০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ২০ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ১০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

রানি এলিজাবেথের মৃত্যুতে কী কী পরিবর্তন আসবে ব্রিটেনে

রানি এলিজাবেথের মৃত্যুতে কী কী পরিবর্তন আসবে ব্রিটেনে - ছবি : সংগৃহীত

রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ ব্রিটেনের সিংহাসনে ছিলেন ৭০ বছর। এই দীর্ঘ সময়কালে তিনি ব্রিটিশ জনগণের প্রাত্যহিক জীবনের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে গিয়েছিলেন।

সাত দশক ধরে ব্রিটেনের ডাকটিকিট, মুদ্রা, ব্যাংক নোট আর পাসপোর্টে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের ছবি দেখতে অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছিল গোটা পৃথিবী। কিন্তু রানির প্রয়াণ এবং নতুন রাজার সিংহাসনে আরোহণের মধ্যে দিয়ে অনেক কিছুই এখন বদলে যাবে।

বদলে যাবে সব মুদ্রা

যুক্তরাজ্যে এখন যত ধাতব মুদ্রা চালু আছে তার সংখ্যা দু’ হাজার ৯০০ কোটি এবং এর সবগুলোতেই রয়েছে রানির মাথার ছবি। এই মুদ্রার সবশেষ ডিজাইন করা হয় ২০১৫ সালে, রানির বয়স তখন ৮৮ বছর। তার রাজত্বকালে মুদ্রায় রানির প্রতিকৃতি পরিবর্তন করা হয়েছে মোট পাঁচ বার।

ব্রিটেনের মুদ্রা তৈরি করে যে টাকশাল বা রয়েল মিন্ট, তারা এখনো জানায়নি কখন থেকে তারা রাজা তৃতীয় চার্লসের প্রতিকৃতিবিশিষ্ট মুদ্রা ইস্যু করতে শুরু করবে। তবে ধারণা করা হচ্ছে, রানির মাথাওয়ালা মুদ্রা আগামী বহু বছর ধরেই বাজারে চালু থাকবে এবং এগুলো প্রতিস্থাপিত হবে ধীরে ধীরে।

প্রথমে দশমিক পদ্ধতির ব্রিটিশ মুদ্রা চালু হয় ১৯৭১ সালে। তখন পর্যন্ত দেশটিতে বিভিন্ন রাজার ছবিসম্বলিত মুদ্রা দেখতে পাওয়াটা খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার ছিল।

নতুন মুদ্রায় রাজা তৃতীয় চার্লসের ছবিটি কেমন হবে তা এখনো বলা যাচ্ছে না। তবে ২০১৮ সালে তার ৭০তম জন্মদিন উপলক্ষে যে মুদ্রাটি বের হয় তাতে কিছুটা আন্দাজ পাওয়া যায় সেটা দেখতে কেমন হতে পারে। তবে একটা ব্যাপার নিশ্চিত বলা যেতে পারে যে, চার্লসকে মুদ্রায় বামদিকে মুখ করে থাকতে দেখা যাবে। কারণ ঐতিহ্য হলো, মুদ্রায় কোনো নতুন রাজা বা রানির ছবি ব্যবহারের সময় তিনি কোনদিকে তাকিয়ে আছেন তা পরিবর্তন করা হয়।

নতুন মুদ্রার ডিজাইন সরকারি অনুমোদন পাওয়ার পর তা দক্ষিণ ওয়েলসের লানট্রিসান্ট থেকে উৎপাদন শুরু করবে রয়েল মিন্ট। ১৯৬০ সাল থেকে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের সকল নোটে রানির ছবি থাকছে। তবে স্কটল্যান্ড ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের ব্যাংক নোটে রানির ছবি থাকে না।

বর্তমানে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের ইস্যু করা যত নোট বাজারে আছে তার সংখ্যা ৪৫০ কোটি। যার মোট মূল্য আট হাজার কোটি পাউণ্ড। ঠিক মুদ্রার মতই এই নোটগুলোও ধীরে ধীরে বাজার থেকে সরিয়ে নিয়ে তার জায়গায় নতুন নোট আনা হবে। তবে সকল নোটই বৈধ থাকবে এবং এতে কোনো পরিবর্তন হলে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড তা আগেই ঘোষণা দিয়ে জানাবে।

ডাকটিকিট ও ডাক বাক্স

ব্রিটেনের ডাক বিভাগ রয়েল মেইল ১৯৬৭ সাল থেকে যত ডাকটিকিট ইস্যু করেছে তার সবগুলোতেই রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের প্রোফাইল বা একপাশ থেকে তোলা সিল্যুয়েট ছবি রয়েছে।

রয়েল মেইল এখন নতুন রাজার ছবিসম্বলিত টিকিট তৈরির প্রক্রিয়া শুরু করবে। রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের ছবিওয়ালা ডাকটিকিট উৎপাদন বন্ধ করবে, তবে চিঠি-পার্সেলে এসব টিকিট ব্যবহারে কোনো বাধা থাকবে না।

ব্রিটেনে নতুন রাজার ছবিসম্বলিত ডাকটিকিট অবশ্য আগেই বেরিয়েছে। তবে রয়েল মেইল নতুন ডাকটিকিট দেখতে কেমন হবে তা জানায়নি।

