২০ জুন ২০২১
`

উত্তরপ্রদেশ যেন মৃত্যু উপত্যকা! নদীর ধারে মিলল বালি চাপা দেয়া লাশের সারি

উত্তরপ্রদেশ যেন মৃত্যু উপত্যকা! নদীর ধারে মিলল বালি চাপা দেয়া লাশের সারি -

এ যেন মৃত্যু উপত্যকা! গঙ্গা-যমুনা দিয়ে বয়ে চলেছে সারি সারি লাশ। কোথাও আবার নদীর ধারে জমা হচ্ছে লাশ। এবার নদীর ধারে বালিতে পুঁতে লাশ ফেলার খবর মিলল ভারতের উত্তরপ্রদেশ থেকে। ঘটনাস্থল উন্নাও।

স্থানীয় সূত্রে খবর, রাজধানী লখনউ থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে যমুনা নদীর পাড়ে মিলেছে প্রচুর লাশ। যেগুলো বালিতে পুঁতে ফেলা হয়েছে। তবে এগুলা কোভিড আক্রান্তদের লাশ কিনা তা এখানো স্পষ্ট নয়।

প্রশাসনিক সূত্রে খবর, উন্নাওয়ের অন্তত দু’টি এলাকা থেকে উদ্ধার হয়েছে বালি চাপা দেয়া লাশের সারি। একসাথে বহু লাশ এভাবে সমাধিস্থ করা হয়েছে। যা দেখে অনেকে মনে করছেন, হাসপাতালগুলো কোভিড মৃত্যু লুকোতে গণকবরের রাস্তা বেছে নিয়েছে। মৃতদের পরিবার পরিজনকে না জানিয়েই লাশ এভাবে লোপাট করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করছেন অনেকে।

এই ঘটনায় উন্নাওয়ের জেলাশাসক রবীন্দ্র কুমার জানিয়েছেন, অনেকে লাশ দাহ করেন না। তারা নদীর ধারে লাশ সমাধিস্থ করে চলে যান। এটা সেরকমই কোনো ঘটনা কিনা খোঁজ নিয়ে দেখা হচ্ছে। খবর পাওয়া মাত্র আধিকারিকদের ঘটনাস্থলে পাঠিয়েছি। তারা স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে আসল সত্য উদঘাটনের চেষ্টা করছেন। কোভিড রোগীদের লাশ কি এভাবে চাপা দিয়ে ফেলে রাখা হচ্ছে?

সাংবাদিকদের এই প্রশ্নের জবাবে জেলাশাসক জানান, এগুলো কোভিড রোগীদের লাশ, এমন কোনো প্রমাণ এখনো মেলেনি। তবে সরকারি আধিকারিরা যাই বলুন না কেন, উত্তরপ্রদেশের বিভিন্ন এলাকায় এভাবে সারি সারি লাশ উদ্ধার হওয়ায় ব্যাপক চাপে যোগী সরকার।

উল্লেখ্য, দিন কয়েক ধরেই বিহার, উত্তরপ্রদেশের পর এবার মধ্যপ্রদেশের নদীতে ভাসতে দেখা গেল লাশ। পান্না জেলার রুঞ্জ নদীর তীরে ভেসে ওঠে দু’টি লাশ। কোভিড পরিস্থিতিতে যা ফের আতঙ্ক সৃষ্টি করল। যদিও প্রশাসনের দাবি, মৃতদের সাথে করোনাভাইরাসের কোনো সম্পর্ক নেই। দু’জনেরই মৃত্যুর কারণ ভিন্ন।
সূত্র : সংবাদ প্রতিদিন



আরো সংবাদ