০৯ মে ২০২১
`

ঢাবিতে বিরল স্থাপত্য মুসা খাঁ মসজিদ

-

বাংলাদেশে মোগল আমলের যেসব স্থাপত্যকীর্তি এখনো টিকে আছে তার মধ্যে অন্যতম মুসা খাঁ মসজিদ। ঐতিহাসিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ এ মসজিদের অবস্থান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। কার্জন হলের পেছনে শহীদুল্লাহ হলের পাশে অবস্থিত এ মসজিদে এখনো নামাজ আদায় করে মানুষ।
বিরল এ মসজিদের পাশে রয়েছে মুসা খাঁর কবর। তিনি বিখ্যাত ঈসা খাঁর ছেলে।
মধ্যযুগে বাংলার প্রভাবশালী জমিদার বা শাসক বারো ভূঁইয়াদের নেতা ছিলেন ঈসা খাঁ। তার ছেলের নাম মুসা খাঁ। মুসা খাঁর নামেই এ মসজিদ। মুসা খাঁর নাতি দেওয়ান মুনওয়ার খাঁ অথবা নবাব শায়েস্তা খাঁ মোগল আমলে এ মসজিদ নির্মাণ করেন মুসা খাঁর স্মরণে।
বাংলার বারো ভূঁইয়া শাসকদের নেতা ঈসা খাঁ ছিলেন একজন সফল মুসলিম রাজপুত কমান্ডার, যিনি বাংলায় মোগলদের আধিপত্য ঠেকিয়ে রাখতে সক্ষম হন। তার রাজাধানী ছিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে। ১৫৯৯ সালে ঈসা খাঁর মৃত্যুর পর তার ছেলে মুসা খাঁ শাসনভার গ্রহণ করেন এবং বাবার মতো মোগলদের বিরুদ্ধে লড়াই অব্যাহত রাখেন। কিন্তু মোগল সেনাপতি ইসলাম খাঁর কাছে পরাজিত হন তিনি এবং মোগলদের আনুগত্য মেনে নিতে বাধ্য হন। ১৬২৩ সালে তিনি মারা যান। তাকে ঢাকায় কবর দেয়া হয়। পরে তার কবরের পাশেই নির্মাণ করা হয় তার নামে এ মসজিদ।
দৃষ্টিনন্দন এ মসজিদে রয়েছে তিনটি গম্বুজ। মসজিদটি নির্মাণ করা হয় তিন মিটার উঁচু একটি ভল্ট প্লাটফর্মের ওপর। ভল্ট প্লাটফর্মটি ১৭ মিটার দীর্ঘ ও ১৪ মিটার চওড়া। প্লাটফর্মটির নিচে রয়েছে অনেকগুলো ঘর। কিন্তু এখন তা আর বাসযোগ্য নয়। রুমের দেয়ালে রয়েছে তাক, যা থেকে গবেষকেরা নিশ্চিত হন এটি ছিল মাদরাসা-মসজিদ। মসজিদের চার কোণায় মিনার সংযুক্ত চারটি টাওয়ার রয়েছে।
মসজিদটির তত্ত্বাবধানে অবহেলার অভিযোগ রয়েছে দীর্ঘ দিন ধরে। তবে সর্বশেষ উদ্বিগ্নের বিষয় হলো বিরল এ স্থাপত্যটি বর্তমানে মেট্রোরেল প্রকল্পের কারণে হুমকির মুখে পড়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ মসজিদের চার দিকের দেয়াল ধ্বংস হয়ে গেছে অনেক আগেই। শুরুতে এটি ছিল দেয়ালঘেরা একটি মাদরাসা-মসজিদ কমপ্লেক্স।
নির্মাণের সময় মসজিদের দেয়ালে যেমন উল্লেখ নেই তেমনি কে এটি নির্মাণ করেছেন তারও কোনো বিবরণ নেই। অনেকের অনুমান নবাব শায়েস্তা খাঁ এটি নির্মাণ করে থাকতে পারেন। অনেকের মতে, মুসা খাঁর ছেলে দেওয়ান মুনাওয়ার খাঁ এটি নির্মাণ করেছেন। ঢাকায় নির্মিত অপর খাজা শাহবাজ খাঁ মসজিদের সাথে এর নির্মাণশৈলীর মিল থাকায় এটিও সেই সময় নির্মিত হয়েছে বলে মনে করা হয়। খাজা শাহবাজ খাঁ মসজিদ নির্মিত হয় ১৬৭৯ সালে।



আরো সংবাদ