২০ অক্টোবর ২০২০

প্রতারণার শিকার কাশ্মিরের ভারতপন্থী রাজনীতিবিদরা


সকিনা ইতো একসময় বিশ্বাস করতেন, ভারতের সাথে থাকাই কাশ্মিরিদের জন্য সবদিক দিয়ে ভালো। কিন্তু গত বছরের আগস্টে নয়াদিল্লি জম্মু-কাশ্মিরের স্বায়ত্তশাসন বাতিলের পর সেই বিশ্বাস উঠে গেছে তার। ৪৮ বছর বয়সী ভারতপন্থী এ রাজনীতিবিদ আল জাজিরাকে বলেন, আমরা জানি না মানুষের কাছে আবার কীভাবে যাবো। আমাদের নিজেদের কাছেই কোনো জবাব নেই, তাহলে তাদের কী বলব।

ইতোর বাবাও ছিলেন ভারতপন্থী রাজনীতিবিদ। ১৯৯৬ সালে গেরিলাদের হাতে প্রাণ হারান তিনি। এরপরই রাজনীতিতে যোগ দেন সকিনা ইতো। হয়েছিলেন আঞ্চলিক সরকারের অর্থমন্ত্রীও। কিন্তু নয়া দিল্লির ভক্ত হওয়ায় বেশ কয়েকবার গেরিলাদের হামলার শিকার হতে হয়েছে তাকে। গত এপ্রিলেও তার বাড়িতে গ্রেনেড নিক্ষেপ করা হয়েছিল।

নয়া দিল্লির প্রতি আনুগত্যের ফল

ইতোর দল ন্যাশনাল কনফারেন্স উপত্যকা অঞ্চলের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক শক্তি। কাশ্মিরের স্বাধীনতার বদলে তারা বরাবরই নয়া দিল্লির প্রতি অনুগত ছিল। এরপরও গত বছর ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের সময় দলটির প্রধান শক্তি আব্দুল্লাহ পরিবারকে জেলে যেতে হয়। সেই থেকে ন্যাশনাল কনফারেন্সসহ অন্যান্য আঞ্চলিক দলগুলোর গায়ে যে দাগ লেগেছে, তাতে কাশ্মিরের বর্তমান পরিস্থিতির সাথে খাপ খাওয়াতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হচ্ছে ভারতপন্থী অনুসারীদের।

ইতো বলেন, আমরা সবসময় মানুষকে অনুপ্রাণিত করতাম ও বলতাম, ভারতই আমাদের দেশ আর এটাই সবার জন্য ভালো। কিন্তু তরুণরা এখন আর সেই কথা শুনতে রাজি নয়। নয়া দিল্লি মুখ ফিরিয়ে নেয়ায় ভারতপন্থী রাজনীতিবিদরা এখন অনেকটাই নিস্তব্ধ হয়ে গেছেন, বিদ্রোহীদের ভয়ে জনসম্মুখেও খুব একটা আসছেন না।

সাবেক অর্থমন্ত্রী ইতো বলেন, আগে বিদ্রোহী যোদ্ধারা আক্রমণ করত, তবে আমরা সরকারের সাহায্য পেতাম। এখন এ দুইয়ের মধ্যে আটকে গেছি। কাশ্মির অঞ্চলের সবশেষ দুই মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন পিপলস ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (পিডিপি) থেকে। দলটির শীর্ষনেতা ও সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি এখনো বন্দী।

গত বছরের আগস্টে পিডিপির শত শত নেতাদের সাথে জেলে যেতে হয়েছিল তরুণ নেতা ওয়াহিদ পারাকে। তিনি বলেন, কাশ্মির ৫ আগস্টের আগেও সমস্যা ছিল, এখনো আছে। আমাদের দুঃখ ও আফসোস যে, জনগণের কাছে যে প্রতিশ্রতি করেছিলাম, সেগুলো ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। ৩০ বছর বয়সী এ নেতা বলেন, আমরা কাশ্মিরি যুবকদের সাংবিধানিক অবস্থানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম, (ভারতীয়) সংবিধানের মধ্যে সমাধানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম। আজ এগুলো শুধু জনগণ বা বিদ্রোহীদের মাধ্যমেই নয়, সরকারের দিক থেকেও চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে।

তিনি বলেন, আজ আমরা নিজ বাড়িতেই ঘরের বাইরে যেতে পারি না। অথচ আমরাই সেই লোক যারা গণতন্ত্রের পক্ষে ছিলাম।

প্রতারণা করেছে নয়া দিল্লি?

গত তিন দশক ধরে ভারতপন্থী রাজনীতিবিদরা কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতি আনুগত্য দেখিয়েছেন। কাশ্মিরে সশস্ত্র বিদ্রোহীদের উত্থানের পরিপ্রেক্ষিতে নিরাপত্তা পাওয়ার শর্তে নয়া দিল্লির প্রস্তাবে রাজি হয়েছিলেন তারা। প্রবীণ রাজনীতিবিদ মোহাম্মদ ইউসুফ তারিগামি ১৯৯৬ সাল থেকে দক্ষিণ কাশ্মিরের কুলগাম আসনের সব ক’টি নির্বাচনেই জিতেছেন। তিনি বলেন, বিরোধপূর্ণ এ অঞ্চলে স্বাধীনতাকামীদের সাথে ভারতপন্থী রাজনীতিবিদদের যে রেখাটি আলাদা করে রেখেছিল, সেটি মুছে দিয়েছে নয়া দিল্লি। এখন আমরা সবাই একই রেখায়। কোনো বিভাজন নেই। এখন সবাই একই জেলে রয়েছি, সেটা সন্ত্রাসী হোক বা স্বাধীনতাকামী বা মূলধারার।’ আলজাজিরা


আরো সংবাদ

ফেনীতে বেড়াতে এসে ধর্ষণের শিকার উপজাতি কিশোরী অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটে নৌযান-শ্রমিকরা ফাইনালে খেলার স্বপ্ন জিইয়ে থাকলো মাহমুদউল্লাহ বাহিনীর প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ ২০২০ সালের পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের প্রস্তুতি : পর্বসংখ্যা-৯৪ গণিত সংক্ষিপ্ত উত্তর প্রশ্ন নবম-দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া : বাংলা দ্বিতীয় পত্র বাংলা দ্বিতীয় পত্র প্রথম অধ্যায় : প্রথম পরিচ্ছেদ-ভাষা অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের প্রস্তুতি : বিজ্ঞান ষষ্ঠ অধ্যায় : পরমাণুর গঠন প্রয়োজনীয় বই- প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ সহায়িকা অষ্টম শ্রেণীর প্রস্তুতি : বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় অধ্যায়-৫ : সামাজিকীকরণ ও উন্নয়ন রুবেলের বলে আগুন ঝরছেই

সকল