নি, দেবেও না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কুয়েতের আমিরের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক অভাবের তাড়নায় সন্তান বিক্রি করে মায়ের আত্মহত্যার চেষ্টা বিএনপি নেতা লুৎফর রহমান মিন্টুর জানাজা ও দাফন সম্পন্ন করোনায় টিএমএসএসের নির্বাহী পরিচালক হোসনে আরার মায়ের মৃত্যু ইবতেদায়ি মাদরাসা জাতীয়করণের দাবিতে মানববন্ধন আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ আইসিইউতে চিকিৎসাধীন সংগ্রাম সম্পাদক আবুল আসাদকে মুক্তি দিন : অ্যামনেস্টি নারী নির্যাতনের অভিযোগে চট্টগ্রামে ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি গ্রেফতার জাহালমকে ১৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে নির্দেশ আজ থেকে ও লেভেল-এ লেভেল পরীক্ষায় কোনো বাধা নেই

সকল

সুবিধাজনক অবস্থায় আজারবাইজান, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির শিকার আর্মেনিয়রা (১৯২৯১)আর্মেনিয়ান রেজিমেন্ট ধ্বংস করলো আজারবাইজান, শীর্ষ কমান্ডারের মৃত্যু (১৪১০৪)আর্মেনিয়া-আজারবাইজান তুমুল যুদ্ধ, নিহত বেড়ে ৯৫ (১৩০২৮)আজারবাইজানের সাথে যুদ্ধ : ইরান দিয়ে আর্মেনিয়ার অস্ত্র বহনের অভিযোগ সম্পর্কে যা বলছে তেহরান (৭৪২৯)স্বামীকে খুঁজতে এসে সন্তানের সামনে ধর্ষণের শিকার মা (৭২৯২)আজারবাইজান-আর্মেনিয়ার যুদ্ধের মর্টার এসে পড়লো ইরানে (৭২১৭)এমসি কলেজে গণধর্ষণ : স্বামীর কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে ধর্ষকরা (৬৪১৯)এমসি কলেজে গণধর্ষণ : সাইফুরের যত অপকর্ম (৫৯৮৯)‘তুরস্ককে আবার আর্মেনীয়দের ওপর গণহত্যা চালাতে দেয়া হবে না’ (৫৬২১)আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজান দ্বন্দ্ব: কোন দেশের সামরিক শক্তি কেমন? (৫৪৩৫)