ডাকটিকিট ছাড়াও রয়াল মেইল অনেক ডাকবাক্সের ওপর রাজকীয় প্রতীক উৎকীর্ণ করে থাকে। যুক্তরাজ্যের মোট এক লাখ ১৫ হাজার ডাকবাক্সের ৬০ শতাংশের ওপর রাজকীয় চিহ্ন থাকে। এতে এলিজাবেথ ও রেজিনা শব্দ দুটির সূচক ইংরেজি 'ই' ও 'আর' অক্ষর দুটি আছে। কিন্তু স্কটল্যান্ডের ডাকবাক্সে থাকে স্কটিশ ক্রাউনের প্রতীক।

স্কটল্যান্ড ছাড়া অন্যত্র এখন নতুন ডাকবাক্সগুলোতে নতুন রাজার প্রতীক উৎকীর্ণ হবে। তবে এগুলো দেখা যেতে বেশ কিছুকাল সময় লাগবে।

রাজকীয় অনুমোদনের সিলমোহর

টমেটো কেচাপ থেকে শুরু করে পারফিউম পর্যন্ত ব্রিটেনের অসংখ্য পণ্যের প্যাকেটে রাজকীয় অনুমোদনের সিলমোহর দেখা যায়। এতে লেখা থাকে ‘বাই অ্যাপয়েন্টমেন্ট টু হার ম্যাজেস্টি দ্য কুইন।’ এগুলো হচ্ছে সেসব পণ্য যা রাজকীয় ওয়ারেন্ট পেয়েছে অর্থাৎ তারা রাজ পরিবারের বাসভবনগুলোতে নিয়মিত পণ্য সরবরাহ করে থাকে।

গত ১০০ বছর ধরে ব্রিটেনের রাজা বা রানি, তাদের স্ত্রী বা স্বামী ও উত্তরাধিকারীরা ‘গ্র্যান্টর’ হিসেবে ৮০০ কোম্পানিকে প্রায় ৯০০টি এরকম অনুমতিপত্র দিয়েছে।

নিয়ম অনুযায়ী গ্র্যান্টরদের কেউ মারা গেলে তাদের ইস্যু করা ওয়ারেন্টগুলো বাতিল হয়ে যায় এবং কোম্পানিকে দু'বছরের মধ্যে এর ব্যবহার বন্ধ করে দিতে হয়।

রাজা তৃতীয় চার্লস এখন তার উত্তরাধিকারী যুবরাজ উইলিয়ামকে নিজস্ব রয়েল ওয়ারেন্ট ইস্যু করার ক্ষমতা দিতে পারবেন।

আগেকার পাসপোর্টগুলো বৈধ থাকবে

বর্তমানের সকল ব্রিটিশ পাসপোর্টই রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের নামে ইস্যু করা। রানির মৃত্যুর পরও এগুলো বৈধ থাকবে, তবে এখন থেকে নতুন পাসপোর্টে ইস্যু করা হবে রাজা তৃতীয় চার্লসের নামে।

পুলিশের হেলমেটেও রাজকীয় প্রতীকে বদল ঘটবে। আইনজীবীদের ক্ষেত্রেও আসবে পরিবর্তন। যে ব্যারিস্টার বা সলিসিটররা 'কিউসি' বা কুইন'স কাউন্সেল ছিলেন তারা এখন পরিচিত হবেন ‘কেসি’ বা ‘কিংস’ কাউন্সেল হিসেবে।

গড সেভ দ্য কিং

সবশেষে ব্রিটেনের জাতীয় সঙ্গীতের কথা যার প্রথম লাইন হচ্ছে ‘গড সেভ দ্য কুইন।’

চার্লস আনুষ্ঠানিকভাবে রাজা ঘোষিত হবার পর সেন্ট জেমসেস প্রাসাদ থেকে একটি ঘোষণা দেয়া হবে যাতে ‘গড সেভ দ্য কিং’ এই আহ্বান থাকবে। তারপর যে জাতীয় সঙ্গীত বাজানো হবে তার প্রথম বাক্য হবে- গড সেভ দ্য কিং।

আর এভাবেই ১৯৫২ সালের পর এই প্রথম ব্রিটেনের জাতীয় সঙ্গীতেও পরিবর্তন আসতে যাচ্ছে।

সূত্র : বিবিসি 


আরো সংবাদ


premium cement
মুন্সীগঞ্জে বিএনপির নেতাকর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে অভিযান, ১৩ জন গ্রেফতার এমবাপ্পের জোড়া গোলে কোয়ার্টার ফাইনালে ফ্রান্স লবিস্টের কথায় বিএনপি ১০ ডিসেম্বর সমাবেশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে : পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সমাবেশের আগে বিএনপি নেতাকর্মীরা জড়ো হতে পারবে না : ডিবিপ্রধান বিএনপি নেতা ইশরাকের গাড়ি ভাঙচুর বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানির ৪৬ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ অনুমোদন গণসমাবেশ সফলে ঢাকা বারে আইনজীবীদের মধ্যে লিফলেট বিতরণ মুন্সী মেহেরউল্লাহ ছিলেন ব্রিটিশ বাংলার শ্রেষ্ঠ ইসলাম প্রচারক গুজবে কান দেবেন না তিন ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি অনুসন্ধানের নির্দেশ হাইকোর্টের ভারতকে হারিয়ে অবিশ্বাস্য জয় টাইগারদের

সকল