১৭ এপ্রিল ২০২১
`

সিলেটে মাদরাসাছাত্রীকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণের পর মুক্তিপণ দাবি, গ্রেফতার ২

সিলেটে মাদরাসাছাত্রীকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণের পর মুক্তিপণ দাবি, গ্রেফতার ২ - ফাইল ছবি

সিলেটের মোগলাবাজার এলাকায় সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ ও পরে মুক্তিপণ দাবির অভিযোগে দু’জনকে গ্রেফতার করেছে মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানা। রোববার মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২০ ফেব্রুয়ারি সিলেটের মোগলাবাজারের তুরুকখলা ইসলামিয়া বালিকা মাদরাসায় বই আনার জন্য রওনা হন নবম শ্রেণীর এক ছাত্রী (১৪)। এ সময় মাদরাসার সামনে পৌঁছালে মুহিবুর রহমান নামের এক সিএনজিচালক তাকে তুলে নিয়ে জালালাবাদ থানাধীন খালপাড়স্থ আদিল নামের এক দোকানির পিছনের রুমে আটকে রাখে। পরে ওই ছাত্রীকে (১৪) পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। একপর্যায়ে ছাত্রীটি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। পরে মেয়েকে অপহরণের নাটক সাজিয়ে মাদরাসাছাত্রীর বাবার কাছে মুক্তিপণের জন্য তিন লাখ টাকা দাবি করে অভিযুক্তরা। ওই মাদরাসাছাত্রীকে তার স্বজনরা উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। ওই ছাত্রী কিছুটা সুস্থ হওয়ার পর হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে ওসিসি বিভাগে ভর্তি করেন। বর্তমানে তিনি হাসপাতালের ওসিসি বিভাগে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এ দিকে ঘটনার পর শনিবার রাত ৯টার দিকে মেয়েটির বাবা মোগলাবাজার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানার মামলাটি নথিভুক্ত করে।

মামলায় সিলেটের বিশ্বনাথের মাতাবপুর গ্রামের চেরাগ আলীর ছেলে মুহিবুর রহমান (৩৭) ও খালপাড় এলাকার সোনা মিয়ার ছেলে আদিলকে (২২) আসামি করা হয়েছে। পরে তাদের গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।



আরো সংবাদ