২৮ জানুয়ারি ২০২১
`

সাবেক নিরাপত্তা উপদেষ্টা লে. জে. ফ্লিনকে ক্ষমা করলেন ট্রাম্প


আমেরিকার সাবেক লেফটন্যান্ট জেনারেল এবং একদা নিজের নিরাপত্তা উপদেষ্টা মাইকেল ফ্লিনকে ক্ষমা করে দিলেন বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। রাশিয়ার রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে আলোচনা এবং সে বিষয়ে এফবিআই এবং ট্রাম্প প্রশাসনকে মিথ্যা তথ্য দেয়ার অভিযোগ ছিল ফ্লিনের বিরুদ্ধে। যে কারণে তাকে পদ থেকে সরিয়েও দিয়েছিলেন ট্রাম্প। বিদায়বেলায় ফ্লিনের সেই 'দোষ' ক্ষমা করে দিলেন প্রেসিডেন্ট। এরপর তার বিরুদ্ধে আর কোনো অভিযোগ থাকবে না।

ক্ষমা ঘোষণা করার পরে ট্রাম্প টুইট করে অভিনন্দন জানিয়েছেন ফ্লিন এবং তার পরিবারকে। ফ্লিনও টুইট করেছেন বাইবেলের একটি অনুচ্ছেদ উদ্ধৃত করে।

ফ্লিনের সঙ্গে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সম্পর্ক ছিল নাটকীয়। ডেমোক্র্যাটপন্থী হয়েও ২০১৬ সালের মার্কিন নির্বাচনের সময় প্রকাশ্যে ট্রাম্পকে সমর্থন করেছিলেন ফ্লিন। ট্রাম্পের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা এতটাই বেড়েছিল যে, ভোটে জেতার পরের দিনই ফ্লিনের নাম নিজের নিরাপত্তা উপদেষ্টা এবং আন্তর্জাতিক বিষয় ও সামরিক ক্ষেত্রে প্রেসিডেন্টের মুখ্য কাউন্সিলর হিসেবে ঘোষণা করেন ট্রাম্প। একাধিক অনুষ্ঠানে সে সময় তাদের এক সঙ্গে দেখা গিয়েছিল।

কিন্তু সম্পর্ক দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। চেয়ার পাওয়ার মাত্র ২৩ দিনের মাথায় ফ্লিনকে পদ থেকে সরিয়ে দেন ট্রাম্প। অভিযোগ, ওয়াশিংটনে রাশিয়ার প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন ফ্লিন। সেখানে রাশিয়ার উপর জারি করা মার্কিন নিষেধাজ্ঞা নিয়ে কথা হয়েছে। ফ্লিন সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। ট্রাম্প প্রশাসন সে সময় অভিযোগ করে, ফ্লিন ওই বৈঠকের বিষয়ে মার্কিন প্রশাসন এবং এফবিআই-এর কাছে মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন।

২০১৭ সালে ফ্লিন দোষ স্বীকার করেন এবং ক্ষমা প্রার্থনা করেন। যদিও ২০২০ সালের শুরুতে ফ্লিন ক্ষমা প্রার্থনার আবেদন তুলে নেন। তার সঙ্গে অন্যায় হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ট্রাম্প ক্ষমা করে ফ্লিনের উপর থেকে সমস্ত অভিযোগ তুলে নিলেন।

ফ্লিনের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ রয়েছে। ২০১৬ সালে মার্কিন নির্বাচনে রাশিয়ার ভূমিকা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই অভিযোগ করছেন ডেমোক্র্যাটরা। ট্রাম্পের ইমপিচমেন্ট মামলাতেও সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। ডেমোক্র্যাটদের অভিযোগ, সে ঘটনাতেও ফ্লিনের ভূমিকা ছিল। যদিও এখনো পর্যন্ত সেই মামলায় ট্রাম্প প্রশাসনের বিরুদ্ধে কোনো তথ্য প্রমাণ মেলেনি।

সাংবিধানিক ভাবেই মার্কিন প্রেসিডেন্টদের ক্ষমা করার অধিকার আছে। বারাক ওবামা আট বছরে ২১২ জনকে ক্ষমা করেছিলেন। চার বছরে ট্রাম্প ক্ষমা করেছেন ২৮ জনকে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে সব চেয়ে কম ক্ষমা করেছেন ট্রাম্প। সূত্র : ডয়চে ভেলে



আরো সংবাদ


করোনা ভ্যাকসিন : যে ৪ গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের জবাব এখনো মেলেনি ২ হাজার ৩৭৪ কোটি টাকার বিটকয়েন ভর্তি হার্ড ডিস্ক ছুঁড়ে ফেলেছেন তিনি পেঁয়াজের বাম্পার ফলনেও হাসি নেই কৃষকের চট্টগ্রামের নতুন মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী নবম ও দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া : জীববিজ্ঞান ও বাংলা প্রথমপত্র সপ্তম অধ্যায় : গ্যাসীয় বিনিময় বাংলা প্রথমপত্র গদ্যাংশ : নিমগাছ ২০২১ সালের ক্যাডেট কলেজে ভর্তি প্রস্তুতি : দরকারী পরামর্শ নবম ও দশম শ্রেনীর লেখাপড়া : বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় প্রথম অধ্যায় : পূর্ব বাংলার আন্দোলন ও জাতীয়তাবাদের উত্থান (১৯৪৭-১৯৭০) একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর প্রস্তুতি : হিসাববিজ্ঞান প্রথম পত্র প্রথম অধ্যায় : দ্বিতীয় ভাগÑ ঘটনা ও লেনদেন একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর প্রস্তুতি : বাংলা প্রথম পত্র কবিতা : ঐকতান টিকা নিয়ে সংশয় দূর করা যেত

সকল