২৭ অক্টোবর ২০২০

ব্রিটেন আন্তর্জাতিক আইন ভাঙার অভিযোগ স্বীকার করলো

ব্রিটেন আন্তর্জাতিক আইন ভাঙার অভিযোগ স্বীকার করলো -

আইন প্রণয়ন করে ব্রেক্সিট চুক্তির কিছু শর্ত ভাঙার উদ্যোগ নিচ্ছে ব্রিটেনের সরকার৷ ফলে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে জোরালো সংঘাতের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে৷

পুরোপুরি বিচ্ছেদের পর ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ব্রিটেনের মধ্যে সম্পর্ক নিয়ে আলোচনায় অগ্রগতির অভাব নিয়ে এতদিন তেমন কোনো বিস্ময় ছিল না৷ আলোচনা বিফল হলে ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ব্রেক্সিট পুরোপুরি কার্যকর হবার পর দুই পক্ষের মধ্যে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার নিয়ম মেনে লেনদেন হবে, এমনটাই ধরে নেয়া হয়েছিল৷ কিন্তু অমীমাংসিত বিষয়গুলো নিয়ে মতবিরোধের পাশাপাশি স্বাক্ষরিত ব্রেক্সিট চুক্তির শর্ত খেলাপের আশঙ্কা কেউ করেনি৷ সেই আশঙ্কা সত্য প্রমাণ করে ব্রিটেন বুধবার এমন আইনের খসড়া পেশ করতে চলেছে, যার ফলে আন্তর্জাতিক আইন ভেঙে ব্রেক্সিট চুক্তির অংশবিশেষ বাতিল করা হতে পারে৷

বরিস জনসনের সরকার সত্যি ব্রেক্সিট চুক্তির শর্ত ভেঙে অভ্যন্তরীণ আইন প্রণয়ন করলে তার পরিণাম যে মারাত্মক হতে পারে, সে বিষয়ে সতর্ক করে দিচ্ছেন ইইউ নেতারা৷ বিশেষ করে উত্তর আয়ারল্যান্ডের শান্তি বিপন্ন করতে পারে, এমন কোনো পদক্ষেপ পরিস্থিতি জটিল করে তুলবে বলে সতর্কবাণী শোনা যাচ্ছে৷
আয়ারল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইমন কোভেনি বলেছেন, গত বছরের ব্রেক্সিট চুক্তির শর্ত ভাঙা হলে রাজনৈতিক আস্থার মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে৷ এ অবস্থায় ভবিষ্যৎ বাণিজ্যিক সম্পর্ক নিয়ে আলোচনায় ইইউ আরো কড়া অবস্থান নেবে বলে তিনি জানিয়ে দিয়েছেন৷ ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রেসিডেন্ট ডেভিড সাসোলি বলেন, ব্রিটেন বোঝাপড়ার শর্ত ভাঙার কোনো চেষ্টা করলে তার মারাত্মক পরিণাম দেখা দিতে পারে৷

এমন উত্তেজনার ফলে পাউন্ডের বিনিময় মূল্য ও ব্রিটেনের পুঁজিবাজার ধাক্কা খেয়েছে৷ প্রধানমন্ত্রী জনসন চলমান করোনা সঙ্কট ও চুক্তিহীন ব্রেক্সিট ঘটলে অর্থনৈতিক ধাক্কা সামলানোর আশ্বাস দিলেও উত্তেজনা দূর হচ্ছে না৷ ব্রেক্সিট চুক্তি খেলাপের অভিযোগের জবাবে ব্রিটেনের সরকার জানিয়েছে, যে আগামী বছর থেকে উত্তর আয়ারল্যান্ডের সাথে ইইউ ও ব্রিটেনের বাকি অংশের বাধাহীন ব্যবসাবাণিজ্যের স্বার্থে কিছু ‘টেকনিক্যাল’ পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে৷

ব্রিটিশ সংসদে এক প্রশ্নের জবাবে উত্তর আয়ারল্যান্ডের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী ব্র্যান্ডন লুইস স্বীকার করেন যে, এই পদক্ষেপের ফলে ‘নির্দিষ্ট ও সীমিত আকারে’ আন্তর্জাতিক আইন ভাঙা হচ্ছে৷ তবে তার মতে, পরিস্থিতি পরিবর্তনের ফলে অতীতেও এমন ঘটনার দৃষ্টান্ত রয়েছে৷

আয়ারল্যান্ডে শান্তিভঙ্গ হলে ব্রিটেন যে আন্তর্জাতিক স্তরেও সমস্যার মুখে পড়বে, সে বিষয়ে গত বছরই সতর্ক করে দিয়েছেন মার্কিন সংসদের নিম্ন কক্ষের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি৷ তিনি বলেন, সে ক্ষেত্রে ব্রিটেন ও আমেরিকার মধ্যে কোনো মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি সংসদে বিবেচনাই করা হবে না৷ মঙ্গলবার ডেমোক্র্যাটিক দলের সংসদ সদস্য ব্রেন্ডন বয়েল বলেছেন, এমন কোনো দেশের সাথে বাণিজ্য চুক্তি নিয়ে আলোচনা শুরু করা কঠিন হবে, যেদেশ সবে গুরুত্বপূর্ণ এক চুক্তির খেলাপ করেছে৷

এই সিদ্ধান্তকে কেন্দ্র করে ব্রিটিশ সরকারের আইন বিভাগের প্রধান জনাথন জোনস পদত্যাগ করেছেন বলে শোনা যাচ্ছে৷ প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে ও বিরোধী লেবার পার্টির নেতারাও এমন সিদ্ধান্তের সমালোচনা করছেন৷ সূত্র : ডয়চে ভেলে


আরো সংবাদ