০৫ এপ্রিল ২০২০

২০২০ সালের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার প্রস্তুতি : পর্বসংখ্যা-৩৫

ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা প্রথম অধ্যায় : আকাইদÑবিশ্বাস
-

প্রিয় প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনীর শিক্ষার্থী বন্ধুরা, শুভেচ্ছা নিয়ো। আজ তোমাদের ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা বিষয়ের ‘প্রথম অধ্যায় : আকাইদ-বিশ্বাস’ থেকে ২টি বর্ণনামূলক প্রশ্ন ও উত্তর নিয়ে আলোচনা করা হলো।
প্রশ্ন : আল্লাহ সর্বদ্রষ্টাÑ ব্যাখ্যা করো।
উত্তর : মহান আল্লাহ তায়ালা সর্বত্র বিরাজমান। তিনি গভীর সাগর-মহাসাগরের তলদেশে অতি ক্ষুদ্র প্রাণীরা কী করছে তা দেখছেন। আবার ভূপৃষ্ঠের গভীরে কোনো খনিজ সম্পদ কিভাবে আছে তাও তিনি দেখছেন। অমাবস্যার রাতে গভীর অন্ধকারে নিরিবিলিতে আমরা যা কিছু করি সবই তিনি দেখছেন। তাঁর কাছে কিছুই অদৃশ্য থাকে না। আল্লাহ কুরআন মাজিদে বলেছেন, নিশ্চয়ই আল্লাহ সর্বশ্রোতা, সর্বদ্রষ্টা। আল্লাহ তায়ালা মানুষকে সব সময় তাঁর আদেশ-নিষেধ মেনে চলার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। সমাজে অনেক লোক আছে, যারা অন্যের ক্ষতি করার জন্য গোপনে পরামর্শ করে। সেহরি খাওয়ার পর থেকে সূর্য অস্ত যাওয়া পর্যন্ত আমাদের না খেয়ে থাকতে হয়। একটু পানিও পান করা যায় না। কেউ যদি মনে করে ঘরের মধ্যে লুকিয়ে খাবো। তারা মনে করে কেউ তাদের দেখছে না, জানছে না। কিন্তু তাদের এ ধারণা ভুল। মহান আল্লাহ সবই দেখছেন, সবই শুনছেন। তাঁর জানার বাইরে কিছু নেই। অতএব বলা যায়, আল্লাহ সর্বদ্রষ্টা।
প্রশ্ন : নবী-রাসূলগণের জীবনের লক্ষ্য কী ছিল?
উত্তর : নবী ও রাসূলগণের জীবনের লক্ষ্যগুলো নিচে উপস্থাপন করা হলোÑ
১. মানুষের জীবন মঙ্গলময় করা ও মানুষের কল্যাণ সাধন করা ছিল নবী-রাসূলগণের জীবনের অন্যতম লক্ষ্য।
২. নবী-রাসূলগণ মানুষকে আল্লাহ তায়ালার অনুগত বান্দা হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে সারা জীবন কাজ করে গেছেন।
৩. নবী-রাসূলগণের জীবনের আর একটি লক্ষ্য ছিল মানুষকে আল্লাহর ইবাদত-বন্দেগি পালনে অভ্যস্ত করা।
৪. আল্লাহর নির্দেশিত পথে মানুষকে চলতে আগ্রহী করেছেন নবী-রাসূলগণ।
৫. আল্লাহ তায়ালার অপছন্দনীয় কাজ তথা শয়তানের প্রিয় কাজগুলো থেকে মানুষকে বিরত রাখার জন্য নবী-রাসূলগণ সব সময় চেষ্টা করে গেছেন।
৬. নবী-রাসূলগণ মানুষের চরিত্রকে সৎ ও কলুষমুক্ত করে গড়ে তোলার জন্য বিশেষ জোর দিয়েছিলেন।
৭. সাম্য ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় নবী-রাসূলগণ কঠোর সংগ্রাম করে গেছেন।
৮. নবী-রাসূলগণ মানুষকে পরকালীন জীবন সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা দিয়ে গেছেন।
৯. নবী-রাসূলগণ আল্লাহ সম্পর্কে বিস্তারিত যে ধারণা প্রচার করেছেন, তা হলোÑ তাওহিদ বা আল্লাহর একত্ববাদ।
১০. নবী-রাসূলগণ বৈধ-অবৈধ বা হালাল-হারাম এবং জায়েজ-নাজায়েজ বিষয় মেনে চলার শিক্ষা দিয়েছেন।
তাই বলা যায়, নবী-রাসূলগণ সব সময় আল্লাহর নির্দেশ মতো চলতেন। তাঁদের জীবনের লক্ষ্য ছিল আল্লাহর নির্দেশিত পথে চলা ও মানুষের কল্যাণ সাধন করা।


আরো সংবাদ