২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩০, ১৩ জিলহজ ১৪৪৫
`

জাপান মুসলিম চেম্বার অব কমার্সের যাত্রা শুরু

-

জাপান মুসলিম চেম্বার অব কমার্স-এর যাত্রা শুরু হয়েছে। গত শুক্রবার টোকিওর অদূরে চিবা প্রিফেকচারের কিসারাজুর রিয়ুগুজু স্পা ‘হোটেল মিকাজুকু’তে এক অনাড়ম্বর অভিষেক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে জাপানে বসবাসরত বিভিন্ন দেশের মুসলিম সম্প্রদায়ের ব্যবসায়ীদের এই সংগঠনটি । অভিষেক অনুষ্ঠানে বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক, (উজবেকিস্তান, পাকিস্তান, ব্রুনেই এবং মালয়েশিয়া) স্থানীয় জাপানি জনপ্রতিনিধি, ব্যবসায়ী প্রতিনিধি, উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা, বিভিন্ন দেশের চেম্বার প্রতিনিধিরা, জাপান এবং বিভিন্ন দেশের স্থানীয় প্রবাসী মিডিয়া প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন ।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন আয়োজন শহরের সিটি মেয়র ওয়াতানাবে ইয়শিকুনি। বিশেষ অতিথি ছিলেন কিসারাজু চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি ইয়ই ইকেদা, কিসারাজু সিটি পর্যটন অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান ইয়শিনোবু নোগুচি, কিসারাজু সিটি আন্তর্জাতিক অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান কেইকো সুজুকি, এশিয়ান পিপলস ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা কাতসুও ইয়োশিনারি, বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি বাদল চাকলাদার। অভিষেকে মো: জলিল এম জেসলিকে (শ্রীলঙ্কা) চেয়ারম্যান, মিয়া রমজান সিদ্দিককে (পাকিস্তান) ও এমডি এস ইসলাম নান্নুকে (বাংলাদেশ) ভাইস চেয়ারম্যান, মোহাম্মদ যুবায়েরকে (পাকিস্তান) জেনারেল সেক্রেটারি, জারুক মোহাম্মদকে (শ্রীলঙ্কা) কোষাধ্যক্ষ, মোহাম্মদ হামিদ রমজান (শ্রীলঙ্কা), আসলাম কোরেশী (পাকিস্তান), শরীফ কিমুরা (বাংলাদেশ/জাপান) ও বাদল চাকলাদার (বাংলাদেশ) চারজনকে বোর্ড অব ডাইরেক্টর করে প্রতিষ্ঠা কমিটি হিসেবে পরিচয় করে দেয়া হয়।
স্বাগত বক্তব্যে অভিষিক্ত উদ্যোক্তারা বলেন, জাপান মুসলিম চেম্বার অব কমার্স বা জেএমসিসি একটি সংগঠন। জাপানের ব্যবসায়ী সম্প্রদায়, সরকারি বিভাগ, আঞ্চলিক ব্যবসাযয়িক সংস্থা এবং ইসলামিক দেশগুলোর সাথে সম্পর্ক জোরদার এবং প্রচার করার মাধ্যমে জাপানে মুসলিম সম্প্রদায়ের ব্যবসায়িক কার্যক্রমকে একীভূত করার জন্য প্রতিষ্ঠা করা হয়।
সংস্থার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হলো জাপানে মুসলমানদের ব্যবসায়িক কার্যক্রমকে সমর্থন করা, জাপানের মুসলিম সম্প্রদায় এবং জাপানি সমাজের মধ্যে ব্যবসায়িক ও সাংস্কৃতিক সম্পর্ককে ব্যাপকভাবে উন্নীত করা।
উদ্যোক্তারা জানান, সংস্থার অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য হলো জাপান ও মুসলিম বিশ্বের মধ্যে সেতুবন্ধের ভূমিকা পালন করা, জাপান ও ইসলামী বিশ্বের মধ্যে বাণিজ্যের পরিমাণ বৃদ্ধি করা এবং নতুন প্রবণতা এবং ব্যবসার সুযোগ সম্পর্কে আপডেট তথ্য প্রদান করা।
তারা বলেন, জাপানে প্রায় চার লাখেরও বেশি মুসলিম রয়েছে। প্রবাসী মুসলিম ব্যবসায়ীরা বিক্ষিপ্তভাবে ব্যবসাবাণিজ্য করছিলেন। এবারই সংগঠিত হয়ে সবার অংশগ্রহণে গঠিত হয় মুসলিম চেম্বার অব কমার্স। তাই এই সংগঠিত হওয়ার মাধ্যমে তাদের অনেক সমস্যার সমাধান মিলবে বলে তারা আশা প্রকাশ করেন।
জাপানের বেশির ভাগ মুসলমান ব্যবহৃত গাড়ি রফতানিশিল্প, হালাল খাদ্য আমদানি ও রফতানি ব্যবসা, কৃষি, পর্যটন, আইটি ইত্যাদির সাথে জড়িত। উল্লেখযোগ্যসংখ্যক মুসলমান টোকিও, চিবা, সাইতামা, কানাগাওয়া, শিজুওকা, আইচি, ইবারাকি গুনমা, তোয়ামা, নিগাতা, ওসাকা, হিয়োগো, হিরোশিমা, মিয়াগি, ইওয়াতে এবং হোক্কাইডো-সহ বিভিন্ন শহরে বসবাস করছেন। জাপানের প্রতিটি অংশের সাথে মুসলিম সম্প্রদায়ের সাংস্কৃতিক, সামাজিক এবং ব্যবসায়িক সম্পর্ক সুসংহত করার জন্য করার লক্ষ্যে সংগঠন কাজ করবে বলে উদ্যোক্তারা জানান ।
প্রবাসী বাংলাদেশীরা বিক্ষিপ্তভাবে ব্যবসাবাণিজ্য করছিলেন। তবে এবারই প্রথম নিবন্ধন পেয়েছে তাদের অংশগ্রহণে গঠিত চেম্বার অব কমার্স। তাই এর মাধ্যমে তাদের অনেক সমস্যার সমাধান মিলবে।


আরো সংবাদ



premium cement