০৮ মে ২০২১
`

ব্রিটিশ রাজপরিবার কিভাবে কাজ করে, এর সদস্য কারা

১৯৪৭ সালে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন প্রিন্সেস এলিজাবেথ ও প্রিন্স ফিলিপ - ছবি : বিবিসি

প্রিন্স ফিলিপ, ডিউক অব এডিনবারা, ৯৯ বছর বয়সে শুক্রবার মারা গেছেন। তিনি রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের সাথে ৭৩ বছরের বিবাহিত জীবন কাটিয়েছেন। ব্রিটিশ রাজপরিবারের ইতিহাসে তিনিই কোনো রাজা বা রানির সবচেয়ে দীর্ঘদিনের জীবনসঙ্গী ছিলেন।

রাজপরিবারে কারা আছেন?
রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ ১৯৫২ সাল থেকে যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রপ্রধান। তিনি ব্রিটেনের সবচেয়ে দীর্ঘসময় ধরে সিংহাসনে আসীন রাজপরিবারের সদস্য। তিনি যুক্তরাজ্য ও আরো ১৫টি দেশের রাষ্ট্রপ্রধান।

৯৪ বছর বয়সী রানি ও তার সদ্যপরলোকগত স্বামীর চার সন্তান, আটজন নাতি-নাতনি ও ৯ জন প্রপৌত্র-প্রপৌত্রি আছেন।

রাজপরিবারের অন্য সদস্যরা 
* প্রিন্স অব ওয়েলস (প্রিন্স চার্লস),৭২, বিয়ে করেছেন ডাচেস অফ কর্নওয়ালকে (ক্যামিলা) বিয়ে করেছেন। রানির বড় সন্তান প্রিন্স চার্লস রানির মৃত্যুর পর রাজা হবেন।

* ডিউক অব ক্যামব্রিজ (প্রিন্স উইলিয়াম) বিয়ে করেছেন ডাচেস অব ক্যামব্রিজকে (ক্যাথরিন) - প্রিন্স উইলিয়াম প্রিন্স অব ওয়েলস ও প্রিন্সেস অব ওয়েলসের (ডায়ানা) বড় সন্তান।

* ডিউক অব সাসেক্স (প্রিন্স হ্যারি) উইলিয়ামের ভাই - বিয়ে করেছেন ডাচেস অব সাসেক্সকে (মেগান)। গত বছর তারা সিনিয়র রয়্যালের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর কথা জানান। তারা এখন আমেরিকার লস এঞ্জেলসে বাস করছেন।

যেভাবে হওয়া যায় র‍য়্যাল বা রাজপরিবারের সদস্য 
কেউ যদি রাজপরিবারের কোনো সদস্যের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন, বিয়ের পর তাকে একটি রাজকীয় উপাধি দেয়া হয়।

উদাহরণস্বরূপ, লেডি ডায়ানা স্পেন্সার ১৯৮১ সালে প্রিন্স চার্লসকে বিয়ের পর প্রিন্সেস অব ওয়েলস হয়েছিলেন।

তবে রাজা বা রানি হতে হলে তাকে অবশ্য রাজপরিবারেই জন্ম নিতে হবে।

এখন সিংহাসনের উত্তরাধিকার প্রিন্স চার্লস, তারপর দ্বিতীয় প্রিন্স উইলিয়াম, তারপর উইলিয়ামের বড় সন্তান প্রিন্স জর্জ তৃতীয় উত্তরাধিকার।

রাজকীয় বিয়েতে যা হয় 
রাজকীয় বিয়ে সাধারণত বেশ প্রাচীন ও বড় কোনো জায়গায় হয়, যেখানে বহু লোকসমাগম হয়।

রানি ও প্রিন্স ফিলিপের বিয়ে হয়েছিল ১৯৪৭ সালে ওয়েস্টমিনস্টার অ্যাবেতে, যা ৯৬০ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এটি পার্লামেন্টের সাথেই।

এর ছয় দশক পর ২০১১ সালে একই জায়গায় মানুষ সমবেত হয়েছিল তাদের নাতি উইলিয়াম ও ক্যাথেরিন মিডলটনের বিয়ে উদযাপনে।

রাজপরিবারে শিশু জন্ম নিলে কী হয় 
রাজপরিবারের বেশ কয়েকজন সদস্যের জন্ম হয়েছে লন্ডনের সেন্ট ম্যারি হাসপাতালে।

প্রিন্সেস ডায়ানা প্রিন্স উইলিয়াম ও প্রিন্স হ্যারির জন্ম দিয়েছেন সেখানে। ডাচেস অব ক্যামব্রিজের তিন সন্তান- প্রিন্স জর্জ সপ্তম, প্রিন্সেস শার্লট পঞ্চম ও প্রিন্স লুইস দ্বিতীয়র জন্মও হয়েছে এ হাসপাতালে।

সন্তান জন্মদানের পর দু’জনেই হাসপাতালের বাইরে এসে নিজ নিজ স্বামী ও সদস্যভূমিষ্ট সন্তানদের সাথে ছবি তুলেছেন।

রাজপরিবার কী করে?
ব্রিটিশ সরকারকে বলা হয় হার মেজেস্টি'স গভর্নমেন্ট, যদিও রানির কার্যত কোনো রাজনৈতিক ক্ষমতা নেই।

রানি সপ্তাহে একদিন প্রধানমন্ত্রীকে সাক্ষাৎ দেন, যেটি মূলত সরকারে তার অবস্থানকে মনে করিয়ে দেয়া। তবে প্রধানমন্ত্রী নীতি নির্ধারণের ক্ষেত্রে রানির কোনো অনুমোদন চান না।

