০৪ ডিসেম্বর ২০২০
জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচন

ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে বিএনপি প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলন

নির্বাচনী ফলাফল প্রত্যাখ্যান করছেন বিএনপি প্রার্থী নূরুল হক আফিন্দী - ছবি : নয়া দিগন্ত

সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপি, কেন্দ্রদখল ও জালভোট দেয়ার অভিযোগ এনে নির্বাচনী ফলাফল প্রত্যাখ্যান করছেন বিএনপি প্রার্থী নূরুল হক আফিন্দী।

বুধবার সন্ধ্যায় এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন তিনি। জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক এমপি নজির হোসেনের বাসায় এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি অভিযোগ করেন, মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ১৩টি ভোটকেন্দ্র থেকে ধানের শীষের এজেন্টদের বের করে দিয়ে নৌকার ব্যালটে সিল মেরে ব্যালটপেপার দিয়ে ভোটের বাক্স ভর্তি করেন। উপজেলার ভিমখালী কেন্দ্রে পরাজয় নিশ্চিত জেনে কেন্দ্রে ভোট গণনা না করে ভোটের বাক্স উপজেলা সদরে নিয়ে এসে নৌকায় সিল মারা হয়। লম্বাবাঁক কেন্দ্রে ১০টি বই বাইরে নিয়ে সিল মারেন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা।

তিনি আরো অভিযোগ করেন, বিকেল ৩টার পর থেকে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুটের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা অনেক কেন্দ্র দখল করে নৌকায় জাল ভোট দেন। এছাড়া, সংরক্ষিত মহিলা সংসদ সদস্যের স্বামী শাহরিয়ার চৌধুরী বিপ্লবের নেতৃত্বে ফেনারবাঁক গ্রামের কেন্দ্র দখল করে বিএনপির এজেন্টকে বের করে নৌকায় সিল মারা হয়।

তিনি বলেন, ভোটের দিন এসব অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগ তাৎক্ষণিক নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানানো হলেও তারা কোনোপ্রকার পদক্ষেপ না নেয়ায় ভোটের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি নজির হোসেন, জামালগঞ্জ উপজেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আজাদ হোসেন বাবলু, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শাহাব উদ্দিন, ফেনারবাঁক ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ফজলুল কাদের চৌধুরী তৌফিক প্রমুখ।

উল্লেখ্য, জামালগঞ্জে উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান ইউসুফ আল আজাদের মৃত্যুতে চেয়ারম্যান পদ শূন্য হওয়ার কারণে মঙ্গলবার উপ-নির্বাচনের আয়োজন করে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে ৩৭ হাজার ৩২১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মৃত ইউসুফ আল আজাদের ছেলে উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ইকবাল আল আজাদ। ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাচনাবাজার ইউপি চেয়ারম্যান বিএনপির নূরুল হক আফিন্দী ১৬ হাজার ৮৯০ ভোট পান।


আরো সংবাদ

সকল

সৌদি আরবে ইমাম হোসাইন মসজিদটি ভেঙে ফেলার নির্দেশ (১১৪৮৮)রাজধানীতে সমাবেশের অনুমতি পায়নি সম্মিলিত ইসলামী দলগুলো (১০৬৫১)অপশক্তি মোকাবেলা করে ইসলামের বিজয় নিশ্চিত করতে হবে : মামুনুল হক (৯৪০৬)বায়তুল মোকাররমের সামনে ভাস্কর্যবিরোধীদের মিছিলে লাঠিচার্জ (৮২৫২)কোনো মুসলিম হিন্দু নারীকে বিয়ে করতে পারে কিনা (৭৩৩৯)আওয়ামী লীগের আপত্তি, মামুনুল হকের মাহফিল বাতিল (৬৬৯১)ভাস্কর্য, মহাকালের প্রেক্ষাপট (৬২২৫)ভাস্কর্যের নামে মূর্তি স্থাপন কোনোক্রমে মেনে নেয়া যায় না : সম্মিলিত ইসলামী দলসমূহ (৬১৩০)স্টেডিয়ামগুলোকে জেলে রূপান্তরের অনুমতি না দেয়ায় কেজরিওয়ালের ওপর ক্ষুব্ধ মোদি (৬০৫৭)নাগর্নো-কারাবাখে জয় পেতে কত সৈন্য হারাতে হলো আজারবাইজানকে? (৫৮৭৪)