২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

৪০ শতাংশ রোগীই উপসর্গবিহীন

ভারতে একদিনে আক্রান্ত ৬৪ হাজার; করোনায় মৃত্যু লাখ ছাড়াল ব্রাজিলে; যুক্তরাষ্ট্রে ৬৬ জনে একজন সংক্রমিত; আক্রান্ত ১ কোটি ৯৮ লাখ ছাড়াল
-

করোনাভাইরাস মহামারীর প্রথম দিকে বেশির ভাগ লোক মুখোশ পরেনি। প্রাথমিক পর্যায়ে আক্রান্তদের মধ্যে শতকরা ১৫ ভাগ ছিল উপসর্গবিহীন। পরবর্তীতে মানুষ যখন মুখোশ পরা শুরু করেছিল, তখন উপসর্গবিহীন মানুষের হার ৪০ থেকে ৪৫ শতাংশে বেড়ে যায়।
সানফ্রান্সিসকোর ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ মনিকা গান্ধী এই মাসে জার্নাল অব জেনারেল ইন্টারনাল মেডিসিনে প্রকাশিত একটি নিবন্ধে এসব তথ্য উল্লেখ করেছেন।
বোস্টনের গৃহহীনদের আশ্রয়স্থলে ১৪৭ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত ছিল কিন্তু তাদের ৮৮ শতাংশেরই কোনো লক্ষণ ছিল না। স্প্রিংডেল শহরের টাইসন ফুডস পোলট্রি প্ল্যান্টে ৪৮১ জন এই ভাইরাস আক্রান্ত ছিল কিন্তু তাদের ৯৫ শতাংশেরই কোনো লক্ষণ ছিল না। আরকানসাস, নর্থ ক্যারোলিনা এবং ভার্জিনিয়ার কারাগারে ৩২৭৭ জনের শরীরে সংক্রমণ পাওয়া গেছে। সেখানেও উপসর্গবিহীন ছিল ৯৬ শতাংশ। মনিকা গান্ধী বলেন, উচ্চমাত্রায় উপসর্গবিহীন সংক্রমণ ভালো জিনিস। এটি ব্যক্তির পক্ষেও ভালো এবং সমাজের জন্যও ভালো। করোনাভাইরাস অনেকগুলো প্রমাণ রেখে গেছে তার মধ্যে একটি হলো শিশুদের শরীরে খুব হালকা প্রভাব। আমাদের মধ্যেই এমন কিছু মানুষ রয়েছেন যাদের ইতোমধ্যে আংশিক প্রতিরোধ ক্ষমতা রয়েছে। মাস্ক পরাদের মধ্যে উপসর্গবিহীন হওয়ার প্রবণতা বেশি।
মাস্ক ব্যবহার করা হয়নি এমন দু’টি ক্রুজ জাহাজে আক্রান্তদের মধ্যে ৪৭ শতাংশ উপসর্গবিহীন এবং আরেকটি ক্রুজ জাহাজে যাত্রীদের জন্য সার্জিক্যাল মাস্ক এবং ক্রুদের জন্য এন৯৫ দেয়া হয়েছিল সেখানে ৮১ শতাংশ উপসর্গবিহীন ছিল। খবর এনডিটিভি, রয়টার্স, ওয়ার্ল্ডোমিটারস, আলজাজিরা, ডয়চে ভেলে, এপি, ফোর্বস ডটকম, স্কাই নিউজ, সিবিএস নিউজ ও এএফপির।
ভারতে এক দিনে আক্রান্ত ৬৪ হাজারের বেশি : ভারতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে একদিনে আরো ৮৬৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা এখন ৪৩ হাজার ৪৭৫ জন। ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬৪ হাজার ৩৯৯ জন। এ নিয়ে টানা চতুর্থ দিন দেশটিতে দৈনিক আক্রান্ত ৬০ হাজারের ওপরে শনাক্ত হলো। আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২১ লাখ ৫৩ হাজার ১১ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণের হার ৮.৯৫ শতাংশ। এই মুহূর্তে ভারতে অ্যাক্টিভ কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ছয় লাখ ২৮ হাজার ৭৪৭। এখনো পর্যন্ত ১৪ লাখ ৮২ হাজার করোনা আক্রান্ত সুস্থ হয়ে উঠেছেন। সুস্থতার হার ৬৮.৭৮ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫৩ হাজার ৮৭৯ জন।
