০৪ মার্চ ২০২১
`

মেলানিয়ার শেষ চিঠিটিও লিখে দিয়েছেন কর্মচারী

মেলানিয়ার শেষ চিঠিটিও লিখে দিয়েছেন কর্মচারী - ছবি - সংগৃহীত

বিদায়ের আগে হোয়াইট হাউসের আবাসিক কর্মকর্তাদের ধন্যবাদ জানিয়ে একটি চিঠি দিয়েছেন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প। যুক্তরাষ্ট্রের প্রথা অনুযায়ী এ ধরনের চিঠি প্রেসিডেন্ট বা ফার্স্ট লেডি নিজে লিখলেও মেলানিয়া সে পথে হাঁটেননি।

হোয়াইট হাউসের এক কর্মচারীকে চিঠি লেখার নির্দেশ দিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক এই ফার্স্ট লেডি। চিঠির নিচের স্বাক্ষরটি শুধু করেছেন তিনি। বুধবার দু’টি সূত্রের বরাত দিয়ে করা এক প্রতিবেদনে এই তথ্য নিশ্চিত করেছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন।

সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়, বুধবার হোয়াইট হাউসের ৮০ জনেরও অধিক সংখ্যক আবাসিক কর্মকর্তাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বিদায়ী চিঠি দেন মেলানিয়া। প্রথমে ওই কর্মকর্তারা ভেবেছিলেন, চিঠিটি মেলানিয়াই লিখেছেন তাঁদের। কিন্তু পরে তারা জানতে পারেন, শেষ ধন্যবাদ জানিয়ে লেখা এই চিঠিটিও তিনি নিজে না লিখে ইস্ট উইংয়ের এক সাধারণ কর্মীকে দিয়ে লিখিয়েছেন।

বিদায়বেলায় হোয়াইট হাউসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে চিঠি দেওয়া যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক সংস্কৃতির একটি প্রথা। ক্ষমতায় থাকার সময় হোয়াইট হাউসের যেসব কর্মকর্তাকে প্রেসিডেন্ট ও ফার্স্ট লেডির কাছে খুবই ভালো মনে হয়, বিদায়ের সময় তাঁদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানানো একটি সাধারণ ভদ্রতা হিসেবে দেখা হয় দেশটির রাজনীতিতে।

হোয়াইট হাউসের আবাসিক কর্মকর্তাদের কাছে এসব চিঠি বা ধন্যবাদ জানিয়ে দেওয়া চিঠি বা কার্ডের মূল্য অনেক। তাদের অনেকেই এগুলো আগলে রাখেন। সাধারণত এই চিঠি বা কার্ডগুলো প্রেসিডেন্ট ও ফার্স্ট লেডি নিজে লেখেন।

ট্রাম্প দম্পতির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ বেশ কয়েকটি সূত্রের বরাত দিয়ে সিএনএন জানিয়েছে, গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই মেলানিয়া ট্রাম্প উচাটন হয়ে আছেন। তিনি শুধু ঘরে ফিরতে চান। ওয়াশিংটন বা হোয়াইট হাউস ত্যাগের জন্য তাঁর মনও বিষণ্ন নয়।

তার স্বামী যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও অবশ্য ক্ষমতার রদবদলের কোনো প্রথাই মানেননি। বাইডেন প্রশাসনের জন্য শুভ কামনা জানালেও বুধবার যুক্তরাষ্ট্র সময় দুপুর ১২টায় বাইডেনের অভিষেক অনুষ্ঠানে যে থাকবেন না, সেই ঘোষণা তিনি অনেক আগেই দিয়েছিলেন।

বিদায়ী ভাষণে নির্বাচিত হওয়ার আগে যা করতে চেয়েছিলেন; তা সফলভাবে করতে পেরেছেন বলে সদম্ভে ঘোষণা করলেও বিদায়ী ভিডিওবার্তায় জো বাইডেনের নাম একবারের জন্য উচ্চারণ করেননি ট্রাম্প।

হোয়াইট হাউস ত্যাগের পর ট্রাম্প এবং মেলানিয়া এখন ফ্লোরিডার পাম বিচ দ্বীপের মার-আ-লাগোতে স্থায়ী আবাস গড়বেন। সমুদ্র তীর ঘেঁষা এই ভবনটি বরাবরই ট্রাম্পের খুব প্রিয়। ক্ষমতায় থাকার চার বছর এই ভবনে অনেক সময় কাটিয়েছেন তিনি।



আরো সংবাদ


শৈলকুপায় আ.লীগের দুগ্রুপে সংঘর্ষ, বাড়ি-ঘর ভাংচুর ১৩৫৬ দিন বয়সের ভিসি ১১১৯ দিন কর্মস্থলে অনুপস্থিত নর্দান শিক্ষার্থীদের মাইগ্রেশন বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা রসিক মেয়রের নবাবগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন সেব্রিনা ফ্লোরার নোয়াখালীতে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন আবরার হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথ ৪ বড় ফেরি বিকল, তীব্র যানজট বিশ্ববাজারে তাঁতবস্ত্রের প্রসারে অবদান শাহজাদপুরে নারী উদ্যোক্তাকে সংবর্ধনা টেকনাফে ‘ক্রিস্টাল মেথ’সহ গ্রেফতার ১ ছাতকে অবৈধ স্থাপনা : উচ্ছেদে অনিয়মের অভিযোগ ফরিদপুরে পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্পের জমি অধিগ্রহণের চেক বিতরণ

সকল