২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯, ১ রবিউল আওয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

প্রধানমন্ত্রী হলেই চীনের বিরুদ্ধে কঠোর নীতি! অঙ্গীকার ঋষির

প্রধানমন্ত্রী হলেই চীনের বিরুদ্ধে কঠোর নীতি! অঙ্গীকার ঋষির - ছবি : সংগৃহীত

ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী ভারতীয় বংশোদ্ভূত ঋষি সুনক জানিয়েছেন, তিনি প্রধানমন্ত্রী হলে আগে চীনের বিরুদ্ধে কঠোর নীতি নেবেন। কারণ তিনি মনে করেন, এশিয়ার এই ‘সুপার পাওয়ার’ আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে তো বটেই তাঁর দেশের জন্যও ক্ষতিকর।

১০ ডাউনিং স্ট্রিটের লড়াইয়ের এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছেন ঋষি। শেষ পর্যায়ের লড়াইয়ে তার প্রতিদ্বন্দ্বী ব্রিটেনের বিদেশ সচিব লিজ ট্রাস। এই ট্রাসই দিন কয়েক আগে ঋষির বিরুদ্ধে চীনের প্রতি নমনীয় মনোভাব দেখানোর অভিযোগ করেছিলেন। এ দিকে, চীনের সংবাদপত্রেও, ঋষির প্রশংসা করে লেখা হয়েছিল, তিনি ব্রিটেন এবং চীনের সম্পর্কের গুরুত্ব বোঝেন। যা জানার পর থেকেই ব্রিটেনের পার্লামেন্টের চীন বিদ্বেষীরা গেল গেল রব তুলেছিলেন। সোমবার ঋষি সেই সব সমালোচনারই জবাব দিলেন মনে করছেন ব্রিটেনের রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। তবে একইসাথে তাদের অনেকের মত, প্রতিদ্বন্দ্বীর সমালোচনার জবাব দিতে যে ভাবে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করেছেন ঋষি, তাতে তার যুদ্ধ জয়ের মরিয়া চেষ্টাও কিছুটা প্রকাশিত হয়ে পড়েছে।

ঋষি বলেছিলেন, ব্রিটেনের সংস্কৃতিকে যেভাবে ক্রমশ প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে চীন, তা প্রথম দিন থেকে বন্ধ করবেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী হলে তিনি কী কী করবেন, তারও লম্বা তালিকা দিয়েছেন ঋষি। তার মধ্যে অন্যতম চীনের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ওপর নিয়ন্ত্রণ এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে চীনের কমিউনিস্ট পার্টির সংগঠনগুলোকে বের করে দেয়া।

ঋষির সমালোচকরা বলছেন, প্রধানমন্ত্রী হওয়ার লড়াই জেতার এই মরিয়া চেষ্টা ঋষির বিপক্ষেও যেতে পারে।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা


আরো সংবাদ


premium cement