০৪ এপ্রিল ২০২০

করোনা ভাইরাস বিপর্যয় : বিলম্বিত হতে পারে মাটির নিচে বিদ্যুৎ লাইন স্থাপন

-

চীনে করোনা ভাইরাস মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়ার কারণে পরীক্ষামূলকভাবে রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকায় মাটির নিচ দিয়ে বিদ্যুৎ লাইন নেয়ার প্রকল্প বাস্তবায়ন বিলম্বিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পরার কারণে চীনা ঠিকাদারদের দল উহানে আটকা পড়েছে। তাই ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড (ডিপিডিসি) নির্ধারিত সময়ে মাটির নিচ দিয়ে বিদ্যুৎ লাইন নেয়ার পরীক্ষামূলক প্রকল্পের কাজ শুরু করতে পারেনি।

ডিপিডিসির সূত্র জানায়, এ প্রকল্পটির কাজ জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে শুরু হওয়ার কথা ছিল।

প্রকল্প সংশ্লিষ্ট ডিপিডিসির এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, প্রকল্প নির্মাণ কাজের আদেশ পাওয়া চীন সরকার মনোনিত ঠিকাদার তাবিয়ান ইলেক্ট্রিক অ্যাপারেটাস (টিবিইএ) কোম্পানি লিমিটেডের পুরো দলটি উহানে আটকা পড়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এ কর্মকর্তা বলেন, করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ভিত্তিভূমি উহানে টিবিইএ কার্যালয় বন্ধ রয়েছে এবং তাদের অফিস কবে খুলবে তা এখন অনিশ্চিত।

তিনি বলেন, চীনা এ কোম্পানির কয়েকজন কর্মকর্তা ঢাকায় আছেন। কোনো ধরনের সমস্যা যাতে না হয় সেজন্য ডিপিডিসির কর্মকর্তারা তাদের সাথে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে যোগায়োগ রাখছেন।

বিষয়টি স্বীকার করে ডিপিডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকাশ দেওয়ান আশা করেন, করোনা ভাইরাস সমস্যার সমাধান হলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান খুব শিগগিরই প্রকল্পের কাজ শুরু করতে পারবেন।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে, রাজধানীতে বিতরণ ক্ষমতা বাড়ানোর লক্ষ্যে চীনের অর্থায়নে ২০ হাজার পাঁচ শ' কোটি টাকার মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য টিবিইএর সাথে ডিপিডিসি চুক্তি স্বাক্ষর করে।

এ প্রকল্পের আওতায়, রাজধানীতে ৪০টি উপকেন্দ্র স্থাপন করবে। এছাড়াও আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে হাতিরঝিল লেক ও ধানমন্ডি আবাসিক এলাকার উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন লাইনগুলো মাটির নিচ দিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে।

ডিপিডিসির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পাইলট প্রকল্পের অংশ হিসেবে ধানমণ্ডির সাত-মসজিদ রোড, মিরপুর রোড, সিটি কলেজ রোড এবং গ্রীণ হেরাল্ড স্কুল এলাকার ১০৫ কিলোমিটার জুড়ে থাকা সব ধরনের উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন বৈদ্যুতিক তার মাটির নিচ দিয়ে নেয়া হবে এবং ওইসব এলাকায় কোনো তার দেখা যাবে না।

কর্মকর্তারা জানান, ধানমণ্ডির পাইলট প্রকল্পের প্রয়োজনীয় সব উপাদান, যন্ত্রপাতি এবং সিস্টেম দেশে নিয়ে আসা হয়েছে এবং কাজ শুরু করে দেয়ার জন্য সবকিছু তৈরি আছে।

তবে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের ফলে কাজ বন্ধ রাখতে হচ্ছে জানিয়ে ডিপিডিসির এ কর্মকর্তা বলেন, এখন মনে হচ্ছে এ প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ আগামী বছর করতে হবে। কেননা, সরকার জনগণের দুর্ভোগ যাতে না হয় সে জন্য এ ধরনের কাজ শীতকালে বাস্তবায়ন করতে আগ্রহী।

