২৬ নভেম্বর ২০২০

বায়তুশ শরফ দরবারের নতুন রাহবার মাওলানা মুহাম্মদ আবদুল হাই নদভী

মাওলানা মুহাম্মদ আবদুল হাই নদভী - ছবি : নয়া দিগন্ত

চট্টগ্রামের বায়তুশ শরফ দরবারের নতুন রাহবার হয়েছেন মরহুম পীর আল্লামা শাহ আবদুল জব্বার (রহ:) বড় ছেলে বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন মাওলানা মুহাম্মদ আবদুল হাই নদভী। তিনি মরহুম পীর আল্লামা শাহ মোহাম্দ কুতুব উদ্দিনের (ম.জি.আ.) স্থলাভিসিক্ত হলেন।

শনিবার বিকেলে বায়তুশ শরফ মজলিসুল উলামা বাংলাদেশ ও বায়তুশ আনজুমনে ইত্তেহাদ বাংলাদেশ-এর যৌথ জরুরি সভায় তাকে এই দায়িত্ব অর্পণ করা হয়।

বৈঠক সূত্র জানিয়েছে, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান পটিয়া ইদ্রিস মিয়া মাওলানা মুহাম্মদ আবদুল হাই নদভীকে পীর হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার প্রস্তাব দিলে মজলিসুল উলামা বাংলাদেশের মহাসচিব মাওলানা মামুনুর রশিদ নুরী তাতে সমর্থন দেন। ফলে সর্বসম্মতভাবে তাকে বায়তুশ শরফের পীর হিসেবে স্থলাভিসিক্ত করা হয়। একই সাথে মজলিসুল উলামা বাংলাদেশের জরুরি সভায় তাকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব দেয়া হয়। ওই সভায় বায়তুশ শরফের সদ্য মরহুম পীর আল্লামা কুতুব উদ্দিনের ছেলে মাওলানা সালাহ উদ্দিন মো. বেলালও উপস্থিত ছিলেন।

১৯৭০ সালে জন্ম নেয়া মাওলানা মুহাম্মদ আবদুল হাই নদভী ১৯৯৩ সাল থেকে বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল (এম,এ) মাদ্রাসার সিনিয়র শিক্ষক হিসেবে কর্মরত। তিনি ইউনিয়ন ব্যাংক লিমিটেডের শরিয়াহ সুপারভাইজরি কমিটির সেক্রেটারি এবং আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড ও মার্কেন্টাইল ইসলামি ইনস্যুরেন্স লিমিটেডের শরিয়াহ সুপারভাইজরি কমিটির সদস্য।

শিক্ষাজীবন : প্রাথমিক কুরআন শিক্ষা নিজ গ্রামের মকতবে, সেনের হাট প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষা, চুনতি হাকীমিয়া আলিয়া মাদ্রাসায় পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত পড়ে ইবতেদায়ী পাঠ সম্পন্ন করেন চট্টগ্রামের লোহাগাড়া কুমিরাঘোনা আখতরুল উলূম মাদ্রাসায়। লোহাগাড়ার বড়হাতিয়া এশাআতুল উলূম মাদরাসা হতে ১৯৮৩ সালে দাখিল, চুনতি হাকীমিয়া আলিয়া মাদ্রাসা ১৯৮৫ সালে আলীম, ১৯৮৮ সালে ফাযিল এবং ১৯৯০ সালে কামিল পাশ করেন।

উচ্চ শিক্ষালাভ : পরে ভারতের লখনৌ নদওয়াতুল উলামা ইউনিভার্সিটিতে আশ শরিয়াতুল ইসলামীয়া এন্ড উসূলুদ দ্বীন, লখনৌ ইউনিভার্সিটি হতে বি.এ (অনার্স) এবং ভারতের আলীগড় ইউনিভার্সিটি কহতে এম ফিল (গবেষণা হাদিস তত্ত), ছহীহ বোখারী সনদপ্রাপ্ত আল্লামা সৈয়দ আবুল হাসান আলী হাসানী নদভী (রাহ.) বিশ্ববিখ্যাত ইসলামি চিন্তাবিদ, ভারত।

অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তি : ২ নভেম্বর ২০০৩ সালে শিক্ষা ও গবেষনায় বিশেষ অবদান রাখায় ‘মাওলানা মরিুজ্জামান ইসলামাবাদী গবেষণা পরিষদ” কর্তৃক স্বর্ণ পদকে ভূষিত করা হয়। ১২ আগষ্ট ২০০৭ সালে শিশু উন্নয়ন ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় বিশেষ অবদান রাখায় শিশু উন্নয়ন ও মানবাধিকার ফোরাম কর্তৃক এ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়’।
৯ নভেম্বর ২০০৭ সালে ‘সাহিত্যিক আবুল ফজল ফাউন্ডেশন’ কর্তৃক শিক্ষা ও সাংস্কৃতির উপর বিশেষ অবদান রাখায় অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। ২১ আগষ্ট ২০০৯ সালে ‘মদিনা ইসলামী মিশন বাংলাদেশ’ কর্তৃক আদর্শ লেখক হিসেবে যথাযথ ভূমিকা রাখায় এ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়।

