১৩ আগস্ট ২০২২
`

কাতারের অনুদান নিয়ে দুর্নীতি করেননি প্রিন্স চার্লস

কাতারের অনুদান নিয়ে দুর্নীতি করেননি প্রিন্স চার্লস - ছবি : সংগৃহীত

ব্রিটেনে প্রিন্স চার্লসের একটা খবর বেশ সাড়া জাগিয়েছিল। কাতারের সাবেক প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে ৩০ লাখ পাউন্ড নেয়ার সেই খবরের সত্যতা অস্বীকার করেননি চার্লস। তবে অর্থ নিলেও তিনি দুর্নীতি করেছেন এমন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

কাতারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শেখ হামাদ বিন জসিম প্রিন্স চার্লসের হাতে ৩০ লাখ পাউন্ড (৩১ লাখ ৭০ হাজার ডলার) ভর্তি একটা ব্যাগ তুলে দেন ২০১১ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে কোনো এক সময়ে। ব্রিটেনের সানডে টাইমস সময়টা নিশ্চিত করতে না পারলেও লেনদেনের বিষয়ে নিশ্চিত হয়েই সম্প্রতি খবরটি প্রকাশ করে।

ওই বিষয়টি প্রকাশ পেলে জনমনে ছড়িয়ে পড়ে সন্দেহ, চার্লস কি তবে বিশাল অঙ্কের এই অর্থ নিয়ে নয়-ছয় করেছেন?

সানডে টাইমসের প্রতিবেদনে অবশ্য সেরকম কোনো ইঙ্গিত ছিল না। বরং সেই প্রতিবেদনে যা বলা হয়েছিল তা-ই শেষ পর্যন্ত প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। পত্রিকাটি জানিয়েছিল, অর্থ পাওয়ার পর ৭৩ বছর বয়সী চার্লস তার এক দাতব্য প্রতিষ্ঠানের অ্যাকাউন্টে জমা করে দেন। ওই দাতব্য প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষও একই কথা বলেছে।

শেখ হামাদ বিন জসিম প্রিন্স চার্লসের হাতে কড়ির ব্যাগটি তুলে দিয়েছিলেন এক ব্যক্তিগত বৈঠকে। সেজন্য কেউ কেউ পুরো বিষয়টিকে গোপন লেনদেন এবং এর মাঝে দুর্নীতি থাকতে পারে বলে ধরে নিলেও দাতব্য প্রতিষ্ঠানটির তরফ থেকে জানানো হয়েছে, অনুদান হিসেবে নেয়া অর্থ প্রিন্স চার্লস সাথে সাথেই সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের অ্যাকাউন্টে জমা দিয়েছেন, নির্ধারিত সময়ে ওই তহবিলের অডিটও হয়েছে।

গত নভেম্বরে প্রিন্স চার্লসের আরেক দাতব্য প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা মাইকেল ফসেটের বিরুদ্ধে অনুদানের বিনিময়ে বিভিন্ন ব্যক্তিকে পুরস্কার এবং ব্রিটেনের নাগরিকত্ব দেন - এমন তথ্য নিয়ে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে সানডে টাইমস। প্রতিবেদন প্রকাশের পর মাইকেল ফসেট দায়িত্ব ছেড়ে দেন।

ব্রিটেনের চ্যারিটি কমিশন এখন ফসেটের বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগ তদন্ত করে দেখছে।

সূত্র : ডয়েচে ভেলে


আরো সংবাদ


premium cement