০১ এপ্রিল ২০২০

মোহনদাসের চেয়ে মমতাজ মহলের টানই কি বেশি মেলানিয়া ট্রাম্পের!

মোহনদাসের চেয়ে মমতাজ মহলের টানই কি বেশি মেলানিয়া ট্রাম্পের! - ছবি : সংগ্রহ

মার্কিন প্রেসিডেন্টের ভারত সফরের প্রাক্কালে জোর কানাকানি—মোহনদাসের চেয়ে মমতাজ মহলের টানই কি বেশি ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পের কাছে!

স্থির ছিল, ভারত সফরে আহমদাবাদ বিমানবন্দরে নেমে সোজা সাবরমতী আশ্রমে যাবেন ট্রাম্প দম্পতি। মোহনদাস কর্মচন্দ গান্ধীর স্মৃতিবিজড়িত আশ্রমে আধ ঘণ্টা কাটিয়ে মোতেরা স্টেডিয়ামে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ‘নমস্তে ট্রাম্প’ অনুষ্ঠান। তার পর তারা রওনা হবেন আগ্রায়, তাজমহল দর্শনে। সূত্রের খবর, শেষ মুহূর্তে পরিবর্তন না-হলে ট্রাম্প দম্পতির পূর্ব নির্ধারিত সাবরমতী আশ্রম সফর বাতিল হতে পারে। শনিবার বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেছেন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপাণী। ট্রাম্পের না-আসার ইঙ্গিত পাওয়ার পর এই প্রসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে হোয়াইট হাউস চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে এবং তা শিগগিরই ভারত সরকারকে জানানো হবে।

কেন সাবরমতী আশ্রমের অনুষ্ঠান বাতিল করার কথা ভাবছে ওয়াশিংটন? কূটনৈতিক সূত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী, প্রথম কারণটি হলো, মেলানিয়া ট্রাম্প সূর্যাস্তের সময়ে তাজমহল দেখতে উদ্গ্রীব। আহমদাবাদে বেশি সময় কাটালে যদি বিমানে আগরা পৌঁছতে দেরি হয়! সূর্য পাটে নামার আগেই তাজমহলে পৌঁছতে চান বলে জানিয়েছেন মেলানিয়া। সম্ভবত তাই আহমদাবাদে অনুষ্ঠানের সময় কাটছাঁট করার সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে হোয়াইট হাউস।

অন্য কিছু কারণেও এই সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের কথা ভাবা হচ্ছে বলে জানা গেছে। এক সপ্তাহ আগেই গুজরাতে গিয়েছেন আমেরিকার গোয়েন্দারা। সব দিক দেখে সাবরমতী আশ্রম প্রিজার্ভেশন অ্যান্ড মেমোরিয়াল ট্রাস্টকে তারা অনুরোধ করেছিলেন, নিরাপত্তার কারণে এক দিন আগেই আশ্রম বন্ধ করে দিতে। সূত্রের খবর, রাজি হননি ট্রাস্টের সদস্যেরা। এ ছাড়া, আশ্রমের সামনের চত্বরটা বাঁধানো নয়, নরম মাটির। আশ্রমের কাছে পর্যন্ত ট্রাম্পের কনভয় পৌঁছবে না, সে ক্ষেত্রে অনেকটাই হেঁটে যেতে হবে তাদের। ফলে মেলানিয়ার (বিশেষত তিনি যে ধরনের পয়েন্টেড হিল পরেন) হোঁচট খেয়ে পড়ার সম্ভাবনা দেখছেন মার্কিন কর্তারা।

তবে সাবরমতী যদি না-ও যাওয়া হয়, বাকি অনুষ্ঠানকে সফল করতে আহমদাবাদে সাজো সাজো রব। আর সেই খবর যে কিছুটা চড়া হয়ে অতলান্তিক পার হয়েছে, তা স্পষ্ট হয়ে গেছে খোদ ট্রাম্পের মন্তব্যে। তিনি বলেছেন, ‘‘আমি শুনেছি এক কোটি মানুষ হবে (আহমদাবাদে)। তারা জানিয়েছেন, বিমানবন্দর থেকে বিশ্বের বৃহত্তম স্টেডিয়াম পর্যন্ত ৬০ লাখ থেকে ১ কোটি মানুষ থাকবেন।’’ এই অবিশ্বাস্য সংখ্যাটি ট্রাম্প কোথা থেকে পেলেন, তা নিয়ে অবশ্য নীরব থাকাই শ্রেয় মনে করছে ভারতের পররাষ্ট্র দফতর তথা সাউথ ব্লক।

গুজরাত সরকার সূত্রের খবর, আহমদাবাদের জনসংখ্যা প্রায় ৭০ লাখ। বিমানবন্দর থেকে স্টেডিয়াম পর্যন্ত ২২ কিলোমিটারের রাস্তায় এক থেকে দু’লাখ মানুষকে দাঁড় করানোর প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। ছাত্রদের হাজির করতে সব স্কুল-কলেজকে অনুরোধ করা হয়েছে। যোগাযোগ করা হয়েছে বিভিন্ন আঞ্চলিক সংগঠনগুলির সঙ্গেও। নিরাপত্তার প্রশ্নটি যেহেতু বড়, তাই রাস্তার দু’ধারে দাঁড়ানোর জন্য লোক বাছাই করে, পরিচয়পত্র খতিয়ে দেখে ‘পাস’ দেয়ার কাজ চলছে। তবে সূত্রের খবর, খোলা জিপে নয়, বুলেটপ্রুফ কাচের লিমুজিনের ভিতর থেকেই হাত নাড়বেন ট্রাম্প।
সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

 


আরো সংবাদ