ব্রাজিলে করোনায় মৃত্যু লাখ ছাড়াল : লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে করোনায় মৃত্যু লাখ ছাড়িয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ১৩ হাজার ৩৬৯। এর মধ্যে মারা গেছে ১ লাখ ৫৪৩ জন। ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছে ২০ লাখ ৯৪ হাজার ২৯৩ জন। বর্তমানে ব্রাজিলে করোনার অ্যাক্টিভ কেস ৮ লাখ ১৮ হাজার ৫৩৩। অপর দিকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছে ৮ হাজার ৩১৮ জন। গত মে মাসের শেষ দিক থেকে দেশটিতে প্রতিদিন গড়ে এক হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে মারা গেছে ৯০৫ জন।
করোনামুক্ত ১০০ দিন নিউজিল্যান্ডে : মহামারী মোকাবেলায় সফল নিউজিল্যান্ডে গত ১০০ দিনে কমিউনিটি পর্যায়ে করোনাভাইরাসের নতুন কোনো সংক্রমণ শনাক্ত হয়নি। নিউজিল্যান্ডে এখন পর্যন্ত করোনার সক্রিয় রোগী আছেন মোট ২৩ জন। দেশটিতে প্রবেশের পর তাদের করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। বিদেশফেরত এই সংক্রমিতদের সরকারি আইসোলেশন স্থাপনায় নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। দেশটির স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অ্যাশলে ব্লুমফিল্ড বলেছেন, কমিউনিটিতে করোনার সংক্রমণ ছাড়াই শততম দিনে পৌঁছানো একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক। তবে আমরা সবাই জানি, এটি নিয়ে আমরা আত্মতৃপ্ত হতে পারি না।
যুক্তরাষ্ট্রে ৬৬ জনে একজন করোনায় সংক্রমিত : করোনাভাইরাসের সংক্রমণের দিক দিয়ে রেকর্ড সৃৃষ্টি করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ৮ আগস্ট দেশটিতে করোনা সংক্রমণ শনাক্তের সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। এই হিসাবে দেশটিতে প্রতি ৬৬ জন বাসিন্দার মধ্যে একজন করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন। করোনা শনাক্ত হয়েছে ৫১ লাখ ৫০ হাজার ৬০ জনের। করোনায় আক্রান্ত হয়ে দেশটিতে ১ লাখ ৬৫ হাজার ৭৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর এক চতুর্থাংশ ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। রেকর্ডসংখ্যক আক্রান্ত নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বের শীর্ষে আছে। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২৬ লাখ ৩৮ হাজার ৪৭০ জন। এ দিকে মিশিগান অঙ্গরাজ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্তের সংখ্যা এখন ৮৬ হাজার ৮৮৯। এ পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ২৫০ জনের।
আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ৯৮ লাখ ছাড়াল : দুনিয়াজুড়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ৯৮ লাখ ছাড়িয়েছে। করোনাভাইরাস বৈশ্বিক মহামারীতে এ পর্যন্ত বিশ্বের ২১৫টি দেশ ও অঞ্চল আক্রান্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি ৯৮ লাখ ৩১ হাজার ৯১৮। এর মধ্যে সাত লাখ ৩০ হাজার ১৭৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছে এক কোটি ২৭ লাখ ৩৯ হাজার ৪০৭ জন। আমেরিকার দুই মহাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ায় সংক্রমণ এখনো দ্রুত বাড়ছে। অন্য দিকে ইউরোপকে লণ্ডভণ্ড করে দিয়ে করোনা কিছুটা স্তিমিত হলেও সেখানে আবারো নতুন করে রোগটির প্রাদুর্ভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। তবে এখন আক্রান্তের পর সুস্থ হওয়ার হার দ্রুত বাড়ছে।