রানি ও রাজপরিবারের অন্য সিনিয়র সদস্যরা অফিসিয়াল কর্মসূচিতে অংশ নেন।

পরিবারের সদস্যরা অন্য দেশে ভ্রমণের সময় রানিকে প্রতিনিধিত্ব করেন।

যেমন ডিউক ও ডাচেস অব ক্যামব্রিজ গত মার্চে আয়ারল্যান্ডে সরকারি সফরে গিয়েছেন।

তাদের অনেকে নানা দাতব্য সংস্থার পৃষ্ঠপোষকতা করেন, কেউ নিজেও দাতব্য সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেছেন। যেমন ডিউক অব এডিনবারা অ্যাওয়ার্ড প্রকল্প আছে তরুণদের জন্য।

সশস্ত্র বাহিনীর সাথে তাদের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক থাকে।

প্রিন্স উইলিয়াম রাজকীয় বিমানবাহিনী ও প্রিন্স হ্যারি সেনাবাহিনীতে কাজ করেছেন।

রাজপরিবারের সদস্যরা কি সবসময় সরকারি দায়িত্ব পালন করেন?
না। গত বছর প্রিন্স হ্যারি ও মেগান, ডাচেস অব সাসেক্স, ঘোষণা করেন যে তারা রাজকীয় দায়িত্ব থেকে সরে যাবেন এবং স্বাধীন উপার্জনের জন্য কাজ করবেন।

বাকিংহ্যাম প্যালেস নিশ্চিত করে যে এ দম্পতি সেনাবাহিনীতে তাদের সম্মানজনক পদ ও রাজকীয় পৃষ্ঠপোষকতা ফিরিয়ে দেবেন, যা রাজপরিবারের অন্য সদস্যদের মধ্যে পুনঃবণ্টন করা হবে।

ডিউক অব ইয়র্ক (প্রিন্স এন্ড্রু) রাজকীয় দায়িত্ব থেকে ২০১৯ সালে সরে দাঁড়িয়েছিলেন।

বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি একজন যৌন অপরাধী জেফরি এপস্টেইনের সাথে বন্ধুত্বের কথা স্বীকার করার পর এ ঘটনা ঘটে।

রাজপরিবারের অর্থ আসে কোথা থেকে 
প্রতি বছর যুক্তরাজ্য সরকার রানিকে বরাদ্দ দেয় যা সভরেন গ্রান্ট হিসেবে পরিচিত।

ক্রাউন এস্টেটের দ্বিবার্ষিক রাজস্ব আয়ের শতকরা ২৫ শতাংশের ওপর ভিত্তি করে এটি দেয়া হয়। ক্রাউন এস্টেট একটি স্বাধীন বাণিজ্যিক প্রোপার্টি ব্যবসা।

এর আওতায় আছে ৪৮০০ একর উইন্ডসর গ্রেট পার্ক ও বার্কশায়ারে দি আস্কট রেসকোর্স।

তার বেশিরভাগ আবাসিক ও বাণিজ্যিক সম্পত্তি।

সভরেন গ্রান্ট ২০২০-২১ সালে ছিলে ৮৫ দশমিক ৯ মিলিয়ন পাউন্ড, যা রাজকীয় দায়িত্ব সম্পাদন ও রাজকীয় জায়গাগুলোর রক্ষণাবেক্ষণে ব্যয় হয়।

প্রিন্স চার্লস ডাচি অব কর্নওয়েল থেকে বছরে ২২.৩ মিলিয়ন পাউন্ড আয় করেন। এটি মূলত সম্পত্তি এবং বিনিয়োগের এক বিস্তৃত পোর্টফোলিও।

রাজপরিবারের সদস্যরা কোথায় বাস করেন 
লন্ডেনে রানির সরকারি বাড়ির নাম বাকিংহাম প্রাসাদ। সাধারণত সপ্তাহান্তে তিনি কাটান বার্কশায়ারে উইন্ডসর ক্যাসেলে। আর ঈস্টারের সময় পুরো এক মাস কাটান।

তবে মহামারীর পুরো সময় রানি সেখানে আছেন। প্রিন্স ফিলিপ সেখানেই মারা গেছেন।

লন্ডনে থাকার সময় প্রিন্স চার্লস ও ডাচেস অব কর্নওয়েল ক্লারেন্স হাউজে থাকেন। এটি বাকিংহাম প্রাসাদ থেকে প্রায় আধা মাইল দূরে।

প্রিন্স উইলিয়াম ও ডাচেস অব ক্যামব্রিজ কেনসিংটন প্রাসাদে বসবাস করেন।

সূত্র : বিবিসি



আরো সংবাদ


সাকিব করোনা নেগেটিভ, ফলের অপেক্ষায় মোস্তাফিজ লিচু পাড়তে না দেয়ায় খুন হলেন মামা আদালতে জামিন পাওয়া মানুষের অধিকার : বিশিষ্টজনদের অভিমত খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ নেয়ার প্রয়োজন আছে কিনা প্রশ্ন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রীর আসাদকে রক্ষায় রাশিয়ার ইসরাইলি ড্রোন প্রযুক্তি ব্যবহার দূরপাল্লায় প্রাইভেটকারের রাজত্ব, রমরমা ব্যবসা কোম্পানীগঞ্জে সংঘর্ষের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় আটক ৩ করোনার টিকা দ্বিতীয় ডোজ না নিলে কী হবে নোয়াখালীতে ইলেকট্রিক মিস্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা, আটক ২ কুষ্টিয়ায় ব্যবসায়ীদের সহযোগিতায় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করলেন হানিফ মুম্বাইয়ে ২৪ কোটি টাকার ইউরোনিয়ামসহ গ্রেফতার ২

সকল