তিনি বলেন, এধরনের কাজে ঢাকা ওয়াসা, ঢাকা সিটি কর্পোরেশন এবং অন্যান্য সেবা প্রধানকারী প্রতিষ্ঠানে সংশ্লিষ্টতা দরকার পরে।

বিকাশ দেওয়ান বলেন, প্রকল্পের আওতায় বেশ কয়েকটি উপকেন্দ্রের ধারণক্ষমতাও বাড়ানো হবে।

তিনি উল্লেখ করেন, এ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হয়ে গেলে ১৩২ কেভি স্তরের ধারণক্ষমতার উপকেন্দ্রগুলো পাঁচ হাজার ৩৩০ এমভিএ এবং ৩৩ কেভির গুলো চার হাজার ৬৮০ এমভিএতে পৌঁছে যাবে।

চাইনিজ এক্সিম ব্যাংকের অর্থায়নে বাস্তবায়িত এ প্রকল্পের কাজ করার জন্য চীনের এ ঠিকাদারকে বাছাই করে দিয়েছে ব্যাংকটি।

সূত্র : ইউএনবি


আরো সংবাদ

আ'লীগ নেতার বাড়ি থেকে ভিজিডি’র সাড়ে ৫ হাজার কেজি চাল উদ্ধার মহেশপুরে ট্রাক-মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে নিহত ১ টিভিতে ক্লাসের সম্প্রচার নিয়ে অভিভাবকদের অসন্তোষ করোনার বিরুদ্ধে যক্ষ্মার টিকা কি কার্যকর? আত্মপ্রচারে ব্যস্ত কিছু সরকারি কর্মকর্তা লকডাউনে গৃহবন্দি! বারান্দা থেকে খাবার ঝুলিয়ে দুঃস্থদের খিদে মেটাচ্ছে ইতালি করোনাভাইরাস দুর্যোগে গার্মেন্টস কতদিন চালিয়ে যেতে পারবেন মালিকরা? করোনার চিকিৎসা সরঞ্জাম ছিনিয়ে নেয়ার গোপন অভিযানে মোসাদ করোনাভাইরাস : রমেকে পরীক্ষা করা ৪২ নমুনার ফলাফল ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রে একদিনে মৃত্যুর সর্বোচ্চ রেকর্ড ‘বিনামূল্যে খাদ্য সহায়তা পাওয়ার মতো ভাগ্য সবার নেই’

সকল

আত্মহত্যার আগে মায়ের কাছে স্কুলছাত্রীর আবেগঘন চিঠি (১৩৫৩০)সিসিকের খাদ্য ফান্ডে খালেদা জিয়ার অনুদান (১২৬০৬)করোনা নিয়ে উদ্বিগ্ন খালেদা জিয়া, শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল (৯৩১৫)ভারতে তাবলিগিদের 'মানবতার শত্রু ' অভিহিত করে জাতীয় নিরাপত্তা আইন প্রয়োগ (৮৪৯০)করোনায় নিশ্চিহ্ন হয়ে গেল ইতালির একটি পরিবার (৭৮৬৪)করোনার মধ্যেও ইরান-যুক্তরাষ্ট্র আরেক যুদ্ধ (৭১৪০)করোনায় আটকে গেছে সাড়ে চার লাখ শিক্ষকের বেতন (৬৯৩১)ইসরাইলে গোঁড়া ইহুদির শহরে সবচেয়ে বেশি করোনার সংক্রমণ (৬৮৯০)ঢাকায় টিভি সাংবাদিক আক্রান্ত, একই চ্যানেলের ৪৭ জন কোয়ারান্টাইনে (৬৭৬১)করোনাভাইরাস ভয় : ইতালিতে প্রেমিকাকে হত্যা করল প্রেমিক (৬২৯৬)