সবচেয়ে বেশি অর্থনৈতিক সমস্যায় তরুণরা : করোনাভাইরাস মহামারীতে সবচেয়ে বেশি অর্থনৈতিক সমস্যায় পড়েছেন তরুণরা। আর আর্থিক সঙ্কটে পড়া মানুষদের শতকরা ৩৮ ভাগই একই বয়সের। তবে মহামারীর কারণে মনস্তাত্ত্বিক সমস্যায় বেশি ভুগছেন নারীরা। এ নিয়ে জার্মানির ওষুধ উৎপাদকদের সংস্থা বিএএইচের পক্ষে সমীক্ষাটি করেছে বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান নিয়েলসেন। সমীক্ষাটির প্রতিবেদনে বলা হয়, জার্মানিতে ৩০ বছরের কাছাকাছি বয়সের মানুষরাই করোনার সময়ে সবচেয়ে বেশি আর্থিক সঙ্কটে ভুগছেন। করোনাকালে প্রতি তিনজন বা তার বেশি মানুষের পরিবারের সচ্ছলতা কমেছে। তবে সব বয়সের মানুষ কিছুটা আর্থিক সমস্যার সম্মুখীন হলেও নারীদের মানসিক দিকে বেশি আঘাত করেছে করোনা। প্রতি দশজনের মধ্যে ছয়জন নারীই জানিয়েছেন, পূর্বের চেয়ে করোনাকালেই বেশি মানসিক সমস্যায় ভুগছেন তারা। জরিপে অংশ নেয়া মানুষদের প্রায় এক তৃতীয়াংশ জানান, করোনার কারণে তাদের আয় লক্ষণীয় মাত্রায় কমেছে।
এবার বেকারভাতা কমালেন ট্রাম্প : করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রের বেকারদের ভাতা কমানোর নির্বাহী আদেশে সই করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সপ্তাহে ৬০০ ডলার বেকারভাতার মেয়াদ জুলাইয়ে শেষ হয়ে গেছে। সেটির মেয়াদ বর্ধিত করলেও পরিমাণ কমিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, জুলাই মাসে মেয়াদ চলে যাওয়ায় সপ্তাহে ৬০০ ডলারের পরিবর্তে কর্মহীন মানুষ এখন সপ্তাহে ৪০০ ডলার করে পাবেন। এ ৪০০ ডলারের মধ্যে ৭৫ শতাংশ, অর্থাৎ ৩০০ ডলার আসবে ফেডারেল তহবিল থেকে। রাজ্য সরকারগুলোকে ২৫ শতাংশ, অর্থাৎ ১০০ ডলার যোগ করার নির্দেশ দিয়েছেন ট্রাম্প। ট্রাম্প জানান, করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে সামগ্রিক অর্থনীতি ধাক্কা খাওয়ায় ২৫ শতাংশ ব্যয় সঙ্কোচন নীতি নেয়া হয়েছে সরকারের পক্ষ থেকে। যুক্তরাষ্ট্রে এখন তিন কোটির বেশি কর্মহীন মানুষ। কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ৭০ বিলিয়ন থেকে তহবিল ২৫ বিলিয়ন ডলারে নেমে আসবে।
বাইসাইকেলের বিক্রি বেড়েছে চারগুণ : করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও বিশেষজ্ঞরা। আর এতেই বাইসাইকেল বিক্রির পরিমাণ বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। যুক্তরাজ্যে করোনা বিস্তারের পর থেকেই বাইসাইকেল ব্যক্তিগত যাতায়াতের জন্য আরো জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। ব্রিটিশ নাগরিকরা মনে করছেন সুস্থ থাকার পাশাপাশি করোনা সংক্রমণ এড়াতে রাস্তায় দারুণ বাহন বাইসাইকেল। একজন ক্রেতা বলেন, আমি ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহার করতাম। কিন্তু এখন সাইকেল চালিয়ে কাজে যাই। বাইসাইকেল বিক্রেতাদের একজন বলেন, মার্চের শেষদিকে লকডাউন শুরুর কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই আমাদের বিক্রি দ্বিগুণের বেশি বাড়ে। আমরা যেখানে সপ্তাহে ১০০টির মতো সাইকেল বেচতাম, সেখানে বিক্রি বেড়ে দাঁড়ায় ৩ থেকে ৪০০তে।
