০২ ডিসেম্বর ২০২০

কাশ্মিরে বিজেপির ৩ যুব নেতাকে গুলি করে হত্যা

কাশ্মিরে বিজেপির ৩ যুব নেতাকে গুলি করে হত্যা - ছবি : সংগৃহীত

ভারতশাসিত জম্মু ও কাশ্মিরে বিজেপি যুব মোর্চার তিন নেতাকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে কুলগ্রাম জেলার ওয়াইকে পোরা এলাকায়। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি শুক্রবার এ হত্যাকাণ্ডের নিন্দা করে টুইটারে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

পুলিশ জানিয়েছে, নিহতদের মধ্যে রয়েছেন যুব মোর্চার জেলা সাধারণ সম্পাদক ফিদা হুসেন ইতু, সংগঠনের জেলা কর্মসমিতির সদস্য উমর রশিদ বেগ এবং স্থানীয় নেতা উমর রমজান হজাম। তিনজনই ওয়াইকে পোরা এলাকার বাসিন্দা।

জম্মু ও কাশ্মির পুলিশের আইজি (কাশ্মির রেঞ্জ) বিজয় কুমার বলেন, ‘‘প্রাথমিক তদন্তে আমরা জানতে পেরেছি, পাক সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী লস্কর-ই-তৈবার মদতে উপত্যকায় গড়ে ওঠা নতুন উগ্রবাদী সংগঠন ‘দ্য রেজিস্ট্যান্ট ফ্রন্ট’ (টিআরএফ) কুলগামে বিজেপির তিন যুব নেতাকে খুন করেছে।’’

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হামলার সময় বিজেপির তিন যুব নেতা একটি গাড়িতে যাচ্ছিলেন। সে সময় দুর্বৃত্তরা গাড়ি লক্ষ্য করে স্বয়ংক্রিয় রাইফেল থেকে গুলি ছুড়ে তাদের ঝাঁঝরা করে দেয়। স্থানীয় গ্রামবাসীরা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরে চিকিৎসকরা তিনজনকেই মৃত ঘোষণা করেন।

স্থানীয় এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা রাত ৮টা ২০ মিনিট নাগাদ স্থানীয় সূত্রে হামলার খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পৌঁছেছিলাম।’ এ দিন সকালে জেলা সুপারসহ উচ্চপদস্থ পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে যান। এলাকা জুড়ে শুরু হয় পুলিশি টহলদারি।

নরেন্দ্র মোদি টুইটারে লেখেন, ‘আমাদের তিন উদ্যমী তরুণ নেতার খুনের নিন্দা করছি। তারা জম্মু ও কাশ্মিরের জন্য অসাধারণ কাজ করছিলেন। এই শোকের সময় তাদের পরিবারকে সমবেদনা জানাচ্ছি। নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করছি।’

জম্মু ও কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লাহও এ হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের গোড়া থেকেই দক্ষিণ কাশ্মিরের বিভিন্ন এলাকায় ধারাবাহিকভাবে দুর্বৃত্তদের টার্গেট হচ্ছেন বিজেপির নেতাকর্মীরা। আগস্ট মাসে কুলগাম জেলা বিজেপির সহ-সভাপতি সাজাদ আহমেদকে খুন করেছিল দুর্বৃত্তরা। জুলাইয়ে গুলি করে মারা হয় বান্দিপোরা জেলা বিজেপির সভাপতি শেখ ওয়াসিম বারি এবং তার ভাই ও বাবাকে।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা


আরো সংবাদ