২৭ এপ্রিল ২০১২ সাল, ‘জাগৃতি লেখক ফোরাম’ কর্তৃক গুণীজন হিসেবে অ্যাওয়ার্ড ও সম্মননা প্রদান করা হয়। ৯ এপ্রিল ২০১৫ সাল কক্সবাজার, কুতুবদিয়া দারুল হিকমা কর্তৃক সম্মাননা অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়।

মাওলানা আবদুল হাই নদভী বায়তুশ শরফ আন্জুমনে ইত্তেহাদ বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় সদস্য ছিলেন, চেয়ারম্যান- আল্লাামা শাহ আবদুল জব্বার ফাউন্ডেশন ও আল্লামা শাহ আবদুল জব্বার পাবলিক লাইব্রেরী, প্রধান উপদেষ্টা - শাহ আবদুল জব্বার সমাজ কল্যাণ পরিষদ, কেন্দ্রীয় সদস্য- আহলুস সুন্নাত ওয়াল জামায়াত বাংলাদেশ। সহ সভাপতি - শাহ্ জব্বারিয়া হাসপাতাল, লোহাগাড়া, চট্টগ্রাম; সভাপতি-তা’লীমুল কোরআন মাদ্রাসা, লোহাগাড়া, চট্টগ্রাম; চেয়ারম্যান - আল মদীনা ফাউন্ডেশন, চট্টগ্রাম; প্রতিষ্ঠাতা- শাহ আবদুল জব্বার আশ শরফ একাডেমী (প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান); সহ- সম্পাদক - মাসিক দ্বীন দুনিয়া ও শিশু কিশোর দ্বীন দুনিয়া, বায়তুশ শরফ, চট্টগ্রাম; পরিচালক - বায়তুশ শরফ ইসলামী গবেষণা প্রতিষ্ঠান; সদস্য- উত্তরণ সমবায় সমিতি কক্সবাজার; সভাপতি - শাহ্ জব্বারিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়, লোহাগাড়া, চট্টগ্রাম; পরিচালক- বায়তুশ শরফ ফাউন্ডেশন লিঃ (ইসলামী ব্যাংক প্রতিষ্ঠাতা প্রতিনিধি প্রতিষ্ঠান।); প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান -শাহ্ আবদুল জব্বার ইন্টারন্যাশনাল একাডেমী (স্কুল এন্ড কলেজ); সদস্য-বায়তুশ শরফ শাহ জব্বারিয়া চক্ষু হাসপাতাল, কক্সবাজার; সদস্য-শাহ জব্বারিয়া একাডেমী স্কুল এন্ড কলেজ, কক্সবাজার; সদস্য- ডায়েবেটিক হাসপাতাল, চট্টগ্রাম; পরিচালক- ডিএম সি এল, ঢাকা। সদস্য সচিব- এফ. সি. আই. বি. ফাউন্ডেশন; সভাপতি, বায়তুশ শরফ আখতারয়িা আর্দশ ফাযিল (স্নাতক) মাদরাসা,সভাপতি- শাহ আবদুল জব্বার (রাহ.) আদর্শ মহিলা মাদরাসা মিয়াজিপাড়া, বড়হাতিয়া, লোহাগাড়া, চট্টগ্রাম।

গত বুধবার বিকেলে খ্যাতিমান আলেমেদ্বীন, আরবী সাহিত্যের পন্ডিত, বায়তুশ শরফের পীর বাহরুল উলুম আল্লামা শাহ মোহাম্মদ কুতুব উদ্দিন (ম.জি.আ.) রাজধানির ধানমন্ডি আনোয়ার খান মডার্ন হসপিটালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে(আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৮১ বছর বয়সে ইন্তেকাল করেন।


আরো সংবাদ

নিউজিল্যান্ডে আটকা পড়া ১০০ তিমির মৃত্যু শীতে যেভাবে করবেন পা ফাটার সমাধান ডিসেম্বর মাসে থিম্ফু-ঢাকা পিটিএ স্বাক্ষরিত হবে : প্রধানমন্ত্রীকে ভুটানের রাষ্ট্রদূত মুম্বাই সন্ত্রাসী হামলার দ্বাদশ বার্ষিকী : বিচার দাবিতে ভারতের সাথে যোগ দিলো বাংলাদেশ ভালো শিক্ষক ছাড়া শিক্ষায় পরিবর্তনে সুফল মিলবে না `ভুয়া অনলাইনের বিরুদ্ধে শিগগরই আইনগত ব্যবস্থা' পররাষ্ট্র সচিব করোনা আক্রান্ত, দিল্লি সফর স্থগিত তুরস্কে ব্যর্থ অভ্যুত্থানে জড়িত ৩৩৭ জনের যাবজ্জীবন মেধা, জ্ঞান, বুদ্ধি ও মননকে দেশের কাজে লাগান : প্রধানমন্ত্রী মালয়েশিয়ায় এক বাংলাদেশীকে খুঁজছে ইমিগ্রেশন ম্যারাডোনাকে চিকিৎসা না দিয়ে ১২ ঘণ্টা ফেলে রাখা হয়েছিল

সকল