ব্রিটেনে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে সৈকতে ভিড় : গরম থেকে বাঁচতে করোনা স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে হাজার হাজার মানুষ ব্রিটেনের সমুদ্র সৈকতে ভিড় জমাচ্ছেন। ব্রিটেনের সৈকতগুলোতে প্রচণ্ড ভিড় লক্ষ করা গেছে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের পক্ষ থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বারবার সতর্ক করা সত্ত্বেও কেউ তা মানছেন না। যদিও করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় ব্রিটেনে মৃত্যু হয়েছে ৯৮ জনের এবং আক্রান্ত হয়েছেন ৮৭১ জন। বর্নমাউথ, ক্রিস্টচার্চ, পুল কাউন্সিল কর্তৃপক্ষ কভিড-১৯ এর কারণে অতিরিক্ত সতর্কতা হিসেবে ২৪টি সৈকতের ১৯টিতে রেড অ্যালার্ট জারি করেছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব না হলে এসব এলাকা এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রে দুই সপ্তাহে আক্রান্ত ৯৭ হাজার শিশু : জুলাইয়ের শেষ দুই সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় এক লাখ শিশু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। গত ১৬ জুলাই থেকে ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে ৯৭ হাজারেরও বেশি শিশু করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। সম্প্রতি আমেরিকান অ্যাকাডেমি অব পেডিয়াট্রিকসের এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। যুক্তরাষ্ট্রে শনাক্ত ৫০ লাখ করোনা রোগীর মধ্যে ৩ লাখ ৩৮ হাজার শিশু রয়েছে। শুধু জুলাই মাসেই দেশটিতে করোনায় ২৫ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এর ফলে যুক্তরাষ্ট্রে মহামারীর মধ্যে শিশুদের সশরীরে স্কুলে ফেরানোর প্রক্রিয়া নিয়ে আবারো প্রশ্ন উঠেছে।
স্লোভেনিয়ায় দ্বিতীয় ধাপে বাড়ছে সংক্রমণ : স্লোভেনিয়ায় দ্বিতীয় ধাপে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। মধ্য ইউরোপের এ দেশটিতে নতুন করে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ও একই সাথে মৃতের সংখ্যা ক্রমে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এক দিনের ব্যবধানে নতুন করে প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন ১৪ জন। গত চব্বিশ ঘণ্টার ব্যবধানে দেশটিতে করোনায় আরো একজনের মৃত্যু হয়েছে। এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছেন ২২৪৭ জন, মৃত্যুবরণ ১২৬ জন। চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ১৯২৭ জন।

 


আরো সংবাদ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত মন্ত্রণালয়ের (১২৯৩৮)ড. কামাল ও আসিফ নজরুল ঢাবি এলাকায় অবা‌ঞ্ছিত : সন‌জিত (১১৭২৪)‘সনজিতকে ক্যাম্পাসে দেখতে চায় না ঢাবি শিক্ষার্থীরা’ (১০৩১৩)এমসি কলেজে গণধর্ষণ : সাইফুরের যত অপকর্ম (৯০১২)আজারবাইজান ৬টি গ্রাম আর্মেনিয়ার দখল মুক্ত করেছে (৮৩৪১)নতুন বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র সামনে আনলো ইরান (৫৭০৯)যে কারণে এই শীতেই ভারত-চীন মারাত্মক যুদ্ধের আশঙ্কা রয়েছে (৫৬৫০)অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের জানাজা অনুষ্ঠিত (৫২২৮)আজারবাইজান-আর্মেনিয়ার মধ্যে সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৯ (৫১৬০)ছাত্রলীগের ঢাবি সভাপতি বক্তব্য স্পষ্টত সন্ত্রাসবাদের বহিঃপ্রকাশ (৫১৫০)