০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ৪ জিলহজ ১৪৪৩
`
সুইডেন ও ফিনল্যান্ডের নেতাদের যুক্তরাষ্ট্র সফর

ন্যাটোতে যোগদানের আবেদনকে স্বাগত জানালেন বাইডেন

সুইডেন ও ফিনল্যান্ডের নেতাদের যুক্তরাষ্ট্র সফর - ছবি : সংগৃহীত

এক সময়ের নিরপেক্ষ দেশ সুইডেন ও ফিনল্যান্ডের নর্থ আটলান্টিক ট্রিটি অর্গানাইজেশন বা ন্যাটোতে যোগদানের ‘মহাগুরুত্বপূর্ণ’ আবেদনের প্রশংসা করেছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের ফলে এমন সিদ্ধান্ত নেয় ওই দুই দেশ। এখন যুক্তরাষ্ট্র, ফিনল্যান্ড ও সুইডেন জোটে যোগদানের বিষয়ে তুরস্কের অব্যাহত বিরোধিতা নিষ্পত্তির জন্য কাজ করে যাচ্ছে।

করমর্দন এবং হাস্যরসের মধ্য দিয়ে সুইডেনের প্রধানমন্ত্রী ম্যাগডালেনা অ্যান্ডারসন এবং ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট সাউলি নিনিস্তোকে হোয়াইট হাউজে স্বাগত জানান বাইডেন। ন্যাটোর অভিন্ন প্রতিরক্ষা চুক্তি বিষয়ে আলোচনা করতে ত্রিপাক্ষিক বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এছাড়াও বৃহত্তর নিরাপত্তা বিষয়ে ইউরোপের উদ্বেগ নিয়েও আলোচনা করা হবে। বাইডেন প্রশাসন ন্যাটোতে যোগদানে তাদের আবেদনের বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেছে। আবেদনগুলো অনুমোদন করা হলে তা ইউক্রেনে আক্রমণের পর রাশিয়ার জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর অবস্থার সৃষ্টি করবে।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন দাবি করেছেন ন্যাটো জোট যেন রাশিয়া অভিমুখে সম্প্রসারিত হওয়া বন্ধ করে। তবে এই দুই দেশের পূর্ণ সদস্য হতে যে সময় লাগবে, সেই সময়ে যদি ক্রেমলিন তাদেরকে উস্কে দেয়ার চেষ্টা করে বা অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করে, তাহলে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেনের মতো একাধিক ন্যাটো মিত্র এমন ইঙ্গিত করেছে যে তারা ফিনল্যান্ড এবং সুইডেনকে নিরাপত্তা সহায়তা দিতে প্রস্তুত রয়েছে। ইউক্রেনের ন্যাটোতে যোগদানের ইচ্ছাকে আক্রমণের একটি কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন পুতিন।

পুতিনের এমন মতামতকে প্রত্যাখানের সুরে বাইডেন বলেন, ন্যাটোতে যোগ দেয়া নতুন সদস্যরা কোনো দেশের জন্যই হুমকি না। কখনোই এমন ছিলও না। তিনি আরো বলেন যে যুক্তরাষ্ট্র এবং মিত্ররা ‘ফিনল্যান্ড এবং সুইডেন যতক্ষণ যোগদানের প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে, সেই সময়ে যেকোনো আগ্রাসনকেই প্রতিহত এবং মোকাবেলা করবে।
সূত্র : ভয়েস অফ আমেরিকা


আরো সংবাদ


premium cement