ঢাকা, রবিবার,১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

শেষের পাতা

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা

বাজেটে কালো টাকা ও অর্থ পাচার রোধে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়ার দাবি

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক

০৮ মে ২০১৭,সোমবার, ০০:০০


প্রিন্ট

অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ বাড়াতে আগামী বাজেটে কালো টাকা এবং অর্থ পাচার রোধে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছে ২৫টি অধিকারভিত্তিক নাগরিক সমাজ।
জাতীয় প্রেস কাবে গতকাল ‘নতুন ভ্যাট আইন দরিদ্রদের ওপর কষাঘাত : আগামী বাজেটে কালো টাকা ও অর্থ পাচার রোধে কর্যকর পদক্ষেপের ঘোষণা চাই’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা এমন দাবি করেন। ইক্যুইটিবিডির রেজাউল করিম চৌধুরীর সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেনÑ ডেভেলপমেন্ট সিনার্জি ইনস্টিটিউশনের মনোয়ার মোস্তফা, অ্যাকশনএইডের আসগর আলী সাবরি, উপকূলীয় এনজিও জোটের আমিনুর রসুল বাবুল ও বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশনের বদরুল আলম।
ভ্যাট গরিবের জন্য ভয়ানক এক বোঝা হিসেবে অভিহিত করে সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, সরকার আইএমএফের পরামর্শ অনুযায়ী ভ্যাটের মতো পরোক্ষ করের ওপর জোর দিচ্ছে। কিন্তু এ মুহূর্তে সরকারের প্রত্যক্ষ করের ওপর অধিকতর গুরুত্বারোপ করা প্রয়োজন। সংবাদ সম্মেলন থেকে আগামী বাজেটে কালো টাকা ও অবৈধ অর্থ পাচার রোধে সুনির্দিষ্ট এবং কার্যকর পদক্ষেপের ঘোষণা দাবি করা হয়।
আয়োজকদের পক্ষ থেকে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করতে গিয়ে মো: আহসানুল করিম ১৩টি সুপারিশ তুলে ধরেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশী নাগরিকদের বা কোনো দ্বৈত নাগরিকত্ব সম্পন্ন বাংলাদেশীদের বিদেশে সম্পদ ও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থাকলে তাকে ফি-বছর বিবরণী বাংলাদেশে দিতে হবে। সুইজারল্যান্ডসহ বিভিন্ন দেশের সাথে ব্যাংক লেনদেনের স্বচ্ছতার ওপর আন্তঃদেশীয় চুক্তি সম্পাদন করতে হবে। দুই হাজার ডলারের ওপর যেকোনো কেনাকাটার টিআইএন ব্যবহার এবং এ ক্ষেত্রে নগদ লেনদেনও নিষিদ্ধ করতে হবে। মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে যেসব বাংলাদেশী নাগরিকত্ব গ্রহণ করেছেন, তাদের অর্থনৈতিক সব তথ্য পরীক্ষা করে শ্বেতপত্র প্রকাশ করতে হবে। একই সাথে রাষ্ট্রায়ত্ত ও বেসরকারি ব্যাংকসহ শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারির আত্মসাৎকৃত টাকাসহ বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ওপর তদন্ত কমিশন ও শ্বেতপত্র প্রকাশ করতে হবে।
মনোয়ার মোস্তফা বলেন, নাগরিকের ব্যয় করার সক্ষমতাকে রাষ্ট্র অবহেলা করতে পারে না। ভ্যাট এ নীতিকে লঙ্ঘন করে যা সামাজিক গণতন্ত্র ধারণার বিরোধী।
আসগর আলী সাবরি বলেন, সরকার আসলে বাজেট বা কর নীতি সৃষ্টি বা প্রণয়নের ক্ষেত্রে জনগণের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে না।
আমিনুর রসুল বাবুল বলেন, ভ্যাট আইনের কারণে গরিবের সঞ্চয় কমে যাবে, যার ফলে শিক্ষা ও স্বাস্থ্যে বিনিয়োগ বাধাগ্রস্ত হবে।
বদরুল আলম বলেন, নতুন ভ্যাট আইন কৃষকের সঙ্কট আরো তীব্র করে তুলবে। রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ করতে হলে বা নতুন কর আইন প্রণয়নের আগে অবৈধ অর্থ পাচারের পথ বা সুযোগটাকে বন্ধ করতে হবে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