২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩০, ১৩ জিলহজ ১৪৪৫
`
জবির নতুন ক্যাম্পাস

হস্তান্তরের আগেই লেকের পাড় ভেঙে পানিতে

-

ঢাকার কেরানীগঞ্জে নির্মিত হচ্ছে ২০০ একর জায়গাজুড়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাস। ক্যাম্পাসটির প্রাথমিক কয়েকটি কাজের মধ্যে লেকখনন চলছে। গত ৭ আগস্ট লেকখনন শেষ হয়েছে দাবি করে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে হস্তান্তরের জন্য চিঠি দেয় খননকারী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ইউআইএডিএল (জেভি)। কিন্তু সরেজমিনে দেখা যায়, হস্তান্তরের আগেই লেকের পাড় ভেঙে পানিতে চলে গেছে। এতে করে খননকাজ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্টরা। অন্যদিকে পাড় ভাঙতে শুরু করায় এই লেক দ্রুত হস্তান্তরের জন্য জোর তদবির চালাচ্ছেন ঠিকাদার। সরেজমিন দেখা যায়, চারিদিকের পাড় ভেঙে লেকের পানিতে ধসে যাচ্ছে। পাড় সুরক্ষার জন্য সাদা এক ধরনের কাপড়ের পর্দা দিলেও আটকানো যাচ্ছে না মাটি। পর্দার নিচ থেকেই মাটি ধসে পানিতে চলে যাচ্ছে। পাড় রক্ষার জন্য এর আগে গাছ লাগানোর পরিকল্পনা থাকলেও তা আলোর মুখ দেখেনি।

গাছের পরিবর্তে ইস্টিমেটে কাপড়ের পর্দায় (জিও শিট) পাড় সংরক্ষণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। নিয়ম হলো বিশ্ববিদ্যালয় কোনো কাজ বুঝে নেয়ার আগে ইস্টিমেট অনুসারে সবকিছু ঠিক আছে কি না তা দেখে নেয়া। কিন্তু লেকের পাড় ভেঙে যাওয়ায় তা দ্রুতই হস্তান্তরের জন্য তাগাদা দিচ্ছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। কারণ লেক বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে হস্তান্তর হয়ে গেলে পরবর্তীতে তা ভেঙে গেলে খননকারী প্রতিষ্ঠানের দায়ভার থাকবে না। তাই পাড় মেরামত করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের আলাদা করে টেন্ডার আহ্বান করতে হবে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। এদিকে হস্তান্তরের আগেই এত কম সময়ে কেন পাড় ভেঙে গেল, মাটি ধরে রাখার জন্য কোনো টেকসই ব্যবস্থা কেন নেয়া হলো না প্রশ্ন লেক তদারকি কমিটির সদস্যদের। অন্যদিকে পাড় ভেঙে গেলে তা মেরামতের চেয়ে লেক বুঝে নেয়ার জন্য জোর লবিং তদবির চলছে বলে সূত্র জানিয়েছে।

লেক হস্তান্তরের আগেই এত কম সময়ে ভেঙে যাওয়ার কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে খননকারী প্রতিষ্ঠানের (ইউআইএডিএল) ঠিকাদার মো: রুমি জানান, হস্তান্তরের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে চিঠি জমা দিয়েছি। প্রায় তিন মাস আগে লেকের কাজ শেষ হয়ে গেছে। লেকের পাড়ের কিছু কিছু জায়গা ভেঙে গেছে। কিছু জায়গা আমরা মেরামত করেছি। স্রোত, বৃষ্টি বিভিন্ন কারণে যেমন পুকুর নদীর পাড়ের মাটি সরে যায়, এক্ষেত্রে এমনটি হয়েছে। এই বিষয়গুলো ডিপার্টমেন্ট দেখবে।
এদিকে লেক তদারকি কমিটির সদস্য ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. আইনুল ইসলাম বলেন, পরিপূর্ণ কাজ বুঝে না পেলে আমরা ক্লিয়ারেন্স দেবো না। লেকের বিল দেয়ার আগে আমরা পরিদর্শন করব। কোনো ত্রুটি থাকলে তা পরিপূর্ণ করতে হবে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় নতুন ক্যাম্পাস প্রকল্পের পরিচালক (পিডি) মোহাম্মদ আলী আহমেদ বলেন, লেকের পাড় ভেঙে গেছে আমি দেখেছি। সেগুলো মেরামতের জন্য বলেছি। ইস্টিমেট অনুসারে সব কাজ ঠিকঠাক না পেলে আমরা হস্তান্তর নিবো না বলে দিয়েছি। একই কথা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলী হেলাল উদ্দিন পাটোয়ারী। তিনি বলেন, লেক পরিপূর্ণভাবে বুঝে নেয়া হবে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত ভিসি (ভিসি অসুস্থ থাকায়) ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. কামালউদ্দিন আহমদ বলেন, লেকের বিষয়াবলি প্রকল্প পরিচালক দেখেন। তিনি প্রকল্প পরিচালকের সাথে যোগাযোগ করতে বলেন।


আরো সংবাদ